প্রবাসীর দিগন্তে সংবাদ: সাকুয়া টার্নিং পয়েন্ট পরিদর্শনে জেলা প্রশাসক

Img

নেত্রকোণা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের দুর্ঘটনা রোধকল্পে গত ২৯ এপ্রিল বৃহস্পতিবার ‘‘নেত্রকোণা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের সাকুয়া বাজার টার্নিংটি ঝুঁকিপূর্ণ” শিরোনামে অনলাইন নিউজ পোর্টাল 'প্রবাসীর দিগন্তে' প্রকাশের পর নেত্রকোণা সদরের সাকুয়া টার্নিং পরিদর্শন করেছেন নেত্রকোণা জেলা প্রশাসক কাজি মোঃ আবদুর রহমান।

সম্প্রতি গত ২৫ এপ্রিল রোববার “নেত্রকোণা মহাসড়কের সাকুয়ায় সিএনজি ও পিকাপভ্যানের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ১: আহত ২” এর পর মহাসড়কের এই টার্নিং এলাকায় ঘটে যাওয়া দুর্ঘটনা নিয়ে প্রবাসীর দিগন্তসহ স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমে কিছু দিকনির্দেশনামূলক তথ্য উল্লেখ করে খবর প্রকাশ এর পর এসব দুর্ঘটনা এড়ানোর লক্ষ্যে শনিবার (৮ মে) বেলা ১২টার দিকে পরিদর্শনে আসেন নেত্রকোণা জেলা প্রশাসক, সড়ক ও জনপথসহ সংশ্লিষ্টরা।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ, নেত্রকোণা সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাকসুদা আক্তার, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জাফর আলী চৌধুরী, বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটির উপ-পরিচালক ইঞ্জিনিয়ার মোবারক হোসেন, সড়ক ও জনপথের সাব ডিভিশনাল ইঞ্জিনিয়ার মাহিদুল ইসলাম, সাব এসিস্ট্যান্ট ইঞ্জিনিয়ার সোলায়মান হোসেন, ৯ নম্বর চল্লিশা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি আব্দুল জব্বার ফকির, রোড সেফটি নিয়ে কাজ করে সামাজিক সংগঠন আব্দুর রহমান ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ (এআরএফবি)র চেয়ারম্যান দিলওয়ার খান, স্থানীয় আওয়ামী লীগ সভাপতি আলা উদ্দিন পাঠান, আওয়ামী লীগ নেতা অজিত সরকারসহ জেলার প্রিন্ট, ইলেক্ট্রনিক ও অনলাইন মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ।

এসময় নেত্রকোণা জেলা প্রশাসক কাজি মোঃ আব্দুর রহমান বলেন, সড়কের পাশে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ, টার্নিং নিয়ন্ত্রণের জন্য সতর্কীকরণ সাইনবোর্ড, রেম্বলসহ যাবতীয় কাজ করা জন্য সড়ক ও জনপথকে নির্দেশ প্রদান করেন।

পূর্ববর্তী সংবাদ

পুষ্টিতে ভরপুর জাম্বুরা

জাম্বুরা আমাদের দেশীয় একটি ফল। ভিটামিন সি সমৃদ্ধ এই ফলটি আমাদের দেশের সব জায়গাতেই পাওয়া যায়। খুবই সহজলভ্য এই ফলটি কিন্তু অনেক উপকারী।অনেকেই একে বাতাবি লেবু বলে থাকেন। টক কিংবা মিষ্টি স্বাদের এই ফলের রয়েছে বেশ মিষ্টি একটা গন্ধ। জাম্বুরার ভেতরটা রসালো এবং কোষগুলো হলুদ, গোলাপী, লাল হয়ে থাকে। জাম্বুরার খোসা ছাড়িয়ে ভেতরের কোষগুলো খাওয়া হয়ে থাকে। এছাড়াও জুস, ফ্রুট সালাদ, মিষ্টি স্যুপ হিসেবেও খাওয়া যায়।

আসুন জেনে নিই জাম্বুরার পুষ্টিগুণ এবং উপকারীতা সম্পর্কে।

পুষ্টিগুণ: জাম্বুরা ভিটামিন সমৃদ্ধ একটি ফল । খুবই সহজলভ্য এবং কম দামে পাওয়া এই ফল কিন্তু অনেক পুষ্টি সমৃদ্ধ । প্রতি ১০০ গ্রাম জাম্বুরাতে আছে খাদ্যশক্তি ৩৮ কিলোক্যালরি, প্রোটিন ০.৫ গ্রাম, স্নেহ ০.৩ গ্রাম, শর্করা ৮.৫ গ্রাম, খাদ্যআঁশ ৫ গ্রাম, খনিজ লবন ০.২০ গ্রাম, ভিটামিন বি ২০.০৪ মিলিগ্রাম, ভিটামিন সি ১০৫ মিলিগ্রাম।

এছাড়াও এতে আছে রিবোফ্লাবিন, নিয়াসিন, ক্যারোটিন, ভিটামিন বি৬, আয়রন, ম্যাগনেসিয়াম, ম্যাংগানিজ, ফসফরাস, পটাসিয়াম, সোডিয়ামের মত উপকারী সব খনিজ উপাদান। যা আমাদের শরীরের অনেক উপকার করে থাকে।

উপকারীতা: 

১। জাম্বুরাতে ভিতামিন সি ও বি থাকায় এটি আমাদের হাড়, দাঁত, ত্বক ও চুলের পুষ্টি যোগায় এবং ভালো রাখতে সাহায্য করে। স্ক্যাভি, জ্বর, মুখের ঘা ইত্যাদি সমস্যার জন্য জাম্বুরা বেশ উপকারী। এছাড়াও এতে থাকা ভিটামিন সি আমাদের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে।

২। এতে থাকা পটাসিয়াম এবং ম্যাগনেসিয়ামের মত উপকারী খনিজ উপাদান আমাদের রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে থাকে। এছাড়াও এতে থাকা ভিটামিন সি আমাদের রক্তনালীর সংকোচন প্রসারণ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে থাকে।

৩। জাম্বুরাতে ক্যালরি এবং ফ্যাট কম থাকায় ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য এটি ভীষণ রকমের উপকারী। এ ফলটি ওজন কমাতে সাহায্য করে। তাই যারা একটু মোটা বা অতিরিক্ত ওজন নিয়ে ভাবনায় আছেন তাদের জন্য জাম্বুরা অনেক উপকারী।

৪। জাম্বুরা আমাদের ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা অনেক কমায় । কারণ জাম্বুরাতে আছে প্রচুর পরিমাণে বায়োফ্লভনয়েড। যা আমাদের ব্রেস্ট ক্যান্সারের হাত থেকে রক্ষা করে থাকে।

৫। জাম্বুরা আমাদের শরীরে থাকা খারাপ কোলেস্টরল নিয়ন্ত্রণ করে থাকে। এর ফলে বিভিন্ন ধরনের হৃদরোগের হাত থেকে রক্ষা করে জাম্বুরা। তাই অনেকেই একে কোলেস্টরল নিয়ন্ত্রক ফল হিসেবে বলে থাকেন।

৬। আমাদের শরীরের যেকোন ধরনের কাটা বা ক্ষত সারাতে জাম্বুরার জুড়ি নেই। যকৃত, পাকস্থলী, দাঁত এবং দাঁতের মাড়ির সুরক্ষায় জাম্বুরা অতুলনীয়। এছাড়াও এতে থাকা অ্যান্টি অক্সিডেন্ট আমাদের বয়স ধরে রাখতে সাহায্য করে এবং অল্প বয়েসে ত্বক বুড়িয়ে যাওয়া থেকে বাঁচায়।

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার