প্রতিদিনের যে ১০ অভ্যাস আপনার শিরদাঁড়ার ক্ষতি করছে

Img

স্বাস্থ্য ডেস্কঃ

আই টি সেক্টরে বড় চাকরি করে বাদল। ঝাঁ চকচকে কেরিয়ার, থ্রিবিএইচকে ফ্ল্যাট, আইফোন, বিলাসবহুল গাড়ি সব কিছু নিয়ে বেশ পরিপূর্ণ জীবন তাঁর। শুধু জুত নেই শরীরটায়। কিছুদিন আগেই শিরদাঁড়ায় জটিল সমস্যা ধরা পড়েছে। কেন এমনটা হল বলুন তো? আপনারও কি রোজ পিঠে, কাঁধে ব্যথা হয়? আমাদের রোজকার কিছু খুব সাধারণ অভ্যাসই ডেকে আনছে বিপদ। জেনে নিন কোন অভ্যাসগুলোর কারণে শিরদাঁড়ার সমস্যায় আক্রান্ত হতে পারেন।

এখন সময়ের অভাবে আমরা অধিকাংশ কাজই নিজেদের ফোন থেকেই সেরে ফেলতে চাই। তা ছাড়াও চ্যাট, হোয়াটসঅ্যাপে সারা দিন ব্যস্ত থাকেন অনেকেই। সারা দিনের অনকটা সময়ই আমরা মাথা ঝুঁকিয়ে ফোনে চোখ রাখি। এতে ক্ষতি হচ্ছে শিরদাঁড়ার।
আপনাকে কি সারা দিন বসে কাজ করতে হয? বছরের পর বছর এ ভাবে কাজ করতে করতে শিরদাঁড়ার সমস্যা হতে বাধ্য।
আপনাকে কি কাজের প্রয়োজনে খুব বেশি সময় ড্রাইভ করতে হয়? দীর্ঘ সময় এক ভাবে বসে ড্রাইভ করলে শিরদাঁড়ার সমস্যা হতে পারে। * যদি কাজের চাপে পর্যাপ্ত বিশ্রাম না নেন, স্ট্রেস বাড়ে, তাহলেও শিরদাঁড়ায় চাপ পড়তে পারে।
আপনি যে ম্যাট্রেসের রাতে ঘুমোন তা কি ১০ বছরের বেশি পুরনো? বেশি দিন ব্যবহার করতে করতে ম্যাট্রেস খারাপ হয়ে যায়। যার ফলে শিরদাঁড়ার সমস্যা হতে পারে।
অতিরিক্ত ভারী ব্যাগ বা ল্যাপটপ ব্যাগ নিয়মিত বইলে, কাঁধে চাপ পড়ে শিরদাঁড়ার সমস্যা হতে পারে।
নিয়মিত হিল পরার অভ্যাস বা জুতো যদি আরামদায়ক না হয়, তাহলে শিরদাঁড়ায় চাপ পড়ে সমস্যা হতে পারে।
ভারী কিছু তুলতে গেলেও অনেক সময় শিরদাঁড়ার ওপর চাপ পড়তে পারে। যা থেকে পরে বড়সড় সমস্যা হতে পারে। যদি কিছু তুলতে কষ্ট হয় তাহলে জোর করে তুলবেন না।
বিশ্রামের অভাব হলে যেমন শিরদাঁড়ার সমস্যা হতে পারে, তেমনই অতিরিক্ত বিশ্রাম, আলস্য, শুয়ে বসে থাকার কারণেও শিরদাঁড়ার সমস্যা দেখা দিতে পারে।
অনেকেই ঘুমনোর সময় খুবই অদ্ভুত ভাবে শোন। পিঠ, কোমর অদ্ভুত ভাবে বেঁকে থাকে। এতে শিরদাঁড়ার ক্ষতি হয়।

পূর্ববর্তী সংবাদ

জেনে নিন, যেসব খাবার রক্ত বিশুদ্ধ করে

লাইফস্টাইল : দেহ নামের গাড়িটি সর্বক্ষণ সচল রাখতে শরীরে যে ‘ফুয়েল’ নি:শব্দে কাজ করে যাচ্ছে, তা হলো আমাদের রক্ত। তবে এই রক্তকে বিশুদ্ধ রাখতে আমরা কিন্তু কোনো পদক্ষেপই নেই না।

মাঝে মাঝে শরীরে কিছু লক্ষণ দেখা যায়, যা থেকে বোঝা যায় যে আমাদের রক্ত আসলে ক্ষতিকর টক্সিন বয়ে বেড়াচ্ছে। যেহেতু শরীরে সঠিকভাবে রক্ত পরিবহন করার মাধ্যমেই আপনি সুস্থ থাকেন, তাই এই রক্ত পরিশোধন জরুরি।

তাহলে জেনে নিন রক্ত বিশুদ্ধ করবে যেসব খাবার:-

পুদিনা পাতা
অ্যান্টি অক্সিডেন্ট ও অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল সমৃদ্ধ পুদিনা পাতা প্রতিদিন নিয়মিত খেলে রক্ত পরিশোধিত হয় কার্যকরভাবে। তাই সব সময় পুদিনা পাতা খাওয়ার চেষ্টা করুন।

ধনিয়া ও ধনেপাতা
কোলেস্টেরল কমিয়ে রক্ত বিশুদ্ধ রাখতে ধনিয়া ও ধনেপাতা বেশ উপকারি। ধনিয়া ও ধনেপাতায় ভিটামিন এ, সি, কে, বি থাকে। এরা রক্ত পরিশোধনে ভালো ভূমিকা রাখে।

রসুন
প্রচুর পরিমাণ অ্যান্টি অক্সিডেন্ট ও খনিজ পদার্থ থাকায় রসুন খারাপ কোলেস্টেরল কমিয়ে রক্ত বিশুদ্ধ হতে সাহায্য করে। তাই প্রতিদিন রসুন খেলে উপকার পাবেন।

হলুদ
ব্যাকটেরিয়া ধ্বংস করা, শ্বাস প্রশ্বাসের সমস্যা কমানোর মতো বেশ কিছু উপকারিতা আছে হলুদের। এই মসলা রক্ত পরিশোধনে বেশ কার্যকর।

গাজর
রক্ত পরিশোধনের ক্ষেত্রে সবচেয়ে ভালো এক সবজি গাজর। এটি ত্বক, চুল ও চোখের জন্যও খুব উপকারী।

করল্যা
এই সবজি রক্ত পরিশোধনে আশ্চর্যজনক কাজ করে। এছাড়া ব্লাড সুগার লেভেল নিয়ন্ত্রণে রাখা ও খারাপ কোলেস্টেরল কমাতেও সাহায্য করে এটি।

বিট
ভিটামিন এ ,বি,সি, কে, ফলিক এসিড ও প্রচুর আঁশ আছে এই সবজিতে। এটি খুব ভালো রক্ত পরিশোধক।

লাল মরিচ
ভিটামিন এ, বি, সি, ই , কে যেমন আছে প্রচুর, তেমনি এই মরিচে পটাশিয়াম ও ম্যাগনেশিয়ামও আছে। এসব উপাদান রক্ত পরিশোধন করে কার্যকরভাবে।

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার