বরিশালে তৃতীয় শ্রেনীর স্কুলছাত্রীর মৃত্যু

Img

বরিশাল নগরীর কাউনিয়া থানাধীন কাগাশুরা এলাকায় তৃতীয় শ্রেনীর এক স্কুল ছাত্রীর রহস্যজনক মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। মৃত সাবিহা আক্তার অথৈ (০৮) কাগাশুরা এলাকার কাজী বাড়ির বাসিন্দা কাজী গোলাম মোস্তফার কন্যা ও সাপানিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেনীর ছাত্রী।

মঙ্গলবার (০৬ নভেম্বর) বেলা ১২ টার দিকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালের জরুরী বিভাগের চিকিৎসক ডাঃ মাহাবুবুর রহমান তাকে মৃত বলে ঘোষনা করেন। ডাঃ মাহাবুবুর রহমান জানান, শিশুটিকে মৃত অবস্থায়-ই হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। মৃতদেহের সুরতহাল ও ময়নাতদন্তের জন্য শেবাচিম হাসপাতালের লাশ রাখা কক্ষে প্রেরণ করা হয়েছে।

এ বিষয়ে কাউনিয়া থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই তানজিল আহমেদ বলেন, খবর পেয়ে তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন পাশাপাশি হাসপাতালেও এসেছেন। তবে অথৈর মৃত্যুর বিষয়ে এখনো নিশ্চিত করে কিছু বলা যাচ্ছে না। এখন পর্যন্ত এ ঘটনার সাথে কাউকে আটক করা সম্ভব হয়নি বলে জানিয়ে তিনি বলেন, ঘটনার তদন্ত চলছে এবং প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে শ্বাসরোধ করে তাকে হত্যা করা হয়েছে।

তিনি আরো জানান, শিশুটির গলায় লাল দাগ দেখতে পাওয়া গেছে এবং মুখ ফ্যানায় ভর্তি ছিলো। তবে মৃত্যুর সঠিক কারন ময়নাতদন্ত ছাড়া বলা সম্ভব নয়।

পূর্ববর্তী সংবাদ

মহিষের গুতোয় শ্রমিকের মৃত্যু

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় হিংস্র মহিষের গুতোয় মো. হানিফ বেপারী (৫০) নামে এক স-মিল শ্রমিক নিহত হয়েছেন।

আজ মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে উপজেলার তেঁতুলতলা গ্রাম্যবাজার সংলগ্ন একটি স-মিলের কাছে এ মর্মান্তিক ঘটনা ঘটে। নিহত শ্রমিক হানিফ উপজেলার দধিভাঙা গ্রামের আব্দুল হালিম বেপারীর ছেলে। সে তিন সন্তানের জনক।

স্থানীয়দের সূত্রে জানা গেছে- মঙ্গলবার সকালে নিত্যদিনের মতো শ্রমিক হানিফ বেপারী স্থানীয় তেঁতুলতলা বাজারের একটি স-মিলে গাছ কাটার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। এসময় মিলের পাশে স্তুপ করা গাছের গুড়ি মাপতে গেলে পার্শস্থ খালের পাড়ে স্থানীয় কৃষক সাইফুল ইসলাম সফলের বেঁধে রাখা মহিষ ছুটে এসে অতর্কিতে স-মিল শ্রমিক হানিফের ওপর হামলা চালায়। হিংস্র মহিষটি শিং দিয়ে গুতিয়ে তাকে মাটিতে পিষে ফেলে। স্থানীয়রা আহত ওই শ্রমিককে উদ্ধারে এগিয়ে আসার আগেই সে ঘটনাস্থলে নিহত হয়। পরে গ্রামবাসী হিংস্র মহিষটিকে আটক করে থানা পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে নিহত শ্রমিকের লাশ উদ্ধার করে।

এ মর্মান্তিক ঘটনায় পুরো গ্রামে শোকের ছাঁয়া নেমে আসে। নিহতর পরিবারে এখন শোকের মাতম চলছে। এ ব্যাপারে মঠবাড়িয়া থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. মো. শওকত হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, লাশের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করা হয়েছে। এ ঘটনায় মঠবাড়িয়া থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়ছে।’

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার