‘তদবির করে আসিনি, প্রধানমন্ত্রী বসিয়েছেন’

Img

'প্রশাসন চিকিৎসকদের জায়গা দখল করে নিচ্ছে, সেই বিষয়ে আমাদেরকেই সজাগ থাকতে হবে, আমাদেরকেই সেটা প্রতিহত করতে হবে। আর একটি কথা বলতে চাই, আমি এই পদে ( মহাপরিচালক) কোনও রকমের তদবির করে আসি নাই। এই পদে প্রধানমন্ত্রী নিজে নির্বাচন করে আমাকে বসিয়েছেন, আমি এখানে থাকতে আসি নাই। আমাকে যে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে, যে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে, আমি সেটাই করছি। আর সে কাজ করেই আমি আমার নির্দিষ্ট সময়ে চলে যাবো।’

রবিবার ( ১৮ অক্টোবর) রাজধানীর একটি হোটেলে সোসাইটি অব সার্জনস অব বাংলাদেশ আয়োজিত ‘বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে কোভিড-১৯ মহামারিতে সার্জনদের ভূমিকা শীর্ষক’ অনুষ্ঠানে স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাসার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম এ কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, করোনার সেকেন্ড ওয়েভ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন, তার পরিপ্রেক্ষিতে আমাদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। সে অনুযায়ী আমরা কাজ করে যাচ্ছি এবং বেশ কিছু পরিকল্পনা করেছি। আমাদের প্রস্তুতিও আছে। আশা করছি, ওই সময়ে (আসন্ন শীত) যদি সত্যিই সেকেন্ড ওয়েভ আসে তাহলে সুষ্ঠুভাবে মোকাবিলা করতে পারবো।’

অধ্যাপক আবুল বাসার বলেন, ‘অ্যান্টিজেন-অ্যান্টিবডি পরীক্ষা নিয়েও কথা হচ্ছে। সরকার ইতোমধ্যে অ্যান্টিজেন পরীক্ষা করার অনুমতি দিয়েছে, সে বিষয়ে কাজ করছে। আশা করছি অতি দ্রুত সেটা শুরু হবে।’

পূর্ববর্তী সংবাদ

সিলেট জেলার শ্রেষ্ঠ অফিসার ইনচার্জ ওসি কে এম নজরুল

আইন-শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে রাখার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করায় সিলেটের কোম্পানীগঞ্জ থানার ওসি কে এম নজরুলকে জেলার শ্রেষ্ঠ ওসির পুরস্কারে ভূষিত করা হয়েছে।

রোববার (১৮ অক্টোবর)  সকালে জেলা পুলিশ লাইন্সের বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ এসপি এম শামসুল হক মিলনায়তনে পুলিশ মাসিক কল্যাণ সভায় জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ  ফরিদ উদ্দিন তার হাতে ক্রেস্ট তুলে দেন।

এসময় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাহবুবুল আলম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আমিনুল ইসলাম, জেলার সকল সার্কেল এসপি এবং সকল থানার ওসি উপস্থিত ছিলেন।

কে এম নজরুল সিলেট রেঞ্জে মানবিক ওসি হিসেবে খ্যাত। কোম্পানীগঞ্জ থানায় যোগদানের পর থেকেই আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে আসেন। নৌ পথে চাঁদাবাজি, অবৈধ বালু উত্তেলনসহ সকল ক্ষেত্রে সততা ও  সাহসিকতার সাথে  অপরাধ নিয়ন্ত্রণ করে চলেছেন। মাদকে নিয়ন্ত্রণে প্রতিনিয়ত অভিযান পরিচালনা করে মাদক ব্যবসায়ীদের আতঙ্কের আরেক নাম ওসি কে এম নজরুল।

মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল ও সুনামগঞ্জ জেলায়  দিরাই থানার দায়িত্বে থাকাকালীন ও মাদক ব্যবসা নির্মূল করেছিলেন। দিরাই থানার চাঞ্চল্যকর শিশু তুহিন হত্যাকান্ডের ঘটনা দ্রুত সময়ের মধ্যে মূল রহস্য উদঘাটন ও আসামীদের গ্রেফতার করাসহ মাদক, জুয়া, খুন,গুম, ইভটিজিং এর মতো অসামাজিক কার্যকলাপ বন্ধে অভিযান অব্যাহত সহ বিভিন্ন সামাজিক ও সাধারণ মানুষের সেবা করে যাচ্ছেন তিনি।

শ্রীমঙ্গল থানায় পুড়ে যাওয়া ঘর নতুনভাবে গড়ে দিয়ে সকলের ভালবাসার স্থান দখল করে নেন। মহামারি করোনাভাইরাস মোকাবেলায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করেন তিনি অসহায় পরিবার, বেধে পরিবারসহ ত্রাণ দিয়ে সবার পাশে ছিলেন। রাতের অধারে ও তিনি অসহায় পরিবার গুলোকে পৌছে দিতেন খাদ্যসামগ্রী। রাস্তায় পড়ে থাকা অসুস্থ ব্যক্তিকে নিজে হাসপাতালে ভর্তির মাধ্যমে চিকিৎসার সুব্যবস্থা করেন। 

একজন সফল ওসি হিসেবে ইতিমধ্যেই  জায়গা করে নিয়েছেন সিলেট, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার, হবিগঞ্জ ও দিরাই থানাসহ বাংলাদেশের অনেক অঞ্চলের সাধারণ মানুষের যথেষ্ট প্রশংসা কুড়িয়েছেন তিনি। শ্রেষ্ঠ অফিসার ইনচার্জ নির্বাচিত হওয়ায় সিলেট, সুনামগঞ্জ, মৌলভীবাজার, হবিগঞ্জ জেলা স্পেশাল ব্রাঞ্চ কর্তব্যকালীন সময়ের সহকর্মীরা উৎসাহ ও অভিনন্দন জানিয়েছে।

আরো অভিনন্দন জানিয়েছেন বাংলাদেশ পুলিশ এসোসিয়েনের যুগ্ম সাধারণ  সম্পাদক, মিলেনিয়াম ক্যাডেট পুলিশ অফিসার্স কো-অপারেটিভ সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক জুবায়ের আহমদ খান পিপিএম।

ওসি কে এম নজরুল সকলের কাছে বন্ধু সুলভ প্রিয় ব্যক্তিত্ব, অসহায়দের জন্য তার দরজা সব সময় খোলা। তিনি ভালবাসা, দয়া ও সৌহার্দ্যরে এক অনন্য উদাহরণ। তার সেই স্বওার বহিঃ প্রকাশ ঘটে মানুষের প্রতি অকৃত্রিম ভালবাসার বদান্যতায়।

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার