বরিশালে করোনা আক্রান্ত এবং করোনায় শ্বাসকষ্টের রোগীদের পাশে দাঁড়াতে ব্যতিক্রমী উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দল (বাসদ)। ৫টি অক্সিজেন সিলিন্ডার এবং ৩০টি অক্সিপালস্ মিটার দিয়ে অক্সিজেন ব্যাংক চালু করেছে তারা।

সোমবার দুপুর ১২টায় বাসদ বরিশাল জেলা কার্যালয়ে ওই অক্সিজেন ব্যাংকের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়।

‘বিনা অক্সিজেনে ঝড়ে পড়বে না কোন প্রাণ’ এই স্লোগানকে সামনে রেখে বরিশালে বাসদের ওই অক্সিজেন ব্যাংকের যাত্রা শুরু হয়।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বাসদের নেতাকর্মীরা জানায়, সারা দেশে কেবল অক্সিজেন সংকটের কারণে অনেক করোনা আক্রান্ত রোগী মারা যাচ্ছে। সরকারি অব্যবস্থাপনার কারণে অনেক সময় অক্সিজেন থাকার পরও রোগীরা সেটা পাচ্ছে না। সময় মতো অক্সিজেন সরবরাহ না করার জন্যই করোনা ওয়ার্ডের রোগীর মৃত্যুর হার বাড়ছে। করোনা রোগীদের শ্বাসকষ্ট শুরু হলে অতি প্রয়োজনীয় হয়ে পড়ে অক্সিজেন।

এই সংকট থেকে বরিশালবাসীকে রক্ষা করতে বাসদ অক্সিজেন ব্যাংক চালু করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এখন থেকে করোনা আক্রান্ত হয়ে যারা বাড়িতে এবং হাসপাতালে শ্বাসকষ্টে ভুগবেন তাদের পাশে থাকবে বাসদ।

বাসদ বরিশালের সদস্য সচিব ডা. মণিষা চক্রবর্তী বলেন, প্রাথমিকভাবে ৫টি অক্সিজেন সিলিন্ডার ও ৩০টি অক্সিপালস্ মিটার দিয়ে এই ব্যাংকের কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে। পর্যায়ক্রমে ২০টি অক্সিজেন সিলিন্ডার ও ১০০টি অক্সিমিটারের ব্যবস্থা করা হবে। করোনা আক্রান্ত হয়ে যেসব রোগী বাসায় কিংবা হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন, তাদের শ্বাসকষ্ট দেখা দিলে বাসদের হেল্প লাইনে ফোন দিলে অক্সিজেন ব্যাংক থেকে প্রথমে অক্সিপালস্ মিটার দিয়ে পরীক্ষা ও পরে অক্সিজেন সরবরাহ করা হবে।

ডা. মণিষা বলেন, করোনা রোগীদের পরীক্ষায় ফি নির্ধারণের অপচেষ্টা চালাচ্ছে সরকার। যা এই মুহূর্তে জনগণের জন্য বোঝা হয়ে দাঁড়াবে। বরিশাল শহরে সিটি করপোরেশন, স্বাস্থ্য বিভাগ বা জেলা প্রশাসন কেউই রোগীদের চিকিৎসার জন্য অক্সিজেন সরবরাহ করছে না। বাসদ একদিকে যেমন রাজপথে জনগণের স্বাস্থ্য অধিকার আদায়ে লড়াই করছে, তেমনি দায়িত্বশীল রাজনৈতিক দল হিসেবে জনগণের পাশে দাঁড়াচ্ছে। মানুষের জীবন বাঁচাতে বাসদের এই অক্সিজেন ব্যাংককে সমৃদ্ধ করতে সবাইকে সহযোগিতা করার আহ্বান জানান তিনি।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বাসদ জেলা আহ্বায়ক প্রকৌশলী ইমরান হাবিব রুমন, সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্টের সাংগঠনিক সম্পাদক শহিদুল ইসলামসহ দলের নেতাকর্মীরা