শিক্ষকদের হয়রানি করলে সভাপতি-কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা

Img

এমপিওভুক্তিতে শিক্ষকদের ভোগান্তি কমাতে নতুন উদ্যোগ নিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এখন থেকে এমপিওভুক্ত হতে শিক্ষকদের হয়রানি করলে সভাপতি বা মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। কোন যৌক্তিক কারণ ছাড়া শিক্ষকদের হয়রানি করলে সভাপতির পদ শূন্য ঘোষণা করা হবে। আর এমপিওর আবেদন অগ্রায়নে দেরি করলে মাঠ পর্যায়ের শিক্ষা কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

বৃহস্পতিবার (৩ সেপ্টেম্বর) এ তথ্য জানিয়ে আদেশ জারি করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ। 

আদেশে বলা হয়েছে, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ও আঞ্চলিক পরিচালক পরিচালকদের সর্বোচ্চ পাঁচ কার্যদিবসের মধ্যে শিক্ষকদের এমপিও আবেদন অগ্রায়ন বা নিষ্পত্তি করতে হবে। এর থেকে দেরি করলে যৌক্তিক কারণ থাকতে হবে। কোন অনৈতিক সম্পৃক্ততায় এমপিও আবেদন অগ্রায়নে দীর্ঘসূত্রিতার প্রমাণ পেলে মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আদেশে আরও বলা হয়, এমপিওর আবেদন করতে শিক্ষকদের কাগজপত্র সরবরাহ বা স্বাক্ষর করতে অনৈতিক সম্পৃক্ততা থাকলে বা অযৌক্তিক কারণে দেরি করলে প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজিং কমিটি বা গভর্নিং বডির সভাপতিকে অব্যাহতি দিয়ে তার পদ শূন্য ঘোষণা করা হবে। একইসাথে সভাপতির বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এ বিষয়ে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মোমিনুর রশিদ আমিন বলেন, মাঠ পর্যায় থেকে এমপিওভুক্তির আবেদন নিয়ে শিক্ষকদের হয়রানি করার অনেক অভিযোগ আছে। অনেক সময় সভাপতি আবেদন করতে সংশ্লিষ্ট কাগজপত্র দিতে শিক্ষকদের হয়রানি করে থাকেন। এ বাবদ টাকাও দাবি করা হয়। আবার মাঠ পর্যায়ে থেকেও শিক্ষকদের এমপিও আবেদন অগ্রায়ন নিষ্পত্তির ক্ষেত্রে দীর্ঘসূত্রিতা দেখা যায়। এ জটিলতা নিরসনে আদেশ জারি করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে যৌক্তিক কারণ ছাড়া শিক্ষকদের এমপিও আবেদন অগ্রায়ন না করলে মাঠ পর্যায়ের শিক্ষা কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। আর কোন অনৈতিক সম্পৃক্ততায় সভাপতি যদি শিক্ষকদের এমপিও আবেদন করতে যথাযথ কারণ সরবরাহ করতে দেরি করেন বা হয়রানি করেন তাহলে তার পদ শূন্য ঘোষণা করা হবে। একইসাথে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার