বিশ্বসেরা হয়ে সাকিবের লাভ কি ? প্রশ্ন পাপনের

Img

দেশ সেরা ক্রিকেটার কে? এই প্রশ্ন যতবার বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনকে করা হয়েছে ঠিক ততবারই তিনি জবাব দিয়েছেন-’সাকিব আল হাসান’। তবে পাপনের প্রশ্ন সাকিব বিশ্বসেরা হলেও দেশের জন্য যদি না খেলেন তবে লাভ কি?

দেশের ক্রিকেটের পোস্টারবয় সাকিব আল হাসান, রেকর্ড ভাঙা আর নতুন রেকর্ড গড়াই যেন তার কাজ। মাঠে নামলেই গড়েন কোন না কোন রেকর্ড। অথচ সেই সাকিবই সম্প্রতি সমালোচনার মুখে পড়েছেন বিভিন্ন সময় ক্রিকেট থেকে ছুটি কিংবা কোন ফরম্যাট থেকে সরে যাওয়ার ইচ্ছে পোষণ করায়। এবার সাকিবকে কাঠ গড়ায় দাঁড় করালেন স্বয়ং বিসিবি সভাপতিই।

সময় টিভিকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে পাপন বলেন, ‘টেস্ট ক্রিকেট ছেড়ে দিতে পারে -এরকম আমরা শুনিনি মানে আমার সঙ্গে কোনো কথা হয়নি এমনকি কেউ বলেনি। তবে ওর ব্যাপারে একটা অনিশ্চয়তা তো আছেই। কারণ, ও কখন খেলবে আর কখন খেলবে না -এটা নিয়ে সব সময়ই একটা অনিশ্চয়তা আছে আমাদের মধ্যে। আমি মনে করি এটি দলের জন্য তো খারাপই তেমনি ওর জন্যও খারাপ।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমার সঙ্গে ওর সর্বশেষ যে কথা হয়েছে, যতদূর জানি এখন থেকে নিয়মিত খেলবে সব ফরম্যাটেই। আমরা সবসময় বলে আসছি নিঃসন্দেহে ও আমাদের সেরা খেলোয়াড়। কিন্তু সেরা খেলোয়াড় হয়ে লাভ নেই, যদি না খেলে দেশের জন্য।’

পূর্ববর্তী সংবাদ

যুক্তরাষ্ট্রে ভবনে ভয়াবহ আগুন, নিহত ১২

যুক্তরাষ্ট্রে একটি তিনতলা ভবনে আগুন লেগে ১২ জনের মৃত্যু হয়েছে। নিহত ১২ জনের মধ্যে ৮ জনই শিশু।

বুধবার (৫ জানুয়ারি) দেশটির পেনসিলভানিয়া অঙ্গরাজ্যের পূর্বাঞ্চলীয় ফিলাডেলফিয়া শহরে মর্মান্তিক এই ঘটনা ঘটে। মার্কিন কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে বৃহস্পতিবার (৬ জানুয়ারি) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি।

ফিলাডেলফিয়া অগ্নিনির্বাপণ দফতরের এক কর্মকর্তা আগুনে পুড়ে ৮ শিশুর মৃত্যুর তথ্য নিশ্চিত করেছেন। বার্তাসংস্থা এএফপি জানিয়েছে, ফিলাডেলফিয়া শহরের ওই তিন তলা ভবনের আগুনে পুড়ে নিহতের সংখ্যা ১৩ জন এবং তাদের মধ্যে ৭ জন শিশু।

বিবিসি বলছে, স্থানীয় সময় বুধবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে ফিলাডেলফিয়া শহরের উত্তরে অবস্থিত ওই ভবনে আগুন লাগে। এসময় ভবনটিতে মোট ২৬ জন অবস্থান করছিলেন। তবে আগুন লাগার পর ৮ জন নিরাপদে বাইরে বেরিয়ে আসতে পেরেছিলেন।

এছাড়া আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার পর আহত দু’জনকে হাসপাতালে নেওয়া হয়। ফিলাডেলফিয়ার ডেপুটি ফায়ার কমিশনার ক্রেইগ মারফি সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, এটি তার দেখা সবচেয়ে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডগুলোর একটি।

তিনি বলেন, আগুন লাগার কারণ হিসেবে কর্তৃপক্ষ এখন পর্যন্ত সন্দেহজনক কিছু না বললেও যেহেতু এখানে প্রাণহানি হয়েছে, তাই আমরা এর তদন্ত করবো।

এদিকে এক সংবাদ সম্মেলনে ফিলাডেলফিয়ার মেয়র জিম কেনি জানিয়েছেন, এটি শহরের ইতিহাসে সবচেয়ে বিপর্যয়কর দিনগুলোর একটি। এইভাবে এতো মানুষের মৃত্যু সত্যিই অনেক কষ্টের। একসঙ্গে এতোগুলো শিশুর মৃত্যুও বেদনার। আগুন লাগা এই ভবনটির মালিক ফিলাডেলফিয়া হাউজিং অথরিটি। ১৯৫০ এর দশকে এটিকে দু’টি অ্যাপার্টমেন্টে বিভক্ত করা হয়।

কর্মকর্তারা বলছেন, সর্বশেষ ২০২০ সালে ভবনটি পরিদর্শন করা হয়েছিল। সেসময় ভবনটিতে চারটি স্মোক ডিটেক্টর কার্যকর ছিল। কিন্তু বুধবারের ওই আগুনের সময় সেগুলো কোনো কাজ করেনি।

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার