বৈশাখের শুভেচ্ছা উপহার দিলেন ঢাকায় অবস্থানরত পাঁচবিবিবাসী

image
image
image

জয়পুরহাট জেলার পাঁচবিবি উপজেলার কিছু সেচ্ছাসেবী তরুণদের সহযোগিতায় ঢাকায় অবস্থানরত পাঁচবিবিবাসী উদ্যোগে সোমবার গভীররাত ও মঙ্গলবার ভোরে পাঁচবিবি উপজেলার পশ্চিম বালিঘাটার কাদেরপাড়া,  আয়মা রসুলপুর ইউনিয়নের মালিদহ,  ভেদলার মোড়, গোপলপুর, আটাপুর ইউনিয়নের উচাই,আংড়া, বীরনগর,  পুটারবিল, হরিহরপুর, গনাই মাগুড়া, রেলস্টেশনের পাশে, ঢাকাইয়া পট্টি সহ বিভিন্ন গ্রামের অসহায়,দুস্থ্য, বিধবা, প্রতিবন্ধী,  চা শ্রমিক,  আদিবাসী,দৈনন্দিন কাজের শ্রমিক, রিক্সা, ভ্যানচালকসহ বিভিন্ন পেশার ১০০ টি পরিবারের  মাঝে বৈশাখের শুভেচ্ছা উপহার স্বরুপ ৩ কেজি চাল, ১ কেজি আলু, হাফ কেজি ডাল, হাফ কেজি পেঁয়াজ ও একটি করে  সাবান বিতরণ করা হয় 

উক্ত শুভেচ্ছা উপহার গুলো কিনতে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছিলেন ঢাকায় অবস্থানরত বিশিষ্ট ব্যাবসায়ী ইমরান হোসেন চৌধুরী ইমু, জয়পুরহাট  জেলা সমিতি ঢাকার সভাপতি মোস্তফা কামাল চপল, ড. গোলাম আজম চৌধুরী তুলু, মোঃ ইউনুস আলী ইমন, তানভীর আহম্মেদ,  আরিফ রব্বানী ইস্তি, রাবু হোসেন, সৈকত, কবি জেসমিন রুমী, প্রিন্স, এস আই তোফায়েল, শিল্পী সানাম সুমি, সাব্বির,  নওশাদ পিয়াস, পুলিশ তারেকুল ইসলাম মারুফ, নাজমুস সামা মিশু, উজ্জ্বল, রোমান,নাঈম, সাইদুল, আবু তালহা এবং নাম না বলা অনেকে।

সেচ্ছাসেবক হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন ফিরোজ হোসেন ফাইন,  রাবু হোসেন, মেহেদী হাসান রানা, ইমতিয়াজ হোসেন ইমন,  অর্পনা, এম আর হোসাইন রাসেল, মামুনুর রশীদ বাবু।

বৈশাখের প্রথম দিনে এমন একটি ভালো কাজ করতে পেরে প্রতিটি তরুণ নিজ সমাজের প্রতি যে দায়বদ্ধতা থাকে তা কিছুটা হলেও করতে পেরেছে বলে মনে করে এবং প্রতিটি গ্রামের সংগঠন ও জনপ্রতিনিধিদের এ মহামারি করোনায় সকলের পাশে দাঁড়ানোর জন্য অনুরোধ করে। আমাদের এ মহান কর্ম সকলের সহযোগিতায় চলতে থাকবে। 

আপনারা সহযোগিতা করতে চাইলে নিচের বিকাশ নাম্বারে আপনাদের অনুদান দিতে পারেন- 01754 76 50 50, 01754 441 680 (পারসোনাল)।  আমরা তা এমন কাউকে দিব যারা প্রকৃত পাওয়ার যোগ্য। 

 

পূর্ববর্তী সংবাদ

আজ থেকে রাঙামাটির আলফেসানি স্কুলে বসবে বাজার

করোনাকালীন সময়ের জন্য ‘সামাজিক দূরত্ব’ নিশ্চিত করতে আজ মঙ্গলবার থেকে রাঙামাটির বনরূপা কাঁচা বাজার ও কালিন্দীপুর কাঁচাবাজারকে স্থানান্তর করে আলফেসানী উচ্চ বিদ্যালয় খোলা মাঠে নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে প্রশাসন।

রাঙামাটি জেলা প্রশাসনের নেজারত ডেপুটি কালেক্টর (এনডিসি) উত্তম কুমার দাশ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানিয়েছেন, আপাতত বনরূপা বাজার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে পরিস্থিতি বিবেচনায় রিজার্ভবাজার ও তবলছড়ির বিষয়েও সিদ্ধান্ত হতে পারে।

বনরুপা বাজার ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির সভাপতি আবু সৈয়দ বলেন, আমার সবসময় ব্যবসায়ী এবং বাজার করতে আসা লোকজনকে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে বাজার করতে কিন্তু কেউ কথা শুনছে না বলেই প্রশাসন এমন ব্যবস্থা নিয়েছে।

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার