ভাষা-সংস্কৃতি, ধর্ম-বর্ণসহ নানা সংস্কার ও ভেদাভেদ ভুলে শুধু প্রেমের টানে বাংলাদেশে ছুটে এসেছেন অনেক বিদেশি তরুনী। কিন্তু এইবার ঘটলো এক ব্যতিক্রম কাহিনী।

কুমিল্লার বরুড়া উপজেলার ১৪নং লক্ষীপূরের নলুয়া চাঁদপুর গ্রামে সৌদি আরবের এক কর্মীর মায়ায় সৌদির নাগরিক (কর্মীর মালিক) বাংলাদেশে চলে এসেছে তাকে দেখতে।

লোকমুখে জানা যায়, নলুয়া চাঁদপুর গ্রামের সুদির শীল দীর্ঘ ১৫ বছর ঐ মালিকের প্রতিষ্ঠানে কর্মরত ছিলো। তারপর প্রায় ৮-১০ বছর আগে সৌদি আরব থেকে বাংলাদেশে চলে আসে অসুস্থতা কারনে।তারপর থেকে আর বিদেশ যাওয়া হয়নি সুদির শীলের। তিনি যে প্রতিষ্টানে চাকরি করতেন, সে প্রতিষ্টানের মালিক সৌদির নাগরিক পুরাতন কর্মীর মায়ায় বাংলাদেশে চলে এসেছে সে কর্মীকে দেখতে।

গত ২৮-৮-১৯ তারিখে তিনি বাংলাদেশে আসেন, তারপর ফোনে যোগাযোগের মাধ্যমে তিনি ঐ কর্মীর বাড়িতে এসে পৌছে। এর মধ্যেই এলাকার তুলকালাম পরে যায়, সকাল থেকে রাত পর্যন্ত ঐ বাড়ির চারিদিকে মানুষের ঢল নামে বিদেশী মেহমান কে দেখার জন্য।