যে খাবারগুলি লোহিত রক্তকণিকা বাড়াতে সাহায্য করে

Img

আপনি কি দুর্বল অনুভব করেন? একটুতেই ক্লান্ত হয়ে যান? এখন থেকেই সাবধান হন। এগুলো সব রক্তাল্পতার সাধারণ লক্ষণ। যাকে ডাক্তারি পরিভাষায় বলে অ্যানিমিয়া।

লোহিত রক্তকণিকা কী?

লোহিত রক্তকণিকা আমাদের রক্তের সাধারণ কোষ। প্রতিদিন আমাদের দেহ কোটি কোটি লোহিত রক্তকণিকা তৈরি করে। লোহিত রক্তকণিকা তৈরি হওয়ার পর সেটি অস্থি মজ্জা উৎপাদন করে এবং ১২০ দিন শরীরে চলাচল করে। তারপর লিভারে পৌঁছায়। সেখানে তাদের সেলুলার উপাদানগুলি পুনর্ব্যবহার করা হয়। আমাদের দেহে এই লোহিত রক্তকণিকা ঠিকমতো তৈরি না হলে হাজার রোগ দেখা দিতে পারে। বিভিন্ন কারণে লোহিত রক্তকণিকা কমে যেতে পারে, সেক্ষেত্রে কী করবেন জেনে নিন এই প্রতিবেদনে। বাড়িতে শুধুমাত্র ঠিকমতো খাওয়া-দাওয়া করলেই লোহিত রক্তকণিকা বেড়ে যেতে পারে। যে পাঁচটি উপাদান লোহিত রক্তকণিকা বাড়াতে সাহায্য করবে সেগুলি হল আয়রন, ফলিক অ্যাসিড, ভিটামিন বি-১২, কপার এবং ভিটামিন-এ।

আয়রন সমৃদ্ধ খাবার

শরীরে লোহিত রক্তকণিকা তৈরির জন্য আয়রন সমৃদ্ধ খাবার খাওয়া প্রয়োজন। লোহিত রক্তকণিকা তৈরিতে লাল মাংস, বিশেষ করে কলিজা, সবুজ শাকসবজি যেমন - পালং শাক, ড্রায়েড ফ্রুটস যেমন কিসমিস, বিনস, ডিমের কুসুম, ইত্যাদি খান। এগুলো প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় রাখলে আপনার শরীরে রক্ত বৃদ্ধিতে সাহায্য করবে।

ফলিক অ্যাসিড

ফলিক অ্যাসিডও লোহিত রক্ত কণিকা উৎপন্ন করতে সাহায্য করে। যেসব খাবারে ফলিক অ্যাসিড পাওয়া যায় সেগুলি হল - খাদ্যশস্য, সবুজ শাকসবজি, বিনস, কড়াইশুঁটি, বাদাম।

ভিটামিন বি-১২

ভিটামিন ১২ সমৃদ্ধ খাবার লোহিত রক্ত কণিকা উৎপন্ন করতে সাহায্য করে। ভিটামিন বি-১২ আছে এমন খাবারগুলি হল - মাছ, খাসি বা গরুর মাংস, ডিম, দুগ্ধ জাতীয় খাবার।

কপার

কপারযুক্ত খাবার খেলে লোহিত রক্ত কণিকা তৈরি হয় না। তবে কপার লোহিত রক্ত কণিকাকে সাহায্য করে আয়রন সংগ্রহে। ডিম, লিভার, বিনস, চেরি, বাদামে রয়েছে কপার।

ভিটামিন এ

লোহিত রক্ত কণিকা তৈরি করতে সাহায্য করে ভিটামিন এ। ভিটামিন-এ সমৃদ্ধ খাবার হল - সবুজ শাকসবজি, মিষ্টি আলু, গাজর, তরমুজ, আঙুরের মতো রসালো ফল।

 

বেশ কিছু সাপ্লিমেন্টও লোহিত রক্ত কণিকা বাড়াতে সাহায্য করে

আয়রন : আয়রনের ঘাটতি লোহিত রক্ত কণিকা কমে যাওয়ার বড় কারণ। একজন মহিলার শরীরে প্রতিদিন ১৮ এমজি আয়রন প্রয়োজন। একজন প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষের শরীরে ৮ এমজি আয়রন হলে চলে যায়।

ভিটামিন সি : আয়রন সংগ্রহে দেহকে সাহায্য করে ভিটামিন সি। একজন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের দেহে প্রতিদিন ৫০০ এমজি করে ভিটামিন সি-র প্রয়োজন হয়।

কপার : লোহিত রক্ত কণিকার ঘাটতির কারণ হতে পারে কপারও। একজন মহিলার শরীরে প্রতিদিন ১৮ এমজি কপার দরকার, পুরুষদের ক্ষেত্রে সেই পরিমাণ ৮ এমজি।

ভিটামিন এ : একজন মহিলার প্রতিদিন ৭০০ এমসিজি ভিটামিন এ-র প্রয়োজন। পুরুষদের ক্ষেত্রে সেটা বেশি। ৯০০ এমসিজি ভিটামিন-এ দরকার একজন পুরুষের শরীরে।

ভিটামিন বি-১২ : ১৪ বছর বয়স থেকে প্রতিটি মানুষের শরীরে ২.৪ এমসিজি ভিটামিন বি-১২ দরকার। অন্তঃসত্ত্বাদের জন্য ২.৬ এমসিজি।

ফলিক অ্যাসিড : একজন মানুষের শরীরে প্রতিদিন ১০০-২৫০ এমসিজি ফলিক অ্যাসিড প্রয়োজন। অন্তঃসত্ত্বাদের দরকার ৬০০ এমসিজি।

ভিটামিন বি ৬ : মহিলাদের শরীরে দরকার ১.৫ এমজি ভিটামিন বি-৬, পুরুষদের ক্ষেত্রে সেই পরিমাণ ১.৭ এমজি।

ভিটামিন ই : প্রাপ্তবয়স্কের শরীরে ১৫ এমজি ভিটামিন-ই প্রতিদিন দরকার হয়। কারুর শরীরে কোনো উপাদানের অভাব থাকলে চিকিৎসক ওষুধের মাধ্যমে ঘাটতি পূরণ করান। তবে শুধু খাওয়া বা ওষুধ নয়, জীবনযাত্রার একটু বদল ঘটালেও লোহিত রক্ত কণিকার সমস্যা মিটতে পারে।

জীবনযাত্রার পরিবর্তন, মদ্যপান থেকে বিরত থাকুন, প্রতিদিন শরীরচর্চা করা দরকার সুস্থ থাকতে গেলে, এগুলো মেনে চললেই লোহিত রক্তকণিকার সমস্যা মিটবে।
 

- সূত্র: বোল্ডস্কাই
প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার