বরিশালে ডায়রিয়ায় ৪৮ হাজার ২৫৭ জন আক্রান্ত, ১৬ জনের মৃত্যু

Img
প্রতীকী ছবি

বরিশাল বিভাগে এবার বরগুনা জেলা থেকে ডায়রিয়ার প্রকোপ শুরু হয়। তবে বিভাগে সর্বাধিক ১২ হাজার ৪০৫ জন হয়েছে ভোলায়। বিভাগে মোট আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৪৮ হাজার ২৫৭ জন।

ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে বুধবার সকালে পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে একজন ও মঙ্গলবার রাতে বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে আরেকজনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে বিভাগে সরকারি হিসাবে ১৬ জনের মৃত্যু হলো। আর বেসরকারি হিসাবে এই মৃত্যুর সংখ্যা ৩৪।

বরিশাল বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সূত্র জানায়, বুধবার (৫ মে) সকাল পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় বিভাগের ৬ জেলায় ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ৬৭১ রোগী। আর মারা গেছেন দুজন। এরমধ্যে বুধবার সকাল ৮টায় পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলায় হাসিনা বেগম (৩০) মারা যান। তিনি সকালেই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়েছিলেন। বরগুনা সদর উপজেলার কেওড়াবুনিয়া এলাকার আহমেদ খান (৯০) মঙ্গলবার বিকেলে বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে মারা যান। 

বেসরকারি হিসাবে মারা যাওয়া ৩৪ রোগীদের মধ্যে বরগুনা জেলায় ৯ জন, পটুয়াখালী জেলায় ১৯ জন, বরিশালে ৫ জন ও ভোলায় একজন রোগী মারা যান। এরমধ্যে সর্বোচ্চ মারা যাওয়া পটুয়াখালীর ১৯ জনের মধ্যে ৬ জন হাসপাতালে ও ১৩ জন মির্জাগঞ্জ উপজেলায় বাড়িতে মারা যান। পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, বুধবার পর্যন্ত
বরিশাল বিভাগের ভোলা জেলায় ১২ হাজার ৪০৫ জন, পটুয়াখালী জেলায় ১০ হাজার ২২৫ জন, বরগুনা জেলায় ৭ হাজার ৬২৫ জন, বরিশাল জেলায় ৬ হাজার ৫১৩ জন, পিরোজপুর জেলায় ৬ হাজার ৫৭ জন ও ঝালকাঠি জেলায় ৫ হাজার ৪৩২ জন ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়েছেন।

বরিশাল জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. মলয় কৃষ্ণ বড়াল বলেন, বরিশালের নদী-নদী ও খাল-বিলের পানিতে কলেরার জীবানু পাওয়া গেছে। এই পানি ব্যবহারে মানুষ ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হচ্ছেন।

বরিশাল বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ডা. বাসুদেব কুমার দাস বলেন, কয়েকদিন ধরে ডায়রিয়ার প্রাদুর্ভাব একটু কমছে। আগে যেখানে প্রতিদিন এক হাজারের ওপরে আক্রান্ত হতেন, এখন সেটা হাজারের নিচে নেমেছে। গত ১ জানুয়ারী থেকে এ পর্যন্ত বিভাগে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়েছেন ৪৮ হাজার ২৫৭ জন।

তিনি আরও বলেন, সার্বিকভাবে বরিশালের ডায়রিয়া পরিস্থিতির উন্নতি হয়েছে। আক্রান্ত রোগীদের জন্য পর্যাপ্ত আইভি স্যালাইনের মজুত রয়েছে। 

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার