লকডাউনেও রোববার থেকে সীমিত পরিসরে খোলা থাকবে ব্যাংক

Img
ফাইল ছবি

আগামীকাল (২৩ জুলাই) থেকে ফের শুরু হচ্ছে কঠোর লকডাউন, চলবে ৫ আগস্ট পর্যন্ত। এর মাঝে শুক্র-শনি সরকারি ছুটি থাকায় রোববার ২৫ জুলাই থেকে ব্যাংক খোলা থাকবে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্দেশনা অনুযায়ী, করোনা পরিস্থিতি বিবেচনায় সাপ্তাহিক ছুটির দিন ব্যতীত ২৫ জুলাই থেকে ৫ আগস্ট পর্যন্ত বিধিনিষেধ চলাকালে সীমিত পরিসরে খোলা থাকবে ব্যাংক। রোববার থেকে প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে দুপুর দেড়টা পর্যন্ত ব্যাংকে লেনদেন হবে। লেনদেন পরবর্তী আনুষঙ্গিক কার্যক্রম শেষ করার জন্য বেলা ৩টা পর্যন্ত ব্যাংক খোলা থাকবে।

নির্দেশনা অনুযায়ী, মাস্ক পরিধানসহ স্বাস্থ্যবিধি কঠোরভাবে পরিপালন করে সীমিত সংখ্যক লোকবলের মাধ্যমে ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ের অত্যাবশ্যকীয় বিভাগসহ ব্যাংক স্বীয় বিবেচনায় প্রয়োজনীয় সংখ্যক শাখা খোলা রাখতে পারবে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সার্কুলারে বলা হয়, কঠোর লকডাউন চলাকালে প্রতিটি ব্যাংকের প্রধান শাখা, সব বৈদেশিক বাণিজ্য শাখা এবং জেলা ও উপজেলা সদরে একটি করে শাখা খোলা রাখতে হবে।

পূর্ববর্তী সংবাদ

বরিশালে করোনা আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে ১৪ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ১৪৯

বরিশাল বিভাগে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ১৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। এরমধ্যে শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসাপাতালের করোনার আইসোলেশন ওয়ার্ডে উপসর্গ নিয়ে ৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া ব‌রিশা‌লে একজন, পটুয়াখালীতে একজন, ভোলায় একজন, পিরোজপুরে দুজন এবং বরগুনায় তিনজনসহ মোট ৮ জন করোনা রোগীর মৃত্যু শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে বরিশাল বিভাগে করোনায় মোট মৃত্যুর সংখ্যা ৪০৭ জনে দাঁড়িয়েছে বলে জানিয়েছেন জানিয়েছেন বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ডা. বাসুদেব কুমার দাস।

একই সময় বরিশাল বিভাগে নতুন করে ১৪৯ জন করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছেন। বিভাগে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২৭ হাজার ৮১২ জনে।

বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ডা. বাসুদেব কুমার দাস জানান, মোট আক্রান্ত ২৭ হাজার ৮১২ জনের মধ্যে এখন পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১৭ হাজার ৪৩৮ জন। আক্রান্তের সংখ্যায় বরিশাল জেলায় নতুন ৯৭ জন নিয়ে মোট ১১ হাজার ৮৪৪ জন, পটুয়াখালী জেলায় নতুন দুজন নিয়ে মোট ৩ হাজার ৪৩৪ জন, ভোলা জেলায় নতুন ২০ জন নিয়ে মোট ২ হাজার ৭৭৭ জন, পিরোজপুর জেলায় নতুন ২১ জন নিয়ে মোট ৩ হাজার ৮৪৬ জন, বরগুনা জেলায় নতুন ৯ জন নিয়ে মোট আক্রান্ত ২ হাজার ৩৮৩ জন এবং ঝালকাঠি জেলায় নতুন শনাক্ত না থাকায় মোট শনা‌ক্তের সংখ্যা ৩ হাজার ৫২৮ জন।

শেবাচিম হাসপাতালের পরিচালকের দপ্তর সূত্রে জানা গেছে, গত ২৪ ঘণ্টায় (বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত) শেবাচিমের করোনার আইসোলেশন ওয়ার্ডে ১৮ জন ও করোনা ওয়ার্ডে ১৬ জন ভর্তি হয়েছেন। করোনা ও আইসোলেশন ওয়ার্ডে এখন ২৬৬ জন চিকিৎসাধীন। এদের মধ্যে ১৬৬ জন করোনা ওয়ার্ডে এবং ১০০ জন আইসোলেশন ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

আরটি পিসিআর ল্যাবে মোট ১৮৮ জন করোনা পরীক্ষা করান। এরমধ্যে শনাক্তের হার ৫২.৬৫।

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার