সৌদি আরবে আরো অতিরিক্ত মার্কিন সেনা মোতায়েনের অনুমোদন দিয়েছেন সৌদি বাদশাহ সালমান বিন আব্দুল আজিজ আল সৌদ ও যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান। গত মাসে জেদ্দায় দু’টি তেল স্থাপনা আক্রান্ত হওয়ার পর দেশটিতে দ্বিতীয় দফায় মার্কিন সৈন্য মোতায়েনের অনুমোদন দিলেন তারা।

শনিবার সৌদি আরবের রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা সৌদি প্রেস অ্যাজেন্সি এক প্রতিবেদনে সৌদিতে মার্কিন সেনা মোতায়েনের খবর দিয়েছে।

সৌদির তেল স্থাপনায় হামলা হওয়ার পর আঞ্চলিক প্রতিদ্বন্দ্বী ইরানের সঙ্গে তীব্র উত্তেজনা দেখা দেয়। এই উত্তেজনায় পারদ যুগিয়ে সৌদিতে ৩ হাজার সৈন্য মোতায়েনের ঘোষণা দেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। মার্কিন এই তিন হাজার সৈন্যের মধ্যে ফাইটার স্কোয়াড্রন, বিমান অভিযান শাখা ও বিমান প্রতিরক্ষা বাহিনী রয়েছে।

প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, মার্কিন সৈন্য মোতয়েনের ব্যয় বহনে রাজি হয়েছে সৌদি আরব। সৌদি প্রেস অ্যাজেন্সি বলছে, দুই দেশের সুপ্রতিষ্ঠিত অংশীদারিত্ব ও ঐতিহাসিক সম্পর্কের পরিপ্রেক্ষিতে সৌদিতে সেনা মোতায়েন করছে যুক্তরাষ্ট্র।

এদিকে, শুক্রবার সৌদি আরবের বন্দরে ইরানের একটি তেলবাহী ট্যাঙ্কারে গুপ্ত হামলা হয়েছে। সৌদি ও যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে যখন দেশটির উত্তেজনা চরমে পৌঁছেছে তখন তেল ট্যাঙ্কারে এই হামলার ঘটনাকে ‘কাপুরুষোচিত’ উল্লেখ করে জবাব দেয়ার হুমকি দিয়েছে ইরান।