শ্রমবাজার নিয়ে বাংলাদেশের জন্য মালয়েশিয়ার নতুন চমক 'সিকিউরিটি গার্ড'

Img

এশিয়ার সর্ববৃহৎ শ্রমবাজার মালয়েশিয়ায় নতুন করে বাংলাদেশসহ তিনটি দেশের জন্য সিকিউরিটি গার্ডের চাকরির সুযোগ দিতে পরিকল্পনা করছে।

মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশিরা বিভিন্ন ধরনের কাজের সাথে জড়িত থাকলেও সিকিউরিটি গার্ডের চাকরির সুযোগ ছিল এক মাএ নেপালের হাতে। কিন্তু দেশটির সরকার নিরাপত্তা সেবা খাতে শূন্যপদ পূরণের জন্য বাংলাদেশ, ইন্দোনেশিয়া এবং ফিলিপাইনকে নতুন সোর্স কান্ট্রি দেশ হিসেবে দেখার পরিকল্পনা করছে।

বৃহস্পতিবার (২৫ নভেম্বর) নিরাপত্তা পরিষেবা শিল্প এবং বেসরকারি সংস্থাগুলির সাথে বৈঠকের পর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হামজাহ জয়নুদিন বলেন, নিরাপত্তা খাতে (সিকিউরিটি) নতুন সোর্স কান্ট্রি বিষয়ে কোনও সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে অবশ্যই বিষয়টি অধ্যয়ন করা হবে এবং ভবিষ্যতে যাতে কোনও সমস্যা না হয়, তা নিশ্চিত করতে স্টেকহোল্ডারদের সাথে আলোচনা করা হবে।

তিনি আরো বলেন, আমি শিল্প, সরকারী পররাষ্ট্র ও প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় সহ সংশ্লিষ্ট পক্ষের সাথে অধিবেশনের পরে এটি ঘোষণা করব।"

আরও মন্তব্য করে, হামজাহ বলেছেন যে, এটি নিশ্চিত করার জন্য যে, দেশটিতে যাদের আনা হয়েছে তারা মালয়েশিয়ায় কাজ করার জন্য এবং অন্য উদ্দেশ্যে নয়। কারণ হিসেবে তিনি বলেন, এর সাথে জাতীয় নিরাপত্তা জড়িত এবং আমি এই ইস্যুতে খুবই সংবেদনশীল।

হামজাহ প্রকাশ করেছেন যে নিরাপত্তা স্ক্রীনিংয়ের অভাব, আগ্নেয়াস্ত্রের অপব্যবহার এবং অবৈধ অভিবাসীদের নিয়োগের কারণে ২০১৪ সাল থেকে মোট ৬৬টি নিরাপত্তা এজেন্সির লাইসেন্স বাতিল করা হয়েছে। তিনি সুরক্ষা এজেন্সিকে তাদের বিরুদ্ধে কোনও পদক্ষেপ এড়াতে চলতি বছরের ৩১ ডিসেম্বর বা তার আগে তাদের লাইসেন্স নবায়ন করার আহ্বান জানান।

এদিকে, হামজাহ বলেছেন যে নিরাপত্তা রক্ষীদের মৌলিক প্রশিক্ষণ গ্রহণ করতে সক্ষম করার জন্য মন্ত্রণালয় একটি সুরক্ষা পরিষেবা শিল্প প্রশিক্ষণ একাডেমি প্রতিষ্ঠা করবে। এতে সহযোগিতা করবে একাডেমি পুলিশ, পিপলস ভলান্টিয়ার কর্পস (রেলা) এবং অভিবাসন বিভাগ।

দেশটিতে একক ভাবে নেপালিদের সিকিউরিটি গার্ডের চাকরির অবসান ঘটিয়ে বাংলাদেশিদের কাজের সুযোগ সৃষ্টি হলে নতুন দিগন্তের সূচনা হবে বলে মন্তব্য করেছেন দেশটিতে অবস্থানরত বাংলাদেশীরা।

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার