প্রবল বৃষ্টিতে মুম্বাইয়ে দুইটি ভবন ধসে ১৫ জনের মৃত্যু

Img

প্রবল বৃষ্টিতে ভারতে মুম্বাইয়ে দুইটি ভবন ধসে ১৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। এখনও বেশ কয়েকজন ধ্বংসস্তুপের নিচে আটকা পড়ে আছে বলে জানিয়েছে উদ্ধারকারী দল।

শনিবার গভীর রাতে মুম্বাইয়ের চেম্বুর ও বিক্রোলি এলাকায় দু’টি ভবন ভেঙে পড়ে।  চেম্বুরের ভরত নগর এলাকায় ভেঙে পড়া বাড়ির নীচ থেকে ১১ জনের মরদেহ পাওয়া গিয়েছে। ১৫ জনকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে। তাদের নিকটবর্তী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

অন্য দিকে বিক্রোলিতে চার জনের মৃতদেহ পাওয়া গিয়েছে। আরও দু’জনকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এখনও উদ্ধার কাজ চালাচ্ছে পুলিশ ও  বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনী।

শুক্রবার থেকেই প্রবল বৃষ্টি শুরু হয়েছে মুম্বাইয়ে। এরইমধ্যে চুনাভাট্টি, দাদার, গাঁধী মার্কেট, চেম্বুর, কুরলা, বোরিভলি এলাকা পানিতে তলিয়ে গেছে। এই বৃষ্টি আরও পাঁচদিন থাকবে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া বিভাগ।

পূর্ববর্তী সংবাদ

রামেক হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ২৪ ঘণ্টায় আরো ১৭ মৃত্যু

রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের করোনা ইউনিটে গত ২৪ ঘণ্টায় আরো ১৭ জনের মৃত্যু হয়েছে।

মৃতদের পাঁচজন মারা গেছেন করোনা সংক্রমণে আর উপসর্গ নিয়ে ১১ জন।

রামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী আজ রবিবার (১৮ জুলাই) সকালে এসব তথ্য জানিয়েছেন।

শামীম ইয়াজদানী আরো জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় মৃতদের মধ্যে রাজশাহীর ছয়জন, চাঁপাইনবাবগঞ্জের দুজন, নাটোরের চারজন, নওগাঁর একজন, বগুড়ার একজন, ঝিনাইদহের একজন ও পাবনার দুজন ছিলেন। করোনায় আক্রান্ত হয়ে রাজশাহীর দুজন, নাটোরের একজন, নওগাঁর একজন ও পাবনার একজন মারা গেছেন। উপসর্গ নিয়ে রাজশাহীর চারজন, চাঁপাইনবাবগঞ্জের দুজন ও নাটোরের তিনজন, বগুড়ার একজন, পাবনার একজন ও ঝিনাইদহের একজন মারা গেছেন। মৃতদের পরিবারকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে দাফন করার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

রামেক হাসপাতাল পরিচালক জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় রামেকে নতুন ভর্তি হয়েছেন ৬০ জন। সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৭৬ জন। হাসপাতালে করোনায় আক্রান্ত হয়ে ২৪৩ জন এবং সন্দেহভাজন ও উপসর্গ নিয়ে ২৬৩ জন ভর্তি রয়েছেন। গত ২৪ ঘণ্টায় রামেকে ৪৫৪টি শয্যার বিপরীতে রোগী ভর্তি ছিলেন ৫০৬ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় রামেক হাসপাতালের পিসিআর মেশিনে ১৮৮টি নমুনা পরীক্ষায় ৫৭ জনের করোনা পজিটিভ এসেছে বলে জানান জানান। 

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার