ফেনী শহরের হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলো নানা অনিয়মে ভরে গেছে। নোংরা, অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ, নির্ধারিত ফির বেশী আদায় করা হচ্ছে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে পৌরসভার টিমের পরিদর্শনে এমন চিত্র বেরিয়ে আসে। ওই প্রতিষ্ঠানগুলোকে প্রথম বারের মতো সতর্ক করে দেয়া হয়। টিম প্রধান কাউন্সিলর লুৎফুর রহমান খোকন হাজারী অভিযানে নেতৃত্ব দেন।

সরেজমিনে দেখা যায়, গ্রীন ডায়াগনস্টিক সেন্টারের ট্রেড লাইসেন্স নেই, মূল্য তালিকার চেয়ে বেশি টাকা আদায় করছে, অগ্নি নির্বাপন ব্যবস্থা নেই, ল্যাবে নোংরা পরিবেশ। অমিন উল্লাহ মেডিকেল সেন্টারের ট্রেড লাইসেন্স নেই, অগ্নি নির্বাপন ব্যবস্থাপনা নেই, বর্জ্য ব্যবস্থা ভালো নয়, ল্যাব অপরিস্কার রয়েছে।

মিশন হাসপাতালে অতিরিক্ত মূল্য আদায়, ল্যাব অপরিস্কার। শহরের কুমিল্লা বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন কনসেপ্ট হাসপাতালে অগ্নি নির্বাপন ব্যবস্থা ও মূল্য তালিকা ঠিক থাকলেও ল্যাব রুম অপরিস্কার ও বর্জ্য ব্যবস্থাপনা ভালো নয়।

কসমোপলিটন হাসপাতালের সামনে ড্রেনের ময়লা-আবর্জনায় ভরপুর, দুগন্ধ ছড়াচ্ছে। সেখানে সরকার ও জেলা হাসপাতাল মালিক সমিতির নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষার ফি বেশি আদায় করছে। রক্ত কালেকশান রুমের নোংরা পরিবেশ দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। ট্রেড লাইসেন্সও নেই প্রতিষ্ঠানটির। এছাড়া তারা কসমো ডায়াগনষ্টিক সেন্টার নামে প্রতিষ্ঠান খুলে ট্রেড লাইসেন্স না নিয়ে হাসপাতালের লাইসেন্স দিয়ে লতিফ টাওয়ারে কসমোপলিটন ডায়াগনস্টিক সেন্টার এন্ড কলসালটেশন সেন্টার নামে আরেকটি প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করছেন।

এদিকে বায়োজিদ হেলথ সার্ভিসে ট্রেড লাইসেন্স ঠিক থাকলেও সমিতির নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে বাড়তি টাকা আদায়, ল্যাব রুমে নোংরা পরিবেশ, দুগন্ধ, অগ্নি নির্বাপন ব্যবস্থা একদম নাজুক, লিফটে ময়লা পানি, খালি বোতল ও খালি বালতিতে পানি জমে দুগন্ধ ছড়িয়ে পড়ছে বর্জ্য ব্যবস্থা ও নাজুক। জননী ডায়গনস্টিক সেন্টার ট্রেড লাইসেন্স ঠিক আছে, অগ্নি নির্বাপন ব্যবস্থা ভালো, ল্যাব রুম পরিস্কার পরিচ্চন্ন বর্জ্য ব্যবস্থাপনা ভালো, তবে মূল্য তালিকার চেয়ে বাড়তি টাকা আদায় করায় তাদেরকে সর্তক করা হয়।

পরির্দশনে টিম সদস্য ১০নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মাহাতাব উদ্দিন মুন্না, ৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর জয়নাল আবেদিন লিটন, ফেনী জেলা প্রাইভেট হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনষ্টির সেন্টার ওর্নাস এসেসিয়েশনের সভাপতি হারুন উর রশিদ, পৌরসভার মেডিকেল অফিসার ডা. কৃষ্ণপদ সাহা, স্যানেটারী ইন্সপেক্টর কৃষ্ণময় বণিক প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

ফেনী পৌরসভার পরির্দশন টিমের আহবায়ক কাউন্সিলর লুৎফুর রহমান খোকন হাজারী বলেন, প্রথমবার পরিদর্শন করে সতর্ক করা হচ্ছে। নিদিষ্ট সময়সীমা বেঁধে দেয়া হয়েছে। এরপর আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। পরিদর্শন টিমের এই কার্যক্রম নিয়মিত চলবে বলেও তিনি জানান।i