পাইকগাছায় নৌকা প্রতীকের নির্বাচন অফিসে বোমা বিস্ফোরন ও অগ্নি সংযোগ,আটক ৮

Img
পাইকগাছায় নৌকা প্রতীকের নির্বাচন অফিসে বোমা বিস্ফোরন ও অগ্নি সংযোগের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। পুলিশ জামায়াত নেতা সহ ৮ ব্যক্তিকে আটক করেছে। এর প্রতিবাদে আওয়ামী লীগের উদ্যোগে প্রতিবাদ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। প্রশাসন ও পুলিশের উর্দ্ধতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। মঙ্গলবার গভীর রাতে দূর্বৃত্তরা উপজেলার গদাইপুর মোড়ে নৌকা প্রতীকের নির্বাচনী অফিসে কয়েকটি ককটেক জাতীয় বোমা বিস্ফোরন ঘটায় ও অগ্নিসংযোগ করে। এতে তৈরীকৃত নৌকা, চেয়ার ও অফিসের বেড়া পুড়ে ক্ষতিগ্রস্থ হয়। রাতেই খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন থানার ওসি আমিনুল ইসলাম। বুধবার সকালে ঘটনাস্থলে যান নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আলহাজ্ব আক্তারুজ্জামান বাবু। এরপর সকাল সাড়ে ১০ টায় ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন জেলা প্রশাসক ও রিটার্নিং অফিসার মোঃ হেলাল হোসেন, জেলা পুলিশ সুপার এসএম শফি উল্লাহ, জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা এম মাজাহারুল ইসলাম, জেলা আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা নব কুমার ও উপজেলা নির্বাহী ও সহকারী রিটার্নিং অফিসার জুলিয়া সুকায়না। এ ব্যাপারে ওসি আমিনুল ইসলাম বলেন, এ ঘটনায় গদাইপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি সরদার জাকির হোসেন বাদী হয়ে দেড় শতাধিক ব্যক্তিকে আসামী করে থানায় মামলা করেছে। পুলিশ এ পর্যন্ত অভিযান চালিয়ে এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে জামায়াত নেতা অ্যাডভোকেট আব্দুল মজিদ, সরদার আব্দুল মজিদ ও ডাক্তার আব্দুস সাত্তার সহ ৮ জনকে আটক করা হয়েছে।
পূর্ববর্তী সংবাদ

চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসনে বিএনপি-আ.লীগের থেকে প্রচারনায় এগিয়ে জামায়াত

আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসনে জমে উঠেছে ভোটের লড়াই। আসনটিতে আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও জামায়াতের আলাদা আলাদা প্রার্থী থাকায় প্রতিবারের ন্যায় এবার জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও উন্মুক্ত নির্বাচন হচ্ছে।

আসনটিতে জোটের বাইরে এসে বিএনপি ও জামায়াতের দুই হেভিওয়েট প্রার্থী নির্বাচনে অংশ নেওয়ার কারনে ইতিমধ্যে এই আসনটি নিয়ে অনেক আলোচনা-সমালোচনা হচ্ছে।

এই আসনটিতে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের হয়ে প্রর্থী হয়েছেন ২ বারের এমপি আব্দুল ওদুদ বিশ্বাস। বিএনপি-জামাতের ঘাটি বলে খ্যাত এই আসনিটিতে তিনি প্রথম বারের মত আওয়ামী লীগের হয়ে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

বিএনপির হয়ে আসনটিতে লড়ছেন দলটির যুগ্ন মহাসচিব হারুনুর রশিদ। তিনিও এই আসনে দুই বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। দেশের বহুল আলোচিত নারী নেত্রী আসিফা আশরাফি পাপিয়া হারুনের স্ত্রী।

জোটের বাইরে এসে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে আসনটিতে নির্বাচন করছেন জামায়াতের নুরুল ইসলাম বুলবুল। নুরুল ইসলাম বুলবুল চাঁপাইনবাবগঞ্জ সরকারী কলেজের নির্বাচিত ভিপি এবং রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ শামসুজ্জোহা হলের নির্বাচিত জিএস ছিলেন। পরে বাংলাদেশ ছাত্র শিবিরের কেন্দ্রীয় সভাপতি দায়ত্ব পালন করেন। বর্তমানে তিনি বাংলাদেশ জামায়াত ইসলামীর কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য এবং ঢাকা দক্ষিন জামায়াতের আমির।

উতিমধ্যে আসনটিতে জমে উঠেছে প্রচারনা। প্রার্থীরা বিভিন্ন এলাকায় গিয়ে গনসংযোগ করছেন,দোয়া ও ভোট চাচ্ছেন। বর্তমান ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের এমপি প্রার্থী ও কর্মীরা বিভিন্ন জায়গায় নির্বাচনি প্রচারনা করলেও বিএনপি ও জামায়াতের কর্মীদের বিভিন্নভাবে হয়রানি করছে বলে অভিযোগ করেছেন দুই দলের নেতারা।

আসনটির বিভিন্ন জায়গা ঘুরে স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা গেছে, আব্দুল ওদুদ বিশ্বাস ও হারুনুর রশিদ উনারা দুই চাচাতো ভাই এবার দুই ভাই থেকে বিরিয়ে এসে ভোটাররা নতুন মুখ দেখতে চান।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক স্থানীয় বলেন, আব্দুল ওদুদ বিশ্বাস ও হারুনুর রশিদ দুই জনই দুই বার করে এমপি ছিলেন এবার আমরা তাদের বাইরে গিয়ে নতুন মুখ খুজছে। আব্দুল ওদুদ বিশ্বাস ও হারুনুর রশিদ ছাড়া আরো ৪ জন প্রার্থী থাকলেও জামায়াতের নুরুল ইসলাম বুলবুলই এগিয়ে রয়েছেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক জামায়াতের কর্মী বলেন, চাঁপাইনবাবগঞ্জ বরাবর‌ই জামায়াত অধ্যুষিত এলাকা। এর আগে উপজেলা নির্বাচনে জামায়াতের স্বতন্ত্র প্রার্থী বিপুল ব্যবধানে বিজয় লাভ করেছেন, চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনেও জামায়াতের প্রার্থীকে এলাকার মানুষ ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেছেন আসন্ন সংসদ নির্বাচনেও এলাকাবাসী বুলবুল ভাইকে বিপুল ভোটে নির্বাচিত হবেন।

তিনি আরও বলেন, গত ১০ বছরে হারুন সাহেব জনগনের থেকে অনেক দূরে ছিলেন আর ওদুদ সাহেবতো উন্নয়ন বাদ দিয়ে শুধু নিজের আখের গুছিয়েছেন। তাই এবারের নির্বাচনে আমরাই এগিয়ে।

শেষ পর্যন্ত এই আসনে কে বিজয়ী হবেন তার জন্য আমাদের অপেক্ষায় থাকতে হবে ৩০শে ডিসেম্বর পর্যন্ত। তবে সাধারন মানুষের প্রত্যাশা যেন সুষ্ঠ ও নিরপেক্ষ ভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় এবং সকলে নির্বিঘ্নে ভোট দিতে পারেন।

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার