মুক্তি পেল টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের থিম সং

Img

আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের অফিসিয়াল থিম সং ‘লাইভ দ্যা গেম’ মুক্তি পেয়েছে। আইসিসির ওয়েবসাইট ও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলোতে বৃহস্পতিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) একযোগে প্রকাশ করা হয় টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সপ্তম আসরের জন্য তৈরি করা গানটি।

থিম সংয়ের ক্যাম্পেইন ফিল্মে দেখা যাবে ভারতীয় অধিনায়ক বিরাট কোহলি, ক্যারিবীয় অধিনায়ক কাইরন পোলার্ড, আফগানিস্তানের স্পিনার রশিদ খান ও অস্ট্রেলিয়ার অলরাউন্ডার গ্লেম ম্যাক্সওয়েলের এনিমেটেড চেহারা।

সমর্থকরা কীভাবে তাদের প্রিয় খেলোয়াড়ের সাক্ষাৎ পাচ্ছেন, তাদের সাথে খেলছেন, ক্রিকেট-উল্লাসে মেতে উঠছেন- তা-ই দেখানো হয়েছে থিম সংয়ের ভিডিওতে। বর্ণিল ভিডিওর সাথে থিম সংয়ে ব্যবহার করা হয়েছে বিভিন্ন ধরনের বাদ্যযন্ত্র, যা ক্রিকেট-প্রেমীদের মধ্যে তৈরি করবে বিশ্বকাপের উন্মাদনা।

- সূত্র: বিডিক্রিকটাইম
পূর্ববর্তী সংবাদ

আসল না নকল: ঘরে বসেই চেক করুন মালয়েশিয়ার ভিসা

ভিসা কী

ভিসা একটি অনুমতি পত্র যা একটি দেশ কোন বিদেশী নাগরিককে ঐ দেশে প্রবেশ ও অবস্থানের জন্য দিয়ে থাকে। ভিসা ছাড়া ভিন দেশে প্রবেশ ও অবস্থান অবৈধ অভিবাসন হিসাবে পরিগণিত। সাধারণত পাসপোট বা ট্রাভেল পারমিটের কোন একটি পাতায় লিখে, সীল দিয়ে বা স্টিকার লাগিয়ে ভিসা প্রদান করা হয়। দেশের বিদেশস্থ দূতাবাসগুলি ভিসা দিয়ে থাকে।

দ্বি-পাক্ষিক চুক্তির ভিত্তিতে "ভিসা ওয়েভার‍" নীতি থাকতে পারে যে ক্ষেত্রে দুটি দেশ পরস্পরের জন্য ভিসা প্রথা স্থগিত রাখতে পারে। যেমন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ব্রিটেনের মধ্যে ভিসা ওয়েভার চুক্তি থাকায় এই দুই দেশের নাগরিক ভিসা ব্যতিরেকেই এক দেশ থেকে অন্য দেশে ভ্রমণ করতে পারে। আবার বিশেষ কোন চুক্তির আওতায় একগুচ্ছ দেশ নিজেদের মধ্যে ভিসা প্রথা অবলোপন করতে পারে। যেমন শেনঝেন চুক্তির আওতায় ইউরোপীয় ইউনিয়ন ভুক্ত ২২টি দেশের নাগরিক ভিসা ব্যতিরেকে এক দেশ থেকে অন্য দেশে চলাচল করতে পারে। 

এই ২২টি দেশ "শেনঝেন‍ এলাকা" নামে পরিচিত। "শেনঝেন‍ এলাকার" বাইরে অবস্থিত কোন দেশের নাগরিক "শেনঝেন ভিসা" নিয়ে ঐ ২২টি দেশের যে কোনটিতে প্রবেশ করতে পারবে এবং একবার প্রবেশের পর শেনঝেন এলাকার অপরাপর দেশসমূহেও ভ্রমণ করতে পারবেন। 

২০০৮ সাল থেকে শেনঝেন ভিসা নিয়ে সুইজারল্যান্ডে প্রবেশের চুক্তি কার্যকর হয়েছে। একইভাবে সুইজারল্যান্ডের ভিসা নিয়ে শেনঝেন এলাকাভুক্ত কোন দেশে প্রবেশ করা যায়। ভারত, নেপাল এই দুই দেশের পরস্পর চুক্তি থাকায় ভিসা ছাড়াই এই দেশের নাগরিকেরা এই তিনটি দেশে মুক্তভাবে প্রবেশ ও থাকার সুবিধা পেয়েছে। কিন্তু অন্য দেশ থেকে এই তিনটি দেশে প্রবেশ করার জন্য ভিসার প্রয়োজন।

ভিসার মেয়াদ

ভিসা একটি নির্দিষ্ট মেয়াদের জন্য দেয়া হয়। প্রথমত: ভিসা প্রদানের পর সর্বশেষ কোন তারিখের মধ্যে ঐ দেশে প্রবেশ করা যাবে তা ভিসায় উল্লেখ থাকে। অপর দিকে বৈধ পদ্ধতিতে ভিসা নিয়ে প্রবেশের পর কত দিন পর্যন্ত বিদেশে অবস্থান করা যাবে তার মেয়াদও ভিসায় উল্লিখিত থাকে। এছাড়া একটি ভিসা একবার প্রবেশ, দুই বার প্রবেশ বা বহুবার প্রবেশের জন্যও দেয়া হতে পারে।

জাল ভিসা চেনার উপায়

অ্যাম্বাসি:

আপনি যে দেশে যেতে চান ওই দেশের অ্যাম্বাসিতে পরামর্শ নিতে পারেন। প্রত্যেক দেশের অ্যাম্বাসিতে পরামর্শ ডেস্ক রয়েছে। সেখানে গিয়ে আপনি পরামর্শ নিতে পারেন। তারা আপনাকে কখনোই ভুল তথ্য দেবেন না। এছাড়া সম্ভব হলে সরাসরি কোনো প্রতিষ্ঠান ভিজিট করুন। প্রধান কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলুন।

ভিসা কনসাল্টিং ফার্ম:

ভিসার জন্য অনেক কনসাল্টিং ফার্ম আছে। ভালো একটি ভিসা কনসাল্টিং ফার্ম খুঁজে বের করতে হবে।তবে যতদূর সম্ভব দালাল থেকে দূরে থাকা।এছাড়া ভ্রাম্যমাণ কোনো অফিস বা ব্যক্তি বা ভারচুয়াল কোনো ব্যক্তি থেকে দূরে থাকুন।

ইলেকট্রনিক ভিসা:

ইলেকট্রনিক ভিসার মাধ্যমে আপনি প্রতারিত হতে পারেন। ইলেকট্রনিক ভিসা বাংলাদেশি পাসপোর্ট হোল্ডারদের জন্য প্রযোজ্য নয়।

ভিসা তথ্যের জন্য ওয়েবসাইট:

সব দেশের ভিসা তথ্যের জন্য ওয়েবসাইট রয়েছে। এসব ওয়েবসাইট থেকে আপনি বিস্তারিত তথ্য জানতে পারবেন। ভিসা আবেদনের জন্য সব প্রয়োজনীয় তথ্য ও আবেদনের ফর্ম দেয়া আছে।

সাবধানের মার নেই

আমাদের দেশ হতে প্রতিদিন অসংখ্য লোক বিদেশে ওয়ার্কপারমিট নিয়ে চাকুরিতে যাচ্ছে। যারা বিদেশে চাকুরী নিয়ে যাচ্ছেন তার বিরাট একটা অংশ গ্রামের। গ্রামের নিরিহ মানুষের প্রযুক্তি সম্পর্কে ধারণা কম থাকায় সুযোগ নিচ্ছে আমাদের দেশেরই কিছু অসাধু আদম ব্যবসায়ী। 

এই দু’দিন আগের কথা আমার পাশের বাড়ির একটা ছেলে নিজের ভিটে মাটি বিক্রি করে দালালের হাতে তুলে দেয় সাড়ে পাঁচলক্ষ টাকা সাইপ্রাস নিবে বলে। বেচারাকে অপরিচিত এক জায়গায় নিয়ে ছেড়ে দিয়েছে। 

এমনি করে প্রতিদিন কত মানুষ প্রতারণার শিকার হচ্ছে তার কোন হিসাব নেই। আজ আমি আপনাদের ষ্টেপ বাই ষ্টেপ দেখাব কিভাবে মালয়েশিয়ার ভিসা চেক কারতে হয়।

মালোশিয়ার ভিসা চেক করার পদ্ধতিকা

রো সহযোগিতা ছাড়া নিজেই পারবেন মালয়েশিয়ার প্রফেশনাল ভিসা চেক করতে। প্রথমে নিচের লিংকে প্রবেশ করতে হবে।

#মালোশিয়ার ভিসা চেক করতে-www.mohr.gov.my

#তারপর নিচের চিত্র অনুসারে পার্সপোট নাম্বার দিয়ে ন্যাশনালিটিতে বাংলাদেশ সিলেক্ট করে সাবমিট বাটনে ক্লিক করুন এবং প্রিন্ট করুন।

১ নং চিত্র

​​​​


#উদাহরন হিসাবে BA0977176 এই পাসপোর্ট নাম্বারটি দিয়ে ২নং চিত্র অনুযায়ী ভিসা যাচাই করতে চেষ্টা করতে হবে।

​​​​​​

 

 

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার