বিয়ের পিড়িতে রসিক মেয়র কন্যা অর্ণা

Img

জাতীয় চার নেতার অন্যতম শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামানের দৌহিত্র এবং রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন ও বিশিষ্ট সমাজসেবী শাহীন আকতার রেনীর জ্যেষ্ঠ কন্যা বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি ডা. আনিকা ফারিহা জামান অর্ণা বিয়ের পিড়িতে বসছেন। বৃহস্পতিবার রাত ৮টায় রাজশাহী মহানগরীর উপশহরে মেয়রের বাসভবনে পারিবারিকভাবে ঘরোয়া পরিবেশে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হবে।

ডা. আনিকা ফারিহা জামান অর্ণা রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্রপ সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি বিভাগের প্রভাষক মো. রেজভী আহমেদ ভূঁইয়ার সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হচ্ছেন। বর রেজভী আহমেদ ভূঁইয়া লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আমির হোসেন ভূঁইয়া ও রাজিয়া বেগমের সন্তান।

এরআগে বুধবার রাতে ডা. আনিকা ফারিহা জামান অর্ণা ও রেজভী আহমেদ ভূঁইয়ার বিয়ে হলুদের অনুষ্ঠান ঘরোয়াভাবে সম্পন্ন হয়। করোনা মহামারি কারণে ঘরোয়া পরিবেশে নিকট আত্মীয়-স্বজন নিয়েই বিয়ের সকল আনুষ্ঠানিকতার আয়োজন করা হয়েছে। করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে সবাইকে নিয়ে আড়ম্বরভাবে বিবাহোত্তর সংবর্ধনা অনুষ্ঠান করা হবে।

এদিকে, করোনার কারণে ঘরোয়া পরিবেশে বিয়ে আয়োজন হলেও ডা. অর্ণার গায়ে হলুদের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ার পর সেই আনন্দ ছড়িয়ে পড়েছে সর্বত্র। বুধবার রাত থেকে গায়ে হলুদ অনুষ্ঠানের ছবি দিয়ে রাজনৈতিক, সমাজিক, সাংস্কৃতিক অঙ্গনসহ বিভিন্ন শ্রেণীপেশার মানুষ ডা. অর্ণা জামান ও রেজভী আহমেদ ভুঁইয়ার নতুনের জীবনের জন্য শুভ কামনা জানাচ্ছেন।

পূর্ববর্তী সংবাদ

মেহেরপুরে হত্যা মামলায় আটজনের যাবজ্জীবন

মেহেরপুরে আবুবক্কর শাহ নামে এক কৃষককে কুপিয়ে হত্যার দায়ে আটজনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছে আদালত।

বৃহস্পতিবার বেলা ১২টার দিকে মেহেরপুর জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক এসএম আ. সালাম এ রায় দেন।

জেলা ও দায়রা জজ আদালতের সরকারি কৌঁসুলি পিপি পল্লব ভট্টাচার্য্য জানান, ২০১০ সালের ১৪ জুন গাংনী উপজেলার করমদী গ্রামে কৃষক আবু বক্কর শাহ মাঠে কৃষিকাজ করতে যাওয়ার সময় তাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় নিহতের ছেলে শাহাবুদ্দিন বাদী হয়ে গাংনী থানায় ১১ জনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা করেন। এর মধ্যে দুজন মারা গেছেন ও একজনকে খালাস দেয়া হয়েছে।

মামলাটির দীর্ঘ শুনানির পর আজ মেহেরপুর জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক এসএম আ. সালাম আট আসামির যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ডাদেশ প্রদান করেন। অভিযুক্ত আসামি এনামুল হক, জাহিদুল ইসলাম, আব্দুল বারী, রমজান আলী, মোহাম্মদ আলী, সিরাজুল ইসলাম, আলতাফ হোসেন, মিন্টু ইসলামের বিরুদ্ধে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও এক মাসের জেল রায় প্রদান করেছেন।

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার