বিজয়নগরে মাস্ক না পড়ায় ভ্রাম্যমাণ আদালতে অর্থদণ্ড

Img

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর উপজেলার পরিষদ প্রাঙ্গণ ও মির্জাপুর এলাকার  বিভিন্ন স্থানে মাস্ক পরিধান না করার দায়ে ভ্রাম্যমাণ আদালতে ৪ জনকে অর্থদণ্ড করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

সোমবার  (১২ অক্টোবর)  সকাল সাড়ে ১০ টায়  অপরাধ প্রতিরোধ ও  আইনশৃঙ্খলা রক্ষার্থে  উপজেলার পরিষদ ও  ইছাপুরা ইউনিয়নের মির্জাপুর সহ বিভিন্ন স্থানে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে সরকারি নির্দেশ অমান্য করে মাস্ক পরিধান না করায় ৪ জনকে ১৪০০টাকা  অর্থদণ্ড প্রদান করেন উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ মাহবুবুর রহমান। 

মোবাইল কোর্ট পরিচালনার সময় তিনি হতদরিদ্র জনসাধারণের মাঝে বিনামূল্যে মাস্ক প্রদানসহ ও মাস্ক পরিধান করিয়ে দিয়ে মাস্ক পরিধানের সুফল সম্পর্কে ও মাদকের কুফল সম্পর্কে জনগণকে সচেতন করেন।

জনস্বার্থে এ অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে জানান, উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ মাহবুবুর রহমান।

পূর্ববর্তী সংবাদ

ভারত বাংলাদেশের পরীক্ষিত বন্ধু: খাদ্যমন্ত্রী

খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার বলেছেন, ভারত বাংলাদেশের পরীক্ষিত বন্ধু। মুক্তিযুদ্ধের সময় বাংলাদেশের সাথে ভারতের যে সুসম্পর্ক তৈরি হয়েছে তা দিন দিন আরও সুদৃঢ় হচ্ছে।

সোমবার খাদ্য মন্ত্রণালয়ে মন্ত্রীর দপ্তরে সৌজন্য সাক্ষাৎ করতে আসেন বাংলাদেশে নবনিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার বিক্রম দোরাইস্বামী।

সাক্ষাতে দ্বিপক্ষীয় বহু বিষয় নিয়ে আলোচনার সময় মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

বৈঠকে চলমান করোনা মহামারি মোকাবিলায় বাংলাদেশের ভূয়সী প্রশংসা করেন ভারতীয় হাইকমিশনার।

বিক্রম দোরাইস্বামী বলেন, ‘বাংলাদেশের সাথে ভারতের অত্যন্ত ভালো সম্পর্ক রয়েছে বলেই এ কোভিড মহামারির সময়ে আমরা একসাথে কাজ করেছি। ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক আছে বলেই এটা সম্ভব হয়েছে।’

খাদ্যমন্ত্রী বলেন, প্রতিবেশী দেশের মধ্যে সুসম্পর্ক ও পারস্পরিক বোঝাপড়া ভালো হলে দুদেশেরই অর্থনৈতিক উন্নয়ন সহজতর হয়।

সাক্ষাৎকালে মধু, দুগ্ধজাত দ্রব্য ও খাদ্য পণ্যের মান উন্নয়ন, নিরাপদ খাদ্য, টেস্টিং ল্যাবরেটরি ও চলমান খাদ্যগুদাম নির্মাণসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়।

বৈঠকে ভবিষ্যতেও দুদেশের মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ রাজনৈতিক সম্পর্ক আরও জোরদার হবে বলে আশা প্রকাশ করা হয়।

খাদ্য সচিব মোছাম্মৎ নাজমানারা খানুম এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার