শাহ আমানতে যাত্রীবাহী গাড়ী থেকে ৬৪ স্বর্ণের বার উদ্ধার

Img

চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অভ্যন্তরীণ যাত্রীবাহী বাস থেকে পরিত্যক্ত অবস্থায় ৬৪টি স্বর্ণের বার উদ্ধার করেছে কর্তৃপক্ষ। 

উদ্ধারকৃত স্বর্ণের ওজন সাড়ে ৭ কেজি। যার আনুমানিক মূল্য ৩ কোটি ২০ লক্ষ টাকা। 

আজ বৃহস্পতিবার (২৫জুলাই) সকাল ৮টার দিকে পরিত্যক্ত অবস্থায় এই স্বর্ণের বারগুলো উদ্ধার করা হয়। 

বিষয়টি নিশ্চিত করে বিমান বন্দরের সহকারি ম্যানেজার খাইরুল কবির বলেন, যাত্রীদের অভ্যন্তরীণ চলাচলের একটি বাস থেকে পরিত্যক্ত অবস্থায় স্বর্ণের বারগুলো উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় কাউকে আটক করা যায়নি। তদন্ত চলছে।

পূর্ববর্তী সংবাদ

চট্টগ্রামের বাকলিয়ায় ভোটগ্রহণ চলছে, বহিরাগত সন্দেহে আটক ৪৬

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের ১৭ নম্বর পশ্চিম বাকলিয়া ওয়ার্ডে উপনির্বাচনের ভোটগ্রহণ চলছে। সম্পূর্ণ ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) অনুষ্ঠিত হচ্ছে এই উপনির্বাচন।

বৃহস্পতিবার (২৫ জুলাই) সকাল ৮টা থেকে শুরু হওয়া ভোটগ্রহণ চলবে বিকেল ৪টা পর্যন্ত।

এদিকে, ভোট শুরুর ১৫ মিনিট আগে বহিরাগত সন্দেহে ৪৬ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (২৫ জুলাই) সকাল পৌনে আটটার দিকে শাহ আমানত সেতুর উত্তর পাড়ে দুইটি বাস থেকে ৪৬ জনকে আটক করা হয়।

আটক ৪৬ জন।

সূত্রে জানা যায়, বাসভর্তি এসব লোকজনকে পটিয়া ও চন্দনাইশ উপজেলা থেকে আনা হচ্ছিল। তারা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সম্পাদক ও কাউন্সিলর প্রার্থী মাসুদ করিম টিটুর পক্ষে ভোটকেন্দ্র দখল করতে আসছিল।

বাকলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. নেজাম উদ্দিন বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে নতুন ব্রিজ (শাহ আমানত সেতু) এলাকা থেকে দুই বাস ভর্তি ৪৬ জনকে আটক করা হয়েছে। তবে তাদের দেখে বোঝা যাচ্ছে পশ্চিম বাকলিয়া উপ-নির্বাচনে প্রভাব খাটানো ও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির জন্যই তাদের আনা হচ্ছিল। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। ভোটগ্রহণ শেষে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। 

তিনি আরও বলেন, এখনও পর্যন্ত নির্বাচন সুষ্ঠুভাবেই হচ্ছে। আমরাও তৎপর ও নজরদারি রেখেছি যাতে কোনো ধরনের অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা না ঘটে।

নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা যায়, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের ১৭ নম্বর পশ্চিম বাকলিয়া ওয়ার্ডে মোট ভোটার সংখ্যা রয়েছে ৪৯ হাজার ৮২৫ জন। এর মধ্যে ২৩ হাজার ৭৪৮ জন পুরুষ এবং ২৬ হাজার ৭৭ জন রয়েছে মহিলা ভোটার। এ ওয়ার্ডে মোট ১৭টি ভোট কেন্দ্রে ভোট কক্ষ আছে ২২৪টি। ওয়ার্ডের ১৭টি ভোট কেন্দ্রকেই অতি গুরুত্বপূর্ণ (ঝুঁকিপূর্ণ) ঘোষণা করায় ব্যাপক প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।

আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটানিং কর্মকর্তা মুহাম্মদ হাসানুজ্জামান বলেন, নির্বাচন কমিশনের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। ভোটাররা যাতে সহজে ভোট দিতে পারেন, সে ব্যবস্থা করা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, সব কেন্দ্র গুরুত্বপূর্ণ (ঝুঁকিপূর্ণ) ঘোষণা করা হয়েছে। এসব কেন্দ্রে দু’জন করে পুলিশ সদস্য ও ১২ জন করে আনসার সদস্য দায়িত্বে আছেন। পাশাপাশি নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, র্যাব-পুলিশের একাধিক টিম নির্বাচনী এলাকায় টহলে আছে। ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রগুলো প্রশাসনের নজরদারিতে রয়েছে।

উল্লেখ্য, ১৭ এপ্রিল বাকলিয়া ১৭ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর একেএম জাফরুল হক মারা যাওয়ায় গত ১২ জুন ওই ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদটি শূন্য ঘোষণা করে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়। এরপর নির্বাচন কমিশন ২৫ জুলাই এ ওয়ার্ডে উপ নির্বাচনের তফশিল ঘোষণা করে। 

এখানে বিএনপির সমর্থন নিয়ে মিষ্টি কুমড়া প্রতীকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন সাবেক কাউন্সিলর মরহুম একেএম জাফরুল ইসলামের পুত্র একেএম আরিফুল ইসলাম ডিউক। আর আওয়ামী লীগ থেকে সরাসরি সমর্থন না পেলেও নিজ নিজ অনুসারী নেতাদের নিয়ে মাঠে আছেন পাঁচ প্রার্থী। 

রেডিও প্রতীক নিয়ে লড়ছেন মাসুদ করিম টিটু। তিনি চট্টগ্রাম সরকারি সিটি কলেজ ছাত্র সংসদের সাবেক ভিপি ও পশ্চিম বাকলিয়া ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক। 

ঘুড়ি প্রতীক নিয়ে লড়ছেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের উপ-প্রচার সম্পাদক শহিদুল আলম। তিনি এর আগেও ওই ওয়ার্ড থেকে তিনবার কাউন্সিলর পদে নির্বাচিত হয়েছিলেন। 

এছাড়া ভোটের মাঠে রয়েছেন লাটিম প্রতীকে ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ নেতা মোহাম্মদ শফি, টিফিন ক্যারিয়ার প্রতীক নিয়ে লড়ছেন নগর যুবলীগের সাবেক সহ- সাংস্কৃতিক সম্পাদক শাহেদুল ইসলাম শাহেদ, ওয়ার্ড যুবলীগ নেতা শেখ নাঈম উদ্দীন লড়ছেন ঠেলাগাড়ি প্রতীক নিয়ে।

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার