সাতক্ষীরার তালা উপজেলার হিসাবরক্ষক অফিসে জনবল চরম সংকটে আকার ধারণ করেছে।আর সেই ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে হিসাবরক্ষক অফিস সহ সাধারণ জনগণের।

জানাযায়, জনবল সংকটের কারণে ১২টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত তালা উপজেলার ৩৭টি অফিসের সকল বিলসহ মাসিক ৭শত ৫০ জন পেনশন প্রাপ্তদের বেতন ও ভাতা দিতে হিমসিম খাচ্ছে এ অফিসের কর্মকর্তারা।

অফিস সূত্রে প্রকাশ ,অফিসে মোট জনবল থাকার কথা ৮জন। ১জন একাউন্ট অফিসার, ২জন অডিটর, ৩ জন জুনিয়র অডিটর, ১ জন কম্পিউটার অপারেটর এবং ১জন পিয়ন। বর্তমানে ৮ জনের মধ্যে আছে মাত্র ৪ জন। ৪জনের মধ্যে ২মাস পরে ১জন পেনশনে যাবেন। থাকবে মাত্র ৩ জন। যে পদগুলো খালি তা হলো হিসাবরক্ষক অফিসার। অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করছেন মো. আব্দুল খালেক হাওলাদার। তিনি খুলনা জেলার ডুমুরিয়া উপজেলার দায়িত্বে। অডিটর ২জন থাকলেও ২মাস পরে পেনশন যাচ্ছেন আব্দুল লতিফ। জুনিয়র অডিটর ৩ জনের মধ্যে আছে ১ জন মো. আরিফুজ্জামান। ২জন জুনিয়র অডিটদের পদ শূন্য।

অতিরিক্ত দায়িত্বপ্রাপ্ত আ:খালেক জানান,জনবল না থাকায় আমি ডুমুরিয়া ও তালা মোট ২টি অফিসের দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে হিমশিম খাচ্ছি। যদি অতিদ্রুত এই জনবল সংকট নিরসন সম্ভব না হয় তাহলে আমাদের কঠিন বিড়ম্বনার মধ্যে পড়তে হবে।

বিড়ম্বনার হাত রক্ষা পেতে জনবল সংকটে জর্জরিত হিসাবরক্ষক অফিসে অতি দ্রুত পরিপূর্ণ জনবল পাওয়ার আশা করছেন অফিসের কর্তৃপক্ষসহ সকল ভুক্তভোগীরা। এ বিষয়ে সকলে জেলা প্রশাসক, বিভাগীয় প্রধানসহ ঊর্ধ্বতন মহলের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।