প্রবাসীরা যেভাবে সহজে গরুর মাংস রান্না করবেন

Img

জীবিকার প্রয়োজনে অথবা বিভিন্ন কাজে অনেকেই দেশ থেকে পরিবার থেকে অনেক দূরে দূর প্রবাসে অবস্থান করছেন। খুশির মুহূর্ত গুলো পরিবারের সাথে একসাথে উদযাপন করা হয়তো সম্ভব হয় না। তবুও বিশেষ দিনগুলোতে প্রবাসীরা মিলেমিশে কিছু ভালো সময় কাটানোর চেষ্টা করে।

বিশেষ দিনগুলো যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য ঈদের দিন গুলোতে দেখা যায় প্রবাসীরা একে অন্যের বাসায় দাওয়াত খেতে যান অথবা কয়েক জন একসাথে মিলে মিশে রান্নাবান্না করে। প্রবাসীদের বিশেষ দিনগুলো উদযাপনের মধ্যে রান্নাবান্না করে একসাথে খাওয়াটাই সবথেকে উল্লেখযোগ্য। আর তাই প্রবাসীদের সুবিধার্থে প্রবাসীর দিগন্তের এবারের আয়োজনে থাকছে প্রবাসীদের জন্য সহজে গরুর মাংস রান্নার কৌশল।

আমরা জানি গরুর মাংস বিভিন্ন উপায় রান্না করা যায় যেমন গরুর ভুনা, আলু দিয়ে গরুর মাংস, কালো ভুনা ইত্যাদি বিভিন্ন নামে বিভিন্ন উপায়ে এটি রান্না করা যায়। তবে আমরা এখানে সবথেকে সহজ যে উপায়ে গরুর মাংস রান্না করা যায় তাই আলোচনা করব।

সহজে আলু দিয়ে গরুর মাংস রান্না: আলু দিয়ে গরুর মাংস অন্যতম সুস্বাদু একটি খাবার। অনেকেই হয়তো মনে করেন এটি অনেক সময় সাপেক্ষ এবং চিন্তিত থাকেন মাংস অনেক সময় শক্ত থেকে যায়। কিন্তু না, নিম্নে উল্লেখিত প্রক্রিয়া গুলো ঠিকঠাক ভাবে সম্পন্ন করলে খুব সহজেই আপনি প্রস্তুত করতে পারবেন গরুর মাংসের রেসিপি। আমরা এখানে এক কেজি পরিমাণ মাংস রান্নার উদাহরণ উল্লেখ করব আপনি প্রয়োজন অনুযায়ী উপকরণ এবং মাংসের পরিমাণ বাড়িয়ে নেবেন।

উপকরন:

  • ১ কেজি গরুর মাংস।
  • বড় সাইজের দুইটা আলু।
  • এক টেবিল চামচ রসুন বাটা (বেশি দিলেও সমস্যা নেই)।
  • এক টেবিল চামচ আদা বাটা (একটু বেশি দিলে সমস্যা নেই)।
  • গরম মশলা -এলাচ ৪টি, দারুচিনি ৩-৪ টুকরা, লবঙ্গ ৪টি, তেজপাতা (কিছু কম-বেশি হলে সমস্যা নেই)।
  • দেড় চা চামচ মরিচ গুড়া (যে রকম ঝাল খেতে চান তার উপর কমবেশি দিতে পারে)।
  • দেড় চা চামচ হলুদ।
  • পেয়াজ কুচি বা বাটা এক কাপ।
  • জিরা বাটা / গুড়া তিন চা চামচ।
  • কয়েকটা কাঁচা মরিচ।
  • লবণ (স্বাদ মত)।
  • পরিমাণ মত তেল ও পানি।

রান্না প্রক্রিয়া:

হলুদ মরিচ ছাড়া বাকী সব মশলা মাখিয়ে কড়াইতে তেল গরম করে ভাল করে কষিয়ে নিন। প্রয়োজন অনুপাতে লবণ দিন। তেল উঠে গেলে হাফ কাপ পানি দিয়ে নিন। হলুদ ও মরিচ গুড়া দিয়ে দিন। ভাল করে কষিয়ে ঝোল বানিয়ে নিন।

এবার গরু মাংস দিয়ে ভাল করে কষিয়ে নিন। প্রয়োজনে হালকা আঁচে ঢাকনা দিয়ে রেখে দিন। কষানো এবং মাংস নরম হয়ে গেলে আলু দিয়ে দিন। চাহিদা অনুযায়ী ঝোলের জন্য পরিমাণ মতো গরম পানি দিন। 

ঝোল কমে আসলে অন্য একটা কড়াইতে কিছু পেঁয়াজ কুচি ভেজে (বেরেস্তা) গরুর গোশতে দিয়ে দিন এবং লবণ দেখুন। কিচু কাঁচা মরিচ দিতে পারেন। একটা চমৎকার রং এসে যাবে। ঝোল খুব বেশি পাতলা হবে না, এবার পরিবেশনের জন্য প্রস্তুত।

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার