সীমান্ত এলাকা পাঁচবিবি ও জয়পুরহাট সদর করোনার হটস্পটে পরিণত

বিষয়: করোনাভাইরাস
image
image
image

রাজশাহী বিভাগের জয়পুরহাট জেলার পাঁচটি উপজেলার মধ্যে বর্তমানে জয়পুরহাট সদর এবং পাঁচবিবি উপজেলা দিন দিন করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। সীমান্ত এলাকা হওয়াতে এ স্থানগুলো মারাত্মক আকার ধারণ করছে দিন দিন। পরিস্থিতি আয়ত্তে আনতে না পারলে যে কোন সময় ভয়াবহ অবস্থার সৃষ্টি হতে পারে এ জেলাটিতে।

বিশেষ করে বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম স্থলবন্দর হিলিসহ প্রায় ৮/১০ টি সিমান্ত পয়েন্ট রয়েছে এ উপজেলায়।  জেলার সচেতন জনসাধারণের চিন্তার বিষয় হয়ে দাঁড়ায় জেলার দুটি বড় গরুর হাট নতুনহাট এবং পাঁচবিবি গোহাটি। এ হাটে ভারতের বিপুল সংখ্যক গরু দেখতে পাওয়া যায়। জেলার ভারতের সাথে বিভিন্ন পয়েন্ট দিয়ে এসব গরু আনা হয় বাংলাদেশে। গত বছরের থেকে অনেক বেশি করোনা আক্রান্তের সংখ্যা এ বছরে। জেলার প্রশাসন এবং জনপ্রতিনিধিরা এক সাথে কাজ করছে জনসাধারণকে সচেতন করার জন্য। 

এমপি,ডিসি,এসপি, সিভিল সার্জন,  উপজেলা চেয়ারম্যান, পৌর মেয়র, নির্বাহী কর্মকর্তা, ওসিসহ স্থানীয়  অনেক জনপ্রতিনিধিরা তাদের চেষ্টা চলমান রেখেছে। মাইকিং, লিপলেট বিতরণ, ব্যানার লাগানো, মাস্ক বিতরণ,  সভা,সেমিনার,  সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য কমিটি গঠনসহ নানা পরিকল্পনা করছেন জনগনকে ভালো রাখার জন্য।  তবুও অনেক জনগনকে মাস্ক ব্যাবহার এবং স্বাস্থ্যবিধি না মানতে দেখা যায়। জেলা ম্যাজিস্টেট বিকেল থেকে সকাল পযন্ত সকল প্রকার দোকানপাট এবং ব্যবস্যা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখতে নোটিশ প্রদান করেছেন। 

গত বছরের চেয়ে এ বছর করোনা বৃদ্ধির কারণ হিসাবে অনেকেই মনে করেন এ বছর ভারতের ভয়াবহতার কিছুটা সিমান্ত এলাকাগুলোতে বিরাজ করছে, সেচ্ছাসেবী সংগঠনগুলো এ বছর কম কাজ করছে, সাধারণ মানুষ মাস্ক না পড়া, স্বাস্থ্যবিধি অমান্য করা, ভারতের পণ্য আমদানি করা, লকডাউন সঠিকভাবে পালন না করাসহ বিবিধ কারণে এ বছর করোনা আক্রান্ত রোগী বৃদ্ধি পাচ্ছে। গত বছর থেকে এ বছর মৃত্যুর সংখ্যাও অনেক বেশি। আসুন আমরা নিয়মিত মাস্ক পরি এবং সকল প্রকার স্বাস্থ্যবিধি মেনে  চলি।

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার