ভারতে পাচার হওয়া বাংলাদেশি তরুণীকে বেনাপোলে হস্তান্তর

Img

ভালো কাজ দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে ভারতে পাচার করা বাংলাদেশি এক তরুণীকে ফেরত পাঠিয়েছে ভারতীয় পুলিশ। বুধবার (২৪ নভেম্বর) বিকেলে ভারতের পেট্রাপোল ইমিগ্রেশন পুলিশ ট্রাভেল পারমিটে তাকে বেনাপোল ইমিগ্রেশন পুলিশের কাছে হস্তান্তর করে।

বেনাপোল ইমিগ্রেশন পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রাজু জানান, ইমিগ্রেশনে কাগজপত্রের আনুষ্ঠানিকতা শেষে তরুণীকে বেনাপোল বন্দরথানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। সেখান থেকে আইনি সহয়তা দিতে জাস্টিস অ্যান্ড কেয়ার এনজিও তাকে গ্রহণ করেছে।

জাস্টিস অ্যান্ড কেয়ারের সিনিয়ার প্রোগ্রাম অফিসার মুহিত হোসেন বলেন, সংসারে অভাব-অনটনের সুযোগে বিভিন্ন সময় ভালো কাজের কথা বলে দালালরা তাকে ভারতে পাচার করে। ভালো কাজ না দিয়ে প্রতারণা করা হয় তার সঙ্গে। পরে ভারতীয় পুলিশ অবৈধ অনুপ্রবেশের অভিযোগে তাকে আটক করে আদালতে পাঠায়। সেখান থেকে তাদের আশ্রয় হয় ভারতীয় এনজিও সংস্থার শেল্টার হোমে।

পরে উদ্ধারকৃতরা বাংলাদেশি কিনা তা যাচাই-বাছাই করে কাগজ পত্রের আনুষ্ঠানিকতা শেষে ট্রাভেল পারমিটে এরা ফিরে এসেছে। এদের আইনি সহায়তা ও কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য কাজ করবে এনজিও সংস্থা জাস্টিস অ্যান্ড কেয়ার।

পূর্ববর্তী সংবাদ

রান্নাবান্নায় ৯টি ভুল বাদ দিলে চটজলদি কমবে ওজন

হ্যাঁ, ভুলটা করছেন আপনি খাবার তৈরি করতে গিয়েই। এমন কিছু কাজ করে ফেলছেন নিজের অজান্তেই, যেগুলোর কারণে অহেতুক বাড়ছে ওজন। এবং হু হু করে বাড়ছে। সবচাইতে বাজে ব্যাপারটা এই যে, এই ভুলগুলো আমরা প্রায় সকলেই করি। চলুন, জেনে নিই রান্নাবান্নায় এমন কিছু ভুলের কথা, যেগুলো না করলে ওজন কমানো কোন ব্যাপারই না। এগুলো শুধরে নিন, কয়েক সপ্তাহেই বাড়ির সকলের স্বাস্থ্যে দেখতে পাবেন পরিবর্তন।

১) ভাজা পোড়ায় ছোট্ট নিয়ম না, ভাজা পোড়া খাওয়া একেবারে বাদ দিতে হবে না। তবে ভাজা কোন খাবার তৈরির পর সেটাকে ভালো করে কিচেম টিস্যু দিয়ে মুছে নিন এবং তারপর পরিবেশন করুন। এই কাজটি অনেকেই করেন না। অথচ এর মাধ্যমে বাড়তি তেলটা কিন্তু একদম ঝড়ে যায়।

২) অতিরিক্ত চিনির ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ অনেকেই রাঁধতে গিয়ে প্রয়োজনের অতিরিক্ত মিষ্টি দিয়ে ফেলেন। যেটুকু প্রয়োজন, সচেতনভাবে সেটুকুই দিন। বাড়তি দিয়ে অযথা কেন বাড়তি ক্যালোরি যোগ করা?

৩) বাড়তি তেলের ব্যবহার বন্ধ অনেকেই ওপরে তেল ভাসা ছাড়া তরকারি খেতেই পারেন না। এই অভ্যাসটি একদম ত্যাগ করুন, দেখবেন হয়ে উঠেছেন ফিট।

৪) সব সবজিই রান্না করবেন না হ্যাঁ, সব সবজিকে রান্না করার বদলে দৈনিক একটি সালাদ খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলুন। ওজন কমানো হয়ে যাবে ছেলেখেলা।

৫) সব রান্নাই ভুনা নয় মাখা মাখা ভুনা তরকারী ছাড়া খেতে ভালোই লাগে না? বদলে গড়ে তুলুন ঝোল খাবার অভ্যাস। ভুনা তরকারী মানেই অনেকতা বাড়তি তেল ও মশলা, যা স্বাস্থ্যের জন্য ভালো নয় মোটেই।

৬) তেলটাকে বদলে ফেলুন রান্নায় ব্যবহার করেন ঘি, সয়াবিন , সরিষা ইত্যাদি তেল? চেষ্টা করে দেখুন বদলে সান ফ্লাওয়ার, অলিভ অয়েল কিংবা অন্য কোন স্বাস্থ্যকর তেল খাওয়া যায় কিনা। এগুলো দাম বেশি বটে, তবে অল্প ব্যবহার করলে সাশ্রয়ী হবে।

৭) মাংস থেকে চর্বি বাদ অনেকেই ফার্মের মুরগির চর্বিটাকে ফেলে দেন না, গরু কিংবা খাসি তো ফেলেনই না। এই কাজটি ভুলেও করবেন না। বরং সচেতনভাবেই মাংস থেকে বাদ দিন সমস্ত চর্বি। কেননা রান্নার সময় এই চর্বি গলে গিয়ে ঝোলে মিশে যায় ও বাড়ায় আপনার ওজন।

৮) এক খাবার খাওয়ার অভ্যাস বাদ ভাতের সাথে একটি তরকারী রেঁধেই দায়িত্ব শেষ আপনার? এই অভ্যাসটি ত্যাগ করুন। সাথে রাখুন হরেক রকমের সবজির আইটেম। এতে ভাত কম খাওয়া হবে, সবজি খাওয়া হবে বেশি।

৯) ভাতের ক্ষেত্রে সচেতন বসা ভাত কিংবা রাইস কুকারের ভাত খান? ভুলে জান এই অভ্যাসের কথা। অবশ্যই ভাতের মাড় ফেলে ভাত রান্না করবেন।

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার