শীতকালে আমলকি কেন খাবেন?

Img

পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ একটি ফল আমলকি। অতি প্রাচীনকাল থেকেই ভেষজ ওষুধ তৈরিতে আমলকির ব্যবহার হয়ে আসছে। আমলকিতে আছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি, অ্যান্টিঅক্সিড্যান্টের মতো উপাদান। শরীরকে ভিতর থেকে পুষ্টি জোগায় এই ফল। 

তাই শীতকালে আমলকি খাওয়ার উপকারিতা অনেক-
 
১. রোগ-প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি

ভিটামিন সি ও অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট থাকায় আমলকি ভিতর থেকে দূষিত পদার্থ বার করে দেয়। রোগ-প্রতিরোধ ক্ষমতাও বাড়ায়।

২. ত্বকের সুস্থতায়

অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট থাকায় রক্তকে পরিষ্কার রাখে আমলকি। এছাড়া ত্বকের অকাল-বার্ধ্যক্যকেও আটকাতে সাহায্য করে।

৩. ওজন ঝরাতে

শীতকাল যেহেতু উৎসবের সময়, তাই এই সময় খাওয়া-দাওয়াও বেশি হয়ে যায়। আমলকি ডিটক্সিফিকেশনের মাধ্যমে ওজনকে বাড়তে দেয় না।

৪. হজম শক্তি বৃদ্ধি

শীতকালে হজমের গন্ডগোল লেগেই থাকে। আমলকি বিপাক ক্রিয়াকে উন্নত করে, হজমশক্তিকে বাড়িয়ে তুলতে সাহায্য করে।

৫. ডায়াবেটিস

আমলকিতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি থাকায় শরীরে ‘অক্সিডেটিভ স্ট্রেস’ এর মাত্রাকে কমায়। ফলে রক্তে শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে থাকে।

এছাড়া চুল পড়া নিয়ন্ত্রণে আমলকি বেশ কার্যকর। কয়েক টুকরো শুকনো আমলকি নিয়ে পানিতে সিদ্ধ করুন। পুরোপুরি সিদ্ধ হয়ে গেলে এগুলো ম্যাশ করুন এবং একটি পাল্পি পেস্ট তৈরি করুন। এই মিশ্রণটি মাথার ত্বকের পাশাপাশি চুলের গায়েও প্রয়োগ করতে পারেন। প্রতি সপ্তাহে অন্তত একবার ব্যবহার করুন। এটি চুল পড়া নিয়ন্ত্রণ করে।

চুলে কাঁচা আমলকির রস ব্যবহার করলে আধা ঘন্টা পরে ধুয়ে ফেলুন। পাতলা এবং শুকনো চুল এড়াতে নিয়মিত চুল ধুয়ে নেওয়ার আগে আমলকির তেল ব্যবহার করতে পারেন। আমলকির তেল চুলের দুর্দান্ত কন্ডিশনার। এটি চুলকে প্রাকৃতিক চকচকে ভাব এনে দেয়।

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার