ভারতে রিষড়ার কিশোরী সাঁতারুকে যৌন হেনস্থার অভিযোগে অভিযুক্ত প্রশিক্ষক সুরজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়কে গ্রেপ্তার করেছে দিল্লি পুলিশ। শুক্রবার (০৬ সেপ্টেম্বর) দিল্লির কাশ্মীরি গেট এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানি, ধর্ষণ ও পকসো আইনে মামলা রুজু করে তল্লাশিতে নামে পুলিশ। অবশেষে ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই মেলে সাফল্য।

ভারতীয় গণমাধ্যম জিনিউজের খবরে বলা হয়েছে, কিশোরী সাঁতারুকে হেনস্থার ভিডিও প্রকাশ্যে আসার পর গত বৃহস্পতিবার মামলা করে গোয়া পুলিশ।

ওদিকে ভিডিও প্রকাশের পর থেকেই ফেরার ছিলেন সুরজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়।

কিশোরীর অভিযোগ, গত ছ’মাস ধরে তার সঙ্গে আশালীন আচরণ করেছেন রজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়। কাউকে কিছু জানালে কেরিয়ার নষ্ট করে দেবেন বলে হুমকিও দিতেন ওই কোচ, এমনটাই অভিযোগ ওই সাঁতারুর।

কিন্তু শেষ পর্যন্ত উপায় না দেখে নিজের মোবাইল ফোনে গোটা ঘটনার ভিডিও তুলে রাখে কিশোরী। তারপর তা প্রকাশ্যে এনেছে সে।

সোশ্যাল মিডিয়ায় ভিডিয়ো ফাঁস হতেই বইছে সমালোচনার ঝড়। ক্ষুব্ধ বাংলার সাঁতার মহলও।

কিশোরীর পরিবার জানিয়েছেন, আগে রিষড়াতেই কোচিং করাতেন রজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়। তারপর তিনি গোয়ায় চলে যান। কোচের পরামর্শেই মেয়ের কেরিয়ার গড়তে গোয়া পাড়ি দেন রিষড়ার ওই সাধারণ-মধ্যবিত্ত পরিবারও।

কিন্তু বেশ কিছুদিন ধরেই ভালো পারফরম্যান্স ছিল না ওই কিশোরীর। অথচ কয়েক মাস আগেও জলে রীতিমতো দাপিয়ে বেড়াত মেয়েটা।

খারাপ পারফরম্যান্সের জন্য কিশোরীকে তার বাবা খানিক বকাঝকাও করেন। সে সময়েই মা-বাবাকে সব কথা জানায় ওই কিশোরী।

মেয়ের অভিযোগ শুনে প্রথমে বিশ্বাসই করতে পারেনি পরিবার। তারপর মোবাইলের ভিডিও দেখেই গোয়া থেকে ফিরে আসেন তাঁরা।

থানায় যান অভিযোগ জানাতে। প্রথমে অভিযোগ নিতে অস্বীকার করে পুলিশ। পরে রিষড়া ফাঁড়িতে ওই কোচের বিরুদ্ধে দায়ের হয়েছে অভিযোগ।