রাজধানীর শ্যামবাজার ফরাসগঞ্জে বুড়িগঙ্গা নদীতে অর্ধশতাধিক যাত্রী নিয়ে লঞ্চডুবির ঘটনায় শিশুসহ ১৪ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। উদ্ধার কার্যক্রম অব্যাহত আছে। হতাহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। 

সোমবার (২৯ জুন) বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ফায়ার সার্ভিস সদর দফতরের কর্মকর্তা আজিজুল ইসলাম।

ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স সদর দফতরের ডিউটি অফিসার রোজিনা আক্তার বলেন, ‘এখন পর্যন্ত ১৪ জনের মরদেহ উদ্ধার করেছে ফায়ার সার্ভিস। তাদের মধ্যে ৪ জন নারী, ৯ জন পুরুষ এবং একজন শিশু রয়েছে।’

ফায়ার সার্ভিসের সদরঘাট নদী ফায়ার স্টেশনের ডুবুরি ইউনিট অনুসন্ধান কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড বাহিনীও উদ্ধার কাজে যোগ দিয়েছেন।

সোমবার সকাল ৯টার দিকে ময়ুর-২ নামের একটি লঞ্চের ধাক্কায় কমপক্ষে ৫০ জন যাত্রী নিয়ে মর্নিং বার্ড নামের ওই লঞ্চটি ডুবে যায়।

এদিকে খবর পেয়ে উদ্ধার কাজে অংশ নিতে নারায়ণগঞ্জ থেকে বিআইডব্লিউটিএর উদ্ধারকারী জাহাজ রওনা দিয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে।