পাকিস্তানে মাদ্রাসায় ভয়াবহ বিস্ফোরণ, বহু হতাহত

Img

পাকিস্তানের একটি মাদ্রাসায় শক্তিশালী বোমা হামলায় অন্তত ৭ জন নিহত হয়েছে। পেশোয়ারের এ হামলায় কমপক্ষে ৭০ জনের বেশি আহত হয়েছে। খবর দ্য টেলিগ্রাফ।

মঙ্গলবার স্থানীয় সময় সকাল সাড়ে ৮টার দিকে ওই মাদ্রাসায় এ বিস্ফোরণ ঘটে। পাকিস্তানের রাজধানী ইসলামাবাদের ১৭০ কিলোমিটার পশ্চিমে অবস্থিত ওই মাদ্রাসাটিতে বিস্ফোরণের সময় প্রায় ৬০জন শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।

পুলিশ জানায়, বিস্ফোরণে ভবনটির সামনের অংশ পুরোপুরি ধসে পড়েছে। একটি ব্যাগ ভর্তি বিস্ফোরক কেউ রেখেছিল বলে ধারণা করছে পুলিশ। নিহতদের সকলের বয়স ২০ থেকে ৪০ এর ভেতরে। হতাহতদের মধ্যে ছাত্র ও শিক্ষক রয়েছে।

এখনও পর্যন্ত এ হামলার দায় কেউ শিকার করেনি।

পূর্ববর্তী সংবাদ

৩ কার্যদিবসেই মামলার রায়, দেশের ইতিহাসে প্রথম

খুলনায় মাত্র ৩ কার্যদিবসে মাদক মামলার রায় ঘোষণা করেছেন আদালত। মঙ্গলবার (২৭ অক্টোবর) বেলা ১১টার দিকে  খুলনা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালত-৪ এর বিচারক  ড. মোহাম্মদ আতিকুস সামাদ এ রায় ঘোষণা করেন। 

রায়ে সম্রাট নামে এক আসামিকে এক বছরের সশ্রম কারাদণ্ড ও ১০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড অনাদা‌য়ে আরও এক মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেয়া হয়।

মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে এই রায় ঘোষণা করেন মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালত-৪ এর বিচারক ড. মো. আতিকুস সামাদ।


দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি হ‌লেন লবণচরা থানার জাহাঙ্গীর হাওলাদারের ছেলে সম্রাট। ৩০ গ্রাম গাঁজা ও ৬ পিস ইয়াবাসহ তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল।

নথির বরাত দিয়ে আদালতের বেঞ্চ সহকারী জালাল হোসেন জানান, ২০১৯ সালের ২৫ ডিসেম্বর রাত সাড়ে ৭টার দিকে মোক্তার হোসেন সড়কে অভিযান পরিচালনা করে পুলিশ। এ সময় বাজার মেইন রোডের কিউপিএস ফার্মেসির সামনে থেকে ৩০ গ্রাম গাঁজা ও ৬ পিস ইয়াবাসহ সম্রাটকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ ঘটনায় এসআই কাজী আকরাম হোসেন বাদী হয়ে সম্রাটের বিরুদ্ধে লবণচরা থানায় মাদক আইনে মামলা করেন যার নং-১৩।

চলতি বছরের ১ জানুয়ারি মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই নাসির উদ্দিন মোল্যা আদালতে সম্রাটকে অভিযুক্ত করে চার্জশিট দাখিল করেন। রাষ্ট্রপক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন এপিপি সাহারা ইরানী পিয়া। আসামি পক্ষে ছিলেন এড. সরদার ইয়াছির আরাফাত।

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার