বিয়ের পূর্বে পাত্রী দেখা বা পাত্রী দেখে টাকা দেওয়া যাবে কী?

Img

পারিবারিকভাবে বিয়ের সমন্ধ হলে দুই পক্ষই দেখতে যায়। পাত্র/পাত্রী দেখার উদ্দেশ্য মূলত যাতে দুজন দুজনের প্রতি মুহাব্বাত পয়দা হয়।

عن المغيرة بن شعبة، قال: خطبت امرأة على عهد رسول الله صلى الله عليه وسلم، فقال النبي صلى الله عليه وسلم: «أنظرت إليها؟» قلت: لا، قال: «فانظر إليها، فإنه أجدر أن يؤدم بينكما» . মুগীরা ইবনু শু’বা (রাঃ) থেকে বর্ণিতঃ: . তিনি বলেনঃ রাসূলুলাহ্‌ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম)-এর সময় আমি এক নারীকে বিবাহ করার পয়গাম দিলাম।  রাসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) বললেনঃ তুমি তাকে দেখে নাও। কেননা, এতে তোমাদের মধ্যে ভালবাসা পয়দা হবে। .( সুনানে আন-নাসায়ী, হাদিস নং ৩২৩৫) .

আর হাদিয়া মুহাব্বাত বৃদ্ধির নিয়ামক, তাই নিঃসন্দেহে কনেকে হাদিয়া দেওয়া . কনে দেখার পরে কনেকে হাদিয়া হিসেবে টাকা বা অন্যান্য উপহার দিতেই পারেন সমস্যা নেই। কনেও এটি সাদরে গ্রহণ করতে পারে।

. عن أبي هريرة، عن النبي صلى الله عليه وسلم يقول: «تهادوا تحابوا» . আবু হুরায়রা (রাঃ) থেকে বর্ণিতঃ: . নবী (সাঃ) বলেনঃ তোমরা পরস্পর উপহারাদি বিনিময় করো, তোমাদের পারস্পরিক মহব্বত সৃষ্টি হবে। (আদাবুল মুফরাদ, হাদিস নং ৫৯৭) .

عن عائشة ـ رضى الله عنها ـ أن الناس، كانوا يتحرون بهداياهم يوم عائشة، يبتغون بها ـ أو يبتغون بذلك ـ مرضاة رسول الله صلى الله عليه وسلم‏.‏ . ‘আয়িশা (রাঃ) থেকে বর্ণিতঃ: লোকেরা তাদের হাদিয়া পাঠাবার ব্যাপারে ‘আয়িশা (রাঃ)-এর জন্য নির্ধারিত দিনের অপেক্ষা করত। এতে তারা রসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম)-এর সন্তুষ্টি অর্জনের চেষ্টা করত।(সহিহ বুখারী, হাদিস নং ২৫৭৪) .

তবে দুঃখজনক ব্যপার হচ্ছে হাদিয়া কম হলে কনে পক্ষর লোকজন বর পক্ষকে হেয়, তুচ্ছতাচ্ছিল্য করে যা একেবারেই অনুচিত তথা নাজায়েজ!

. عن أبي هريرة ـ رضى الله عنه ـ عن النبي صلى الله عليه وسلم قال ‏ “‏ يا نساء المسلمات لا تحقرن جارة لجارتها، ولو فرسن شاة ‏”‏‏.‏ . আবূ হুরায়রা (রাঃ) থেকে বর্ণিতঃ: নবী (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) বলেছেন, হে মুসলিম নারীগণ! কোন মহিলা প্রতিবেশিনী যেন অপর মহিলা প্রতিবেশিনীর হাদিয়া তুচ্ছ মনে না করে, এমনকি তা ছাগলের সামান্য গোশতযুক্ত হাড় হলেও। .( সহিহ বুখারী, হাদিস নং ২৫৬৬) .

তবে কারও আর্থিক অবস্থা খারাপ থাকলে লুকিয়েও দেখতে পারে, এতে হাদিয়ার প্রয়োজনও নেই।

. عَنْ أَبِـيْ حُمَيْدٍ أَوْ حُمَيْدَةَ قَالَ قَالَ رَسُوْلُ اللهِ ﷺ إِذَا خَطَبَ أَحَدُكُمْ امْرَأَةً فَلَا جُنَاحَ عَلَيْهِ أَنْ يَنْظُرَ إِلَيْهَا إِذَا كَانَ إِنَّمَا يَنْظُرُ إِلَيْهَا لِخِطْبَتِهِ وَإِنْ كَانَتْ لَا تَعْلَمُ . আবূ হুমাইদ অথবা হুমাইদাহ কর্তৃক বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, যখন তোমাদের কেউ কোন রমণীকে বিবাহ-প্রস্তাব দেয়, তখন যদি প্রস্তাবের জন্যই তাকে দেখে, তবে তা দূষণীয় নয়; যদিও ঐ রমণী তা জানতে না পারে। . (মুসনাদে আহমাদ ২৩৬০২-২৩৬০৩)

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার