ভারত বাংলাদেশ মৈত্রী সম্পর্কের বন্ধন আরো সুদৃঢ় করতে ত্রিপুরার প্রান্তুিক মহকুমা সাব্রুমে  আন্তর্জাতিক চেকপোস্ট করার চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারত সরকারের বর্ডার ম্যানেজম্যান্ট মন্ত্রণালয় ল্যাণ্ড পোর্ট অথরিটি অব ইণ্ডিয়া।

কেবল মাত্র ইন্টিগ্রেটেড চেকপোস্টই নয় তার সাথে সাথে সাব্রুমে দু'টি স্পেশাল ইকনমিক জোন করারও সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারতসরকার।

এতদিন এই প্রকল্পটি আদৌ বাস্তবায়িত হবে কিনা তানিয়ে সবার মধ্যে ধোঁয়াশা ছিলো কেননা ভারত সরকারের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রক প্রস্তাবটি আর্থিক সংকটের কারন দেখিয়ে প্রকল্পটি একপর্যায়ে বাতিলের পর্যায়ে ফেলে দেয়, কিন্ত ত্রিপুরা সরকারের বিশেষ তৎপরতায় ভারত সরকার প্রকল্পটির চুড়ান্ত অনুমোদন দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়।

সোমবার নয়াদিল্লিতে ভারতসরকারের গৃহ মন্ত্রণালয়ের সচিবের পৌরহিত্যে এক বৈঠকে এই চুড়ান্ত অনুমোদনটি গৃহীত হয়।

এই গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকে বিদেশ মন্ত্রক, ডোনার, কমার্স অ্যান্ড ইণ্ডাস্ট্রি, বিএসএফ, ল্যাণ্ড পোর্টঅথরিটির শীর্ষ কর্মকর্তারাও ছাড়াও ত্রিপুরা সরকারের বিশেষ সচিব কিরন গিত্য উপস্থিত ছিলেন। 

ত্রিপুরার প্রান্তিক মহকুমা দক্ষিণ ত্রিপুরার সাব্রুমের নবীন পাড়াতে এই এটি হবে তারজন্য ৪৯.৭৮৭একর জমি অধীগ্রহনের প্রস্তাব দেওয়া হয়। এই জমি অধীগ্রহনের ক্ষেত্রে ৯৭কোটি টাকা মতো ব্যয় হবে। আর যে দুটি স্পেশাল ইকনমিক জোন গড়ে তোলার সিদ্ধান্ত তাতে দু'দেশের শিল্পপতিরা তাদের শিল্পস্হাপনর সুযোগ পাবেন তারজন্য সাব্রুমের দুটিস্হানে ছয়শত একর জায়গা নির্বাচন করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

এই প্রকল্পগুলো বাস্তবায়ন হলে দু-দেশের মধ্যে পারস্পরিক সম্পর্ক আরো মজবুত হবে বলে মনে করছে বিশেষজ্ঞ মহল।