সম্প্রতি সৌদি আরব নারী হজ পালনকারীদের জন্য নতুন নিয়ম চালু করেছে। এ নিয়েমে নারী হজ পালনকারীর জন্য ৫০ হাজার রিয়াল জরিমানা গুণতে হবে তাকে পরিবহনকারী বিমান সংস্থাকে। তবে এ আইন বাস্তবায়নে একটি নির্দেশনা ও শর্ত জারি করেছে দেশটি।

যদি কোনো নারী মাহরাম ছাড়া হজ করতে যায় তবে তাকে বহনকারী বিমান সংস্থাকে ৫০ হাজার সৌদি রিয়াল জরিমানা গুণতে হবে। মাহরাম ছাড়া হজে যাওয়া এ নারীর বযস যদি ৪৫ বছরের কম হয় তবে এ আইন কার্যকর হবে।

তবে ৪৫ বা তার চেয়ে বেশি বয়সী নারীরা মাহরাম ছাড়া যে কোনো নারী দলের সঙ্গে হজ কিংবা ভ্রমণে যেতে পারবে। এ ক্ষেত্রে কোনো জরিমানা গুণতে হবে না।

ইসলামের নির্দেশনা অনুযায়ী কোনো নারীই মাহরাম ছাড়া হজ করতে পারবে না। যদি কেউ মাহরাম ছাড়া হজ করে তবে হজ আদায় হলেও সে নারী হবে গোনাহগার। এরপরও অনেক নারীই মাহরাম ছাড়া হজ পালন করতে যায়।

বিশ্বব্যাপী অনেক হজ এজেন্ট বিভিন্ উপায়ে মাহরাম ছাড়া নারীদের হজ করাতে অবৈধ উপায় বা পদ্ধতি গ্রহণ করে। সহজ ভাষায় অন্য যে কোনো ব্যক্তিকে ভাই, বোন বা স্বামী ইত্যাদি অবৈধ উপায় অবলম্বন করে থাকে।

বহুদিন ধরেই হজ এজেন্টগুলো টাকা পেলেই নারীদের হজ পালন ও ভ্রমনের অনুমতি গ্রহণ করে আসছে। সম্প্রতি সৌদি সরকার নারীদের জন্য ৫০ হাজার সৌদি রিয়াল জরিমানা ঘোষণা করেছে। যদি কোনো নারীর সঙ্গে মাহরাম পাওয়া না যায় তবে ৫০ হাজার রিয়াল জরিমানা দিতে হবে।

মাহরাম এমন ব্যক্তি যিনি ওই নারীকে বিয়ে করতে পারবেন না। ওই নারী মাহরাম ব্যক্তির এমন আত্মীয়, যার সঙ্গে বিয়ে করা হারাম। যেমন কোনা নারীর ছেলে, স্বামী, বাবা, ভাই, দাদা, নাতি, ভাইয়ের ছেলে, বোনের ছেলে। যারা খরচ বহনে ও শর্তপূরণে সক্ষম, হজ শুধু তাদের জন্য পালন করা আবশ্যক।

যদি কোনো মহিলা হজ বা ওমরাহ পালনের জন্য কোনো মাহরাম ঠিক করতে না পারে তবে ওই মহিলার জন্য হজ আবশ্যক নয়।

সম্প্রতি গ্রহণ করা নিয়ম অনুযায়ী সৌদি সরকারকে এ জরিমানা প্রদান করবে সেসব বিমান সংস্থা যারা মাহরাম ছাড়া কোনো যাত্রীকে সৌদি আরব নিয়ে যাবে।

ইতিমধ্যে সৌদি আরবের সিভিল এভিয়েশন জেনারেল অথরিটি (সিএজিএ) বিমান সংস্থাগুলোকে নারী হজযাত্রী পরিবহনে এ সতর্কতা জানিয়ে দিয়েছেন।

সিএজিএ আরো জানিযেছেন, কোনো বিমান সংস্থা যদি মাহরাম ছাড়া কোনো নারীকে পরিবহন করে পবিত্র নগরী মক্কা কিংবা মদিনায় নিয়ে যায়। তবে তাকে পরবর্তী ফ্লাইটে ওই বিমান সংস্থর খরচে নিজ দেশে ফেরত পাঠানো হবে।

তবে সৌদি সরকার ৪৫ বছরের বয়সী কিংবা তারও বেশি বয়সী নারীদেরকে মাহরাম ছাড়া সৌদি ভ্রমণের অনুমতি দেবে।

সৌদি দূতাবাসের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে যে, হজ পালনে ইচ্ছুক নারীকে অবশ্যই মাহরামের প্রমাণ পত্র পেশ করতে হবে। আর ৪৫ বছর বয়সী কিংবা তারও বেশি বয়সী নারীদেরকে যে কোনো নারী যেতে চাইলে যে কোনো গ্রুপের সঙ্গে যেতে পারবে।

সুতরাং যেসব বিমান সংস্থা মাহরাম ছাড়া ৪৫ বছরের কম বয়সী নারীদের সেীদি নিয়ে যাবে। তাদের জন্য ৫০ হাজার রিয়াল জরিমানা করার আইন কার্যকরী হবে।