ইউরোপের দেশ ইতালিতে বৈধভাবে বসবাস করছে প্রায় ২ লাখ বাংলাদেশি। এছাড়াও বিভিন্নভাবে আসা অবৈধদের সংখ্যা প্রায় ১০ হাজার। দীর্ঘ প্রায় ৮ বছর পর ইতালিতে বৈধতা দেয়া হচ্ছে অবৈধ অভিবাসীদের। আগামী ১লা জুন হতে বৈধ হওয়ার আবেদন জমা নেয়া শুরু করছে ইতালি সরকার।

কিন্তু যে প্রক্রিয়ায় আবেদন নেয়া হবে তাতে বহু বাংলাদেশিসহ বিভিন্ন দেশ থেকে আসা অভিবাসীরা বৈধকরণের প্রক্রিয়া হতে বাদ পড়বে। মূলত কৃষিকাজ ও বাসাবাড়িতে বয়স্কদের দেখাশোনার কাজে যারা রয়েছেন তারাই বৈধ হওয়ার সুযোগ পাবেন।

এদিকে ইতালির ভেনিসে বসবাসরত বাংলাদেশি কমিউনিটির নেতৃবৃন্দ’র আয়োজনে রোববার সকাল সাড়ে ১০ টায় ভেনিসের ম্যাসরে র কয়েন মার্কেট চত্বরে প্রায় ১ হাজার বাংলাদেশিসহ বহু ইতালিয়ান সমাবেশে অংশ নেন।

সমাবেশে ৪টি দাবি তুলে ধরে কমিউনিটির নেতৃবৃন্দ ইতালিয়ান সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।দাবিগুলো হলো, সকল ক্যাটাগরিতে সৌজন্য প্রদান করা, পূর্বের ন্যায় আগে সরকারের নির্ধারিত ফি জমা দিয়ে সৌজন্য প্রদান ও পরে কাজ দেখিয়ে তা নবায়ন করা, করোনা ভাইরাসের প্রকোপে বাংলাদেশে আটকে পড়া বিশেষ করে যাদের সৌজন্য’র মেয়াদ শেষ হয়ে যাচ্ছে তাদের সৌজন্য’র মেয়াদ বাড়িয়ে দেয়া ও কোন প্রকার ঝামেলা ছাড়াই ইতালিতে প্রবেশে অনুমতি দেয়া এবং বাংলাদেশে আটকে পড়া পরিবারের নতুন ভূমিষ্ট সন্তানদের ইতালিয়ান সুযোগ সুবিধা দেয়া ও বিনা শর্তে বাচ্চাসহ প্রবেশে অনুমতি প্রদান করা।

কমিউনিটি নেতৃবৃন্দ তাদের বক্তব্যে আরো বলেন, অবৈধভাবে বসবাসকারীদের বিনা শর্তে বৈধতা দিলে তারা প্রতারণা ও দালাল চক্রের হাত থেকে রক্ষা পাবে। নয়তো তাদের গুনতে হবে ৫-৬ হাজার ইউরো। অপরদিকে সরকারের নির্ধারিত ফি জমা দিয়ে কোন শর্ত ছাড়া বৈধতা দিলে সরকারের ফান্ডে জমা হবে এ অর্থ ।

সমাবেশে পুলিশি পাহারায় প্রবাসীরা মাস্ক ও হ্যান্ড গ্লাভস পরে নির্ধারিত দূরত্ব বজায় রেখে ব্যানার, ফেস্টুন ও প্লেকার্ড হাতে সারিবদ্ধ ভাবে দাঁড়িয়ে সুশৃঙ্খলভাবে অংশ নেন। সমাবেশ সফল করায় ভেনিস, এভিজো ও আশপাশের শহর থেকে আসা সবাইকে ধন্যবাদ জানান নেতৃবৃন্দ। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন কমিউনিটি নেতা সৈয়দ কামরুল সারোয়ার , আবু তাহের খান আরফান মাস্টার প্রমূখ ।