বরিশালে চিকিৎসকের মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় হত্যা মামলা

Img

বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালের বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি বিভাগের চিকিৎসক ডা. এম এ আজাদ সজলের মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। 

মঙ্গলবার রাতে চিকিৎসকের ছোট ভাই ডা. শাহারিয়ার উচ্ছ্বাস বাদী হয়ে কোতয়ালি মডেল থানায় এই মামলা দায়ের করেন।

বুধবার (২৯ এপ্রিল) দুপুরে প্রবাসীর দিগন্তকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কোতোয়ালি মডেল থানা পুলিশের সহকারী কমিশনার মো. রাসেল। 

তিনি জানান, অজ্ঞাত পরিচয় একাধিক ব্যক্তিকে আসামি করে মামলাটি দায়ের করা হয়েছে। এই মৃত্যুর রহস্য উদ্ঘাটনে পুলিশের একাধিক দল কাজ করছে। কয়েকজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক মো. বাকির হোসেন বলেন, চিকিৎসক আজাদের মৃত্যুর বিষয়টি নিয়ে এখনই তাঁরা কোনো মন্তব্য করতে চান না। কারণ, এটা এখন আইনি বিষয়। 

লিফটের নিচে পড়ে যাওয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, এটা অ্যাকসিডেন্টও হতে পারে আবার নাও হতে পারে। আশা করি তদন্তে এবং ফরেনসিক প্রতিবেদনে সবকিছু বের হয়ে আসবে।

প্রসঙ্গত, গত সোমবার নিখোঁজ হওয়ার পর গতকাল মঙ্গলবার সকালে নগরের কালীবাড়ি রোডের বেসরকারি মমতা স্পেশালাইজড হাসপাতালের লিফটের নিচ থেকে চিকিৎসক এম এ আজাদের লাশ উদ্ধার করা হয়। তাঁর মৃত্যু এবং লাশ লিফটের নিচে পাওয়া নিয়ে নানা ধরনের সন্দেহ ঘনীভূত হচ্ছে।

লাশ উদ্ধারের পর দুপুরে এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ওই বেসরকারি হাসপাতালে নয় কর্মচারীকে পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়েছে। এম এ আজাদের মরদেহ ময়নাতদন্তের পর শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মসজিদে জানাজা শেষে পরিবারের কাছে বুঝিয়ে দেওয়া হয়।

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার