সৌদি আরবে যেতে টিকিটের কোন সমস্যা হবে না, সবাই যেতে পারবেন

Img

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম জানিয়েছেন, সৌদি আরবে যেতে টিকিটের কোন সমস্যা হবে না। সবাই যেতে পারবেন, সফর মাস শেষ হবার আগেই।

শনিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) নিজের ফেসবুকে এ তথ্য জানিয়েছেন প্রতিমন্ত্রী।

শাহরিয়ার আলম বলেন, ‘নিজের টিকিটটা আগে সংগ্রহের উদ্দেশ্যে সবাই একসাথে টিকিট কাটার চেষ্টা করছেন বলে ভিড় হচ্ছে বা মনে হচ্ছে টিকিটের সংকট হচ্ছে, যা সত্য নয়। প্রয়োজনে ফ্লাইট সংখ্যাও বাড়ানো হবে। অযথা হৈ-হুল্লোড় বা তাড়াহুড়োর কোন প্রয়োজন নেই। দাম্মামেও ফ্লাইট পরিচালনার জন্য আমরা বলেছি এবং তা করা হবে। তারিখ পরে জানিয়ে দেওয়া হবে। কেউ বাদ যাবেন না। ’

ঢাকার সৌদি দূতাবাসের নির্দেশনা অনুযায়ী ভিসার মেয়াদ বৃদ্ধির জন্য নিয়ম মেনে আবেদনের অনুরোধ জানান প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম।

পূর্ববর্তী সংবাদ

যেভাবে দাঁতের ক্ষতি করছেন

আমাদের দিন শুরু ও শেষ হয় দাঁত ব্রাশ করা দিয়ে। অথচ অনেকেই হয়তো জানেন না দাঁত ব্রাশ করার সঠিক নিয়ম-কানুন। অনেকেরই ধারণা, প্রতিবার খাওয়ার পরই দাঁত ব্রাশ করা উচিত। এতে দাঁত ভালো থাকবে। 

দাঁত থাকতেই দাঁতের মর্ম বোঝা দরকার। কারণ এটি নষ্ট হলে ফিরে পাওয়া যায় না। এমনকি ক্যাপ পরাতেও আসল দাঁতের গোড়াটুকু চাই।

চা, কফি এবং কোমল পানীয় পান করার পরপরই দাঁত ব্রাশ করা উচিত নয়। এ জাতীয় পানীয়তে থাকা অ্যাসিডের সঙ্গে টুথপেস্টের রিঅ্যাকশনের ফলে দাঁতের এনামেল পুড়ে যায়। পাশাপাশি, অ্যাসিড দাঁতের এনামেলের ভেতরে এঁটে যায়। তাই দাঁত যদি মাজতেই হয়, এ ধরনের পানীয় পানের অন্তত মিনিট ত্রিশেক পরে মাজুন।

পাশাপাশি অ্যাসিড দাঁতের এনামেলের ভেতরে আঁটকে যায়। তাই দাঁত যদি মাজতেই হয় এ ধরনের পানীয় পানের অন্তত আধা ঘণ্টা পরে মাজুন।

দিনে প্রতিবার খাওয়ার পর দাঁত পরিষ্কার করা একদমই জরুরি নয়। বরং সকাল আর রাতে মোট দু’বার দাঁত মাজলেই তা যথেষ্ট। খাওয়ার পরপরই দাঁত মাজা জরুরি কিনা, তা নির্ভর করছে আপনি কী ধরনের খাবার খাচ্ছেন তার উপর।

প্রয়োজনের চেয়ে বেশিবার দাঁত মাজার ফলে দাঁতের উপরের স্তর ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এতে ‘টুথ সেনসিটিভিটি’বা দাঁত সিরসির করার সমস্যা দেখা দেয়। এরকম সমস্যায় অনেকেই ভুগে থাকেন।

এখন প্রশ্ন হলো, কখন তাহলে দাঁত মাজা উত্তম? বিশেষজ্ঞরা বলেন, সকালে এবং রাতে খাওয়ার পর মোট এই দু’বার দাঁত ব্রাশ করা উচিত। তবে খাবার খাওয়া ও দাঁত ব্রাশ করার মধ্যে অন্তত ৩০ মিনিটের বিরতি রাখতেই হবে। এতে অ্যাসিডের মাত্রা কমে আসবে অনেকটাই।

বেশি জোর দিয়ে এবং অতিরিক্ত দাঁত ব্রাশ করার ফলে দাঁতের এনামেল এবং মাড়ির ক্ষতি হয়। তা ছাড়া টুথব্রাশের ব্রিসেলস যদি বেশি শক্ত হয়, তাতে দাঁত ও মাড়ি কেটে যেতে পারে।

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার