সিলেটে ছাত্রলীগ কর্মী দ্বীপ হত্যা, গ্রেফতার ১

Img

সিলেট নগরের টিলাগড় এলাকায় অভ্যন্তরীন কোন্দলে খুন হয়েছেন অভিষেক দে দ্বীপ (২১) নামের এক ছাত্রলীগ কর্মী।

দ্বীপ শিবগঞ্জের সাদিপুর ২ নম্বর বাসার দ্বীপক দের ছেলে।

নিহত দ্বীপ শিবগঞ্জের গ্রিনহিল স্টেট কলেজের ছাত্র ও সিলেট জেলা মুক্তিযোদ্ধ মঞ্চের সহ-সম্পাদক। এ ঘটনায় একজনকে আটক করেছে পুলিশ। 

বৃহস্পতিবার (৬ ফেব্রুয়ারি) রাত সাড়ে নয়টায় গোপালটিলা এলাকায় তাকে ছুরিকাঘাত করা হয়। পরে তাকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

দ্বীপ সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক রণজিত সরকারের অনুসারী।

ঘটনার পরপরও ওসমানী হাসপাতাল থেকে চিকিৎসাধীন থাকা সৈকত রায় নামের এক ছাত্রলীগ কর্মীকে আটক করেছে পুলিশ। তাকে পুলিশি পাহারায় সেখানে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, সরস্বতি পুজার চাঁদা নিয়ে ঝামেলা ও জুনিয়র-সিনিয়র দ্বন্দ্বের জেরে বৃহস্পতিবার রাতে টিলাগড়ের গোপালটিলা এলাকায় এমসি কলেজের পেছনের গেইটে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের দু’টি গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এসময় ছুরিকাঘাতে গুরুতর আহত হন অভিষেক দে দ্বীপ এবং শুভ নামে দুই ছাত্রলীগ কর্মী। অভিষেক দ্বীপকে তাৎক্ষণিক সিলেট এমএজি ওসমানী হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। দ্বীপ হত্যাকারীদের চিহৃিত ও গ্রেফতার করার লক্ষ্য অভিযানে নামে হজরত শাহপরাণ (রঃ) থানা পুলিশ।

থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল কাইয়ূম চৌধুরীর নেতৃত্বে সিলেট এমএজি ওসমানী হাসপাতাল থেকে চিকিৎসাধীন থাকা সৈকত রায় নামের এক ছাত্রলীগ কর্মীকে আটক করা। তাকে পুলিশি পাহারায় সেখানে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে হজরত শাহপরাণ (রঃ) থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল কাইয়ূম চৌধুরী বলেন, খবর পেয়ে আমরা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ নিয়ে আসি।  ইতিমধ্যেই আমাদের সিলেট মহানগর পুলিশের দক্ষিণের ডিসি সোহেল রেজা স্যার নিজেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।

অভিযোগ পেলে পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

প্রসঙ্গত, এর আগেও টিলাগড়ে অভ্যন্তরীণ কোন্দলের জেরে একাধিক ছাত্রলীগ কর্মীর প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে।

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার