মালয়েশিয়ায় নেপালের বদলে পাকিস্তান থেকে দেড় লাখ সিকিউরিটি নিয়োগের খবর উড়িয়ে দিলেন সেদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। এদিকে বাংলাদেশ থেকে শ্রমিক নিতে চলতি মাসে আসতে পারে চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত।

পাকিস্তান থেকে দেড় লাখ সিকিউরিটি নিয়োগের খবরে ব্যাপক আলোচনা শুরু হয় মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার ঘিরে। মালয়েশিয়ায় অবস্থানরত বাংলাদেশী এজেন্টের খাওয়া ঘুম হারাম হয়ে যায়। তাহলে কি বাংলাদেশ ও নেপালকে পাশ কাটিয়ে পাকিস্তানের দিকে যাচ্ছে।

এমন আলোচনার মধ্যে সেদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর ঘোষণায় কিছুটা স্বস্তি ফিরে এসেছে বাংলাদেশী এজেন্ট এর মাঝে। এখন অপেক্ষার পালা চলতি মাসের শেষ দিকে মালয়েশিয়ার মানবসম্পদ মন্ত্রণালয়ের নেতৃত্বে যৌথ ওয়ার্কিং গ্রুপ বাংলাদেশের প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রীর সাথে শ্রমবাজারের চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত আসতে পারে বলে সূত্রে জানিয়েছে। 

মালয়েশিয়ার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তান শ্রী মহিউদ্দিন ইয়াছিন বলেন, নেপালই একমাত্র বিদেশি, যারা নিরাপত্তা প্রহরী হিসাবে নিযুক্ত হতে পারে।
মালয়েশিয়ায় পাকিস্তানি নাগরিকদের নিরাপত্তা প্রহরী হিসাবে নিযুক্ত করতে পারে বলে পাকিস্তানের  একটি দৈনিকে প্রতিবেদনের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।
মন্ত্রী আরো যোগ করেছে যে, এটি বেসরকারী সুরক্ষা পরিষেবা সংস্থাগুলিকে স্থানীয়দের এই কাজের জন্য নিয়োগ করতে উত্সাহ দেয়।
বুধবার (১২ ফেব্রুয়ারি) এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, "পুলিশ ও মালয়েশিয়া সিকিউরিটি সার্ভিস ইন্ডাস্ট্রি অ্যাসোসিয়েশনের সহযোগিতায় স্থানীয় নিরাপত্তা রক্ষীদের তাদের সেবা উন্নত করতে প্রশিক্ষণ কর্মসূচী নিয়েছে মন্ত্রণালয়।

ইতিমধ্যেই ১ লাখ ২হাজার ৭শত ৬৭ জন স্থানীয় নাগরিকরা প্রশিক্ষণ কর্মসূচিতে অংশ নিয়েছে। যার মধ্যে থেকে নিয়োগ প্রদান এবং  নিযুক্ত ব্যক্তিরা মন্ত্রনালয়ের দ্বারা নির্ধারিত শর্ত ও মানদণ্ড পূরণ করবে।

পাকিস্তানের সংবাদমাধ্যম দ্য নেশন জানিয়েছে যে মালয়েশিয়া পাকিস্তান থেকে এক লাখ থেকে দেড় লক্ষ নিরাপত্তারক্ষী গ্রহণ করবে।
প্রতিবেদনে মালয়েশিয়ার পাকিস্তানের হাইকমিশনেেের বরাত দিয়ে প্রতিবেদনে বলা হয়, মালয়েশিয়া ইসলামাবাদের সাথে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করেছে।

এদিকে মালয়েশিয়ান এমপ্লয়ার্স ফেডারেশন বলেন, বিদেশীদের নিয়োগের পরিবর্তে মালয়েশিয়ানদের চাকরিতে আকৃষ্ট করতে সুরক্ষা প্রহরীদের কাজ ও কার্যাদি পুনরায় ব্র্যান্ড করার জন্য সরকারকে দায়িত্ব পালন করতে হবে ।
 গত বছর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তান শ্রী মুহিউদ্দিন ইয়াসিন বলেছিলেন, বিদেশিদের নিরাপত্তা প্রহরী হিসাবে নিয়োগ দেওয়ার নীতি কেবল সাময়িক ব্যবস্থা ছিল।
তিনি সুরক্ষা সংস্থাগুলিকে বিদেশী কর্মীদের উপর নির্ভরশীল না হওয়ার পরিবর্তে স্থানীয়দের কাজ করার জন্য আকৃষ্ট করতে বলেছিলেন। এদিকে মালয়েশিয়ার অর্থনৈতিক চাকা সচল রাখতে পাকিস্তান আরো বেশি সয়াবিন তেল আমদানি করবে বলে ঘোষণা দেন।

যে কারণে মালয়েশিয়া তলে তলে পাকিস্তান থেকে শ্রমিক নেওয়ার ব্যাপারে ইতিবাচক বলে জানান নাম প্রকাশ না করার শর্তে বাংলাদেশ কমিউনিটির একজন জানান। তবে মালয়েশিয়াার বিভিন্ন কলকারখানায় বাংলাদেশের শ্রমিকদের চাহিদা থাকায় পাকিস্তান থেকে শ্রমিক নিয়োগে সাড়া নেই।