শিরোনামহীন অভিমানী

image
image

তুমি আমার আগমনী বৈশাখের ঝড়ো হাওয়া
বৈশাখী প্রকৃতির ফুলেল উৎসব।

বহু প্রতীক্ষিত কয়েক ফোঁটা জলের আস্বাদ
লন্ডভন্ড প্রকৃতির শান্ত বিকেল।

তুমি আমার জৈষ্ঠ্যের মধুমাসের
ভিন্ন স্বাদে গন্ধে ভরপুর সুমিষ্ট ফল।
তুমি আমার আষাঢ়ের যৌবনবতী নদীর,
উপসে পড়া জলের ধারা।

অবিরাম বর্ষণে সদ্য ফোটা কদম ফুল।
তুমি আমার শ্রাবনের কাশফুলের ঘন বন-
যেখানে মন হারায় বার বার কল্পনায়।

তুমি আমার ভাদ্রের পূর্নিমা রাতে
ভরা চাঁদের পরিপূর্ন জোসনা।

যে জোসনায় ঘা ভাসিয়ে একসাথে চলা যায় দীর্ঘপথ।
তুমি আমার আশ্বিনের প্রভাতী শিশির,
স্বচ্ছ শিশির সিক্ত অপার্থিব প্রফুল্লতা ও সজীবতা।

মরা নদীর শুকিয়ে যাওয়া ধারা
যে ধারা প্রতি মূহুর্তে মনে করিয়ে দেয়,
সবুজ শ্যামল বাংলার চির যৌবনা রূপ।

যে রূপের টানে মন ছুটে যায় চির সবুজ বাংলায়।
তুমি আমার কার্তিকের ফসল ভরা মাঠ,
কৃষকের মুখের হাসি।
শীত শীত অনুভূতি।

শিশিরের টুপটাপ শব্দের সাথে
ঝরে পড়া শিউলি ফুলের সুবাস;
কাঁচা রোদে ঘাসের ডগায় আলোর ঝলকানি।

তুমি আমার অগ্রহায়নের সূর্য ডুবার মুহূর্ত;
প্রবাসী বিরহী আত্মার হৃদয়ের স্পর্শ,
কুয়াশার চাঁদরে ঢাকা মাতোয়ারা নবান্ন উৎসব।

তুমি আমার পৌষের রাতের বেদনাবিধূর শেষ প্রহর।
‘প্রাকৃতিক শরবত' খ্যাত সুমিষ্টি খেজুর রসের আমোদন।

ভোরের মিঠে রোদে পিঠ ঠেকানো লোভনীয় দেয়াল।
লাউয়ের লকলকে ডগার ওপর মুগ্ধ শিশির কণা।

তুমি আমার মাঘ মাসের শুক্লা দ্বাদশীর ভরা পূর্ণিমা।
লাল বেনারশি পরা গ্রাম্য বধূর অপরূপা নারীর প্রতিচ্ছবি।

তুমি আমার ফাল্গুনের কোকিল কন্ঠী গায়িকা,
নতুন সাজে সজ্জিত ঝলমলে বাংলার চির সবুজ প্রকৃতি।
তুমি আমার চৈত্রের খরতাপে শীতল বৃষ্টি।
তারায় ভরা রাত।

তুমি আমার সত্য সুন্দরের আলোয় আলোকিত শিখা।
তুমি আমার অন্ধকারের কালিমায় চাপা পড়ে যাওয়া হৃদয়ের সৌন্দর্য।
তুমি আমার শুভ্র আকাশ আর দিগন্ত বিস্তৃত সবুজ মাঠ।
তুমি আমার সত্য সুন্দরের রোদ্দুরে আলোয় আলোকিত সমাজ।

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার