নুসরাতের হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবিতে খুলনায় মানববন্ধন

Img

যৌন হয়রানির প্রতিবাদ করায় গায়ে কেরোসিন ঢেলে পুড়িয়ে দেয়া মাদরাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফির হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবিতে খুলনায় মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

আজ দুপুরে মহানগরীর শিববাড়ির মোড়ে এ মানববন্ধনের আয়োজন করে বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার পরিষদের নেতৃত্বে খুলনার সাধারণ শিক্ষার্থীরা। এসময় তারা রাফিকে যৌন হয়রানি ও অগ্নিসংযোগের মাধ্যমে নৃশংসভাবে হত্যাকারীর ফাঁসির দাবি ও শোকাহত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান। মানববন্ধনে বক্তৃতা করেন তামান্না ফেরদৌস শিখা, আরিফুল ইসলাম, জুবাইয়া নওশিন, আরিফ-বিন-জহুর, তামিম, তারিক বিন আনাম প্রমুখ। এ সময় শিক্ষার্থীরা বলেন, নুসরাতকে হত্যার বিচার চাই, ‘অধ্যক্ষসহ জড়িতদের ফাঁসি চাই’, এখন হারকিউলিস কোথায়?

উল্লেখ্য, গত ৬ এপ্রিল (শনিবার) সকালে নুসরাত আলিম পরীক্ষা দিতে সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদরাসায় যান। এ সময় মাদরাসার এক ছাত্রী তার বান্ধবী নিশাতকে ছাদের ওপর কেউ মারধর করছে- এমন সংবাদ দিলে তিনি ওই বিল্ডিংয়ের চার তলায় যান। সেখানে মুখোশ পরা চার-পাঁচজন তাকে অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলার বিরুদ্ধে মামলা ও অভিযোগ তুলে নিতে চাপ দেয়। নুসরাত অস্বীকৃতি জানালে তারা তার গায়ে আগুন দিয়ে পালিয়ে যায়। চারদিন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে বুধবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে মারা যান নুসরাত জাহান রাফি।

পূর্ববর্তী সংবাদ

অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘটে যাচ্ছে খুলনার জ্বালানি ব্যবসায়ীরা

জ্বালানি তেল বিক্রয়ের প্রচলিত কমিশন কমপক্ষে সাড়ে সাত শতাংশ প্রদানসহ ১৫ দফা দাবিতে আগামী ১৬ এপ্রিল থেকে অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে খুলনা বিভাগসহ বৃহত্তর ফরিদপুর জেলার সকল ট্যাংকলরী মালিক-শ্রমিক ও জ্বালানি তেল ব্যবসায়ীরা। ধর্মঘট চলাকালে তেল উত্তোলন বিপণন ও পরিবহন বন্ধ থাকবে।

খুলনা জ্বালানি তেল পরিবেশক সমিতির অফিস সচিব সরোজ দাস পিন্টু জানান, ১৫ দফা দাবি আদায়ের লক্ষ্যে গত ২৫ ফেব্রুয়ারি খুলনা বিভাগসহ বৃহত্তর ফরিদপুর জেলার সকল ট্যাংকলরী মালিক-শ্রমিক ও জ্বালানি তেল ব্যবসায়ীদের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠক থেকে ধর্মঘটের সিন্ধান্ত নেয়া হয়, যা পরে মন্ত্রণালয়কে অবহিত করা হয়।

মন্ত্রনালয় চিঠি পেয়ে তেল ব্যবসায়ীদের সঙ্গে বৈঠক করার জন্য দশজনের নামের তালিকা চেয়ে পাঠালেও পরে আর কোন আলোচনাই হয়নি। ৩০ মার্চ আবারও বৈঠকে বসেন তেল ব্যবসায়ীরা। বৈঠকে ১৬ এপ্রিল থেকে তেল উত্তোলন বিপণন ও সরবরাহ বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত হয়।

১৫ দফা দাবির মধ্যে আরও রয়েছে- জ্বালানি তেল বলাকা কমিশন এজেন্ট নাকি উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান? বিষয়টি সুনির্দিষ্টি করতে হবে, প্রিমিয়াম পরিশােধ সাপেক্ষে ট্যাংকলরী শ্রমিকদের ৫ লাখ টাকা দুর্ঘটনা বীমা প্রথা প্রণয়ন করতে হবে, ট্যাংকলরী ভাড়া বৃদ্ধি করতে হবে, পেট্রোল পাম্পের জন্য কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান অধিদফতরের লাইসেন্স গ্রহণ বাতিল করতে হবে, পরিবেশ অধিদফতরের লাইসেন্স গ্রহণ বাতিল করতে হবে, পেট্রোল পাম্পের অতিরিক্ত পাবলিক টয়লেট, জেনারেল স্টোর ও ক্লিনার নিয়োগের বিধান বাতিল করতে হবে, সড়ক ও জনপথ বিভাগে কর্তৃক পেট্রোল পাম্পের প্রবেশদ্বারের ভূমির জন্য ইজারা গ্রহণের প্রথা বাতিল করতে হবে।

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার