পেঁয়াজ উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণ হওয়ার পথে বাংলাদেশ

Img

রান্নাবান্নায় পেঁয়াজ ব্যবহারের ইতিহাস বহু প্রাচীন। পেঁয়াজ রান্নাঘরের একটি অতি প্রয়োজনীয় উপকরণ। স্বাদের বৈচিত্র্য আনতে ঝাঁঝালো পেঁয়াজের জুড়ি নেই। এই পেঁয়াজ নিয়ে বিতর্ক এবং সংকটও কম নয়। দেশে চাহিদার তুলনায় পেঁয়াজের উৎপাদন কম হওয়ায় মাঝে মাঝে সংকটে পড়তে হয় রসনাবিলাসী ও গৃহকর্ত্রীদের।

আমদানি বন্ধ বা সীমিত হলে নাগালের বাইরে চলে যায় পেঁয়াজের দাম। এতে ত্যক্তবিরক্ত ভোক্তা, ব্যবসায়ী ও সরকার। এবার সেই সংকট উতরানোর সময় এসেছে। দুই বছরেই পেঁয়াজ উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণ হওয়ার পথে হাঁটছে বাংলাদেশ।

শুধু তা-ই নয়, নিজেদের চাহিদা মিটিয়ে চালের মতো পেঁয়াজ রপ্তানির চিন্তাভাবনাও করা হচ্ছে। মাঠপর্যায়ে কৃষকরা শীতকালে সাত জাতের পেঁয়াজ আবাদ করেন। আর গ্রীষ্মকালীন পেঁয়াজ আবাদ করেন তিন জাতের। এবার কয়েকটি গ্রীষ্মকালীন নতুন পেঁয়াজের জাত উদ্ভাবন করেছেন দেশের কৃষিবিজ্ঞানীরা। নতুন জাতের উচ্চ ফলনশীল জাতের পেঁয়াজের আবাদ বাড়লে বাংলাদেশ পেঁয়াজে স্বয়ংসম্পূর্ণ হবে।

পূর্ববর্তী সংবাদ

করোনা মুক্ত হলেন আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কৃষিবিদ আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিমের করোনা রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে। 

শনিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) তার করোনা রিপোর্ট নেগেটিভ আসে। করোনা চিকিৎসায় তিনি এতদিন রাজধানীর পুলিশ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। 
প্লাজমা দেওয়ার কথা থাকলেও মেডিকেল বোর্ডের সিদ্ধান্তে পরবর্তীতে প্লাজমা থেরাপি লাগেনি। ডাক্তার তাকে আগামী দুই মাসের জন্য ওষুধ দিয়ে বাসায় বিশ্রামে থাকতে বলেছেন।

করোনামুক্ত হওয়ার  প্রতিক্রিয়ায় আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কৃষিবিদ আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম আওয়ামী লীগ সভাপতি ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, আওয়ামী লীগের সর্বস্তরের নেতাকর্মী, দেশবাসী ও পুলিশ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের প্রতি কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানিয়েছেন। দ্রুত সুস্থ হয়ে তিনি যাতে মানুষের জন্য কাজ করতে পারেন সে জন্য সবার কাছে দোয়া চেয়েছেন আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম।

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার