হাসপাতাল থেকে ছাড়া পাচ্ছেন ইউএনও ওয়াহিদা

Img

দুর্বৃত্তের হামলায় গুরুতর আহত দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা ওয়াহিদা খানমের শারী‌রিক অবস্থা উন্ন‌তির দিকে। তিনি এখন হাঁটতে পারছেন। 

পক্ষাঘাতগ্রস্তদের পুনর্বাসন কেন্দ্রে (সিআরপি) থেরাপি নিলে তার পুরোপুরি সুস্থ হওয়া সম্ভব বলে মনে করছেন চিকিৎসকরা। তাই ওয়াহিদা খানমকে নিউরোসায়েন্স হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র দেওয়ার কথা ভাবছেন চিকিৎসকরা।

বুধবার (৩০ সেপ্টেম্বর) অধ্যাপক ডা. জাহেদ হোসেন  বলেন, আশা করছি আগামীকাল তাকে আমরা ছাড়পত্র দেবো। তবে তাকে পরবর্তী চিকিৎসার জন্য হাসপাতাল থেকে সিআরপিতে (পক্ষাঘাতগ্রস্তদের পুনর্বাসন কেন্দ্র বা সেন্টার ফর দ্য রিহ্যাবিলিটেশন অফ দ্য প্যারালাইজড) যাওয়ার জন্য লিখে দেবো। 

ইউএনও ওয়াহিদা কতটা সুস্থ হয়েছেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, কোনও ধরনের সাপোর্ট ছাড়াই তিনি নিজে নিজেই হাঁটতে পারছেন।

‘তার আর কোনও সমস্যা নেই, হাত পায়ের শক্তি প্রায় নরমালের কাছাকাছি’  মন্তব্য করে অধ্যাপক ডা. জাহেদ হোসেন বলেন, তবে বাড়িতে বা সিআরপিতে গিয়ে থেরাপি নিলে বাকিটা হয়ে যাবে।

প্রসঙ্গত, গত ২ সেপ্টেম্বর দিনগত রাত আড়াইটার দিকে উপজেলা পরিষদ চত্বরে ইউএনও'র সরকারি বাসভবনে ঢুকে হামলা করে দুর্বৃত্তরা। প্রথমে গেটে দারোয়ানকে বেঁধে ফেলে তারা। পরে বাসার পেছনে গিয়ে মই দিয়ে উঠে ভেন্টিলেটর ভেঙে বাসায় প্রবেশ করে হামলাকারীরা। ভেতরে ঢুকে ভারী ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে এবং আঘাত করে ইউএনও ওয়াহিদাকে গুরুতর আহত করে তারা। এ সময় মেয়েকে বাঁচাতে এলে বাবা মুক্তিযোদ্ধা ওমর আলী শেখকে (৭০) জখম করে দুর্বৃত্তরা। পরে তারা অচেতন হয়ে পড়লে মৃত ভেবে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। ভোরে স্থানীয়রা টের পেয়ে তাদের উদ্ধার করেন।

ওয়াহিদাকে প্রথমে রংপুরে ও পরে রংপুর থেকে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে তাকে ঢাকায় আনা হয়। বর্তমান তিনি ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্স হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার