বিয়ে করলেই নবদম্পতি পাবেন ৫ লাখ টাকা

Img

বিয়ে করলেই নবদম্পতি সরকারের কাছ থেকে আর্থিক পুরস্কার পাবেন! পুরস্কারের মূল্যও কম নয়, বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৫ লাখ টাকা। নবদম্পতিকে বিয়ের জন্য এমন উপহার এবার থেকে দেবে জাপান সরকার। কিন্তু কেন?

সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, জাপানে যেহেতু জন্মহার কমে গেছে এবং মানুষজন দেরিতে বিয়ে করছেন বা অবিবাহিত থাকছেন এ কারণে তাদেরকে বিয়েতে উৎসাহিত করতে এমন উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

তবে আর্থিক সহায়তা দেওয়ার ক্ষেত্রে কিছু শর্তও রাখা হয়েছে। যেমন- আর্থিক সাহায্য পেতে হলে নবদম্পতি দু’‌জনেরই বয়স ৪০ বছরের কম হতে হবে। শুধু তাই নয়, দু’‌জনের মিলিত আয় হতে হবে ৫.‌৪ মিলিয়ন ইয়েন বা প্রায় ৪৩ লাখ টাকার ওপরে । এছাড়া নবদম্পতির দু’‌জনেরই বয়স ৩৫ বছর হলে এবং মিলিত আয় ৪.‌৮ মিলিয়ন বা ৩৮ লাখ টাকা হলে তাদের আর্থিক সহায়তা পাবেন ৩ লাখ ইয়েন।

২০১৫ সালের সমীক্ষা অনুযায়ী, জাপানে অবিবাহিত পুরুষদের ২৯ দশমিক ‌১ শতাংশের বয়স ২৫ থেকে ৩৪ বছর। এছাড়া ওই বয়সের মধ্যে অবিবাহিত মেয়েদের সংখ্যা ১৭ দশমিক ৮ শতাংশ। আর বিয়ে না করায় দেশে কমে গিয়েছে জন্মহারও। যা সরকারকে ভাবিয়ে তুলেছে। গত বছর দেশটিতে৮ লাখ ৬৫ হাজার শিশুর জন্ম হয়, যা এখন পর্যন্ত বছরে সন্তান জন্মদানের দিক দিয়ে সর্বনিম্ন।  সূত্র: জাপান টাইমস।

পূর্ববর্তী সংবাদ

করোনা: সুস্থ হয়ে ঘরে ফিরেছে ২ কোটি ২১ লাখের বেশি

বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্তের সংখ্যা যেমন বাড়ছে, সেই সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে সুস্থতার হারও। এখন পর্যন্ত এই ভাইরাসে আক্রান্ত ৩ কোটি ২১ লাখ ৩৬ হাজার ছাড়িয়েছে। মৃতের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৯ লাখ ৮১ হাজার। আর সুস্থ হয়ে ঘরে ফিরেছে ২ কোটি ২১ লাখের বেশি মানুষ।

জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্যানুযায়ী, শুক্রবার সকাল পর্যন্ত বিশ্বের বিভিন্ন দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে ৯ লাখ ৮১ হাজার ৭৫৪ জনের এবং আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩ কোটি ২১ লাখ ৩৬ হাজার ৮৫৫ জনে। ইতিমধ্যে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ২ কোটি ২১ লাখ ৫০ হাজার ৮০৫ জন।

বিশ্বে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়ে সবচেয়ে বেশি মৃত্যু হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে, ২ লাখ ২ হাজার ৭৬২ জন। দেশটিতে আক্রান্তের সংখ্যাও বিশ্বে সর্বোচ্চ, ৬৯ লাখ ৭৬ হাজার ২১৫ জন। 


আর আক্রান্তের সংখ্যায় দ্বিতীয় ও মৃতের সংখ্যায় তৃতীয় অবস্থানে আছে ভারত। দেশটিতে শুক্রবার সকাল পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছে ৫৭ লাখ ৩২ হাজার ৫১৮ জন। এ পর্যন্ত মারা গেছে ৯১ হাজার ১৪৯ জন।

মৃত্যুর দিক থেকে দ্বিতীয় ও আক্রান্তের সংখ্যায় তৃতীয় অবস্থানে আছে ব্রাজিল। দেশটিতে এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে এখন পর্যন্ত এক লাখ ৩৯ হাজার ৮০৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। আর আক্রান্তের সংখ্যা ৪৬ লাখ ৫৭ হাজার ৭০২ জন।

মৃতের সংখ্যায় চতুর্থ অবস্থানে আছে মেক্সিকো। দেশটিতে এখন পর্যন্ত এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে ৭৫ হাজার ৪৩৯ জন। আক্রান্ত হয়েছে ৭ লাখ ১৫ হাজার ৪৫৭ জন। 

করোনায় সর্বোচ্চ আক্রান্ত দেশগুলোর মধ্যে চতুর্থ অবস্থানে আছে রাশিয়া। দেশটিতে আক্রান্ত ১১ লাখ ২৩ হাজার ৯৭৬ জন। আর মৃতের সংখ্যা ১৯ হাজার ৮৬৭ জন।

আক্রান্ত দেশগুলোর মধ্যে পঞ্চম অবস্থানে উঠে এসেছে কলম্বিয়া। দেশটিতে আক্রান্ত ৭ লাখ ৯০ হাজার ৮২৩ জন। আর মৃতের সংখ্যা ২৪ হাজার ৭৪৬ জন।

আক্রান্ত দেশগুলোর মধ্যে ষষ্ঠ অবস্থানে আছে পেরু। দেশটিতে আক্রান্ত ৭ লাখ ৮২ হাজার ৬৯৫ জন। আর মৃতের সংখ্যা ৩১ হাজার ৮৭০ জন।

করোনায় মৃতের দিক থেকে পঞ্চম অবস্থানে আছে যুক্তরাজ্য। দেশটিতে করোনায় মারা গেছেন ৪১ হাজার ৯৯১ জন এবং আক্রান্ত হয়েছে ৪ লাখ ১৮ হাজার ৮৮৯ জন।

আর দক্ষিণ আফ্রিকায় আক্রান্ত ৬ লাখ ৬৭ হাজার ৪৯ জন এবং মারা গেছে ১৬ হাজার ২৮৩ জন। ইউরোপের দেশ ইতালিতে মৃতের সংখ্যা ৩৫ হাজার ৭৮১ জন এবং আক্রান্ত ৩ লাখ ৪ হাজার ৩২৩ জন। ফ্রান্সে মারা গেছে ৩১ হাজার ৫২৪ জন এবং আক্রান্ত ৫ লাখ ৩৬ হাজার ২৮৯ জন। 

স্পেনে এখন পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ৩১ হাজার ১১৮ জনের। আর আক্রান্ত হয়েছে ৭ লাখ ৪ হাজার ২০৯ জন। এছাড়া জার্মানিতে কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত ২ লাখ ৮১ হাজার ৩৪৬ জন, মারা গেছেন ৯ হাজার ৪৩৬ জন। ইরানে আক্রান্ত ৪ লাখ ৩৬ হাজার ৩১৯ জন, মারা গেছেন ২৫ হাজার ১৫ জন।

পাকিস্তানে আক্রান্ত ৩ লাখ ৮ হাজার ২১৭ জন, মারা গেছেন ৬ হাজার ৪৩৭ জন। কানাডায় করোনায় আক্রান্ত ১ লাখ ৫১ হাজার ৮৭ জন এবং মৃতের সংখ্যা ৯ হাজার ২৯৭ জন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত করোনাভাইরাসে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৩ লাখ ৫৫ হাজার ৩৮৪ জন এবং মোট মৃতের সংখ্যা ৫ হাজার ৭২ জন। এছাড়া মোট সুস্থ হওয়ার সংখ্যা ২ লাখ ৬৫ হাজার ৯২ জন। 

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার