নওগাঁ-৬ আসনে বিএনপির অর্ধদিবস হরতালের ডাক

Img

নওগাঁ-৬ (রানীনগর-আত্রাই) আসনের উপ-নির্বাচনকে প্রহসনের নির্বাচন উল্লেখ করে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে জেলা বিএনপি। একই সঙ্গে এ আসনে অর্ধদিবস হরতালের ডাক দেয়া হয়েছে।

শনিবার (১৭ অক্টোবর) রাত সাড়ে ৭টার দিকে জেলা বিএনপির উদ্যোগে নওগাঁ শহরের কেডির মোড় বিএনপির দলীয় কার্যালয় থেকে এক বিক্ষোভ মিছিল বের হয়ে শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে। পরে বিএনপির দলীয় কার্যালয়ে এক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

নওগাঁ জেলা বিএনপির আহ্ববায়ক হাফিজুর রহমান হাফিজ মাষ্টার এর এর সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন,যুগ্ম আহবায়ক আলহাজ্ব নাছির উদ্দিন,জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি নজমুল হক সনি, সাধারন সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম ধলু, শহিদুল ইসলাম টুকু,সাংগঠনিক সম্পাদক মামুনুর রহমান রিপন ও শফিউল আজম ভিপি রানা, বিএনপি নেতা  আব্দুস শুকুর,চঞ্চল,ভিপি খোকন, জেলা যুবদলের সভাপতি বায়েজিদ হোসেন পলাশ, সাধারন সম্পাদক খায়রুল আলম গোল্ডেন, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শামীম আহম্মেদ, ছাত্রদলের সভাপতি রুবেল হোসেন, সাধারণ সম্পাদক মামুন বিন ইসলাম দোহা প্রমুখ।

নওগাঁ জেলা বিএনপির আহ্বায়ক হাফিজুর রহমান হাফিজ মাস্টার বলেন, নওগাঁ-৬ আসনের উপনির্বাচন প্রত্যাখ্যান করে রানীনগর-আত্রাই উপজেলায় আগামীকাল (রোববার) অর্ধদিবস হরতাল ডাকা হয়েছে। পরে দলীয়ভাবে আবারও সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। আপাতত রোববার অর্ধদিবস হরতাল পালন করব আমরা।

পূর্ববর্তী সংবাদ

বরিশালে পুলিশের ধর্ষণ ও নারী নির্যাতন বিরোধী সমাবেশ

বাংলাদেশ পুলিশের দেশব্যাপী কর্মসূচির অংশ হিসেবে বরিশাল রেঞ্জাধীন ৬ জেলায় ৪৭২টি বিটে একযোগে ধর্ষণ ও নারী নির্যাতন বিরোধী সমাবেশ করেছে পুলিশ। এসময় স্ব-স্ব বিটের ফেসবুক পেইজে সমাবেশ সারাসরি সম্প্রচার করা হয়। 

শনিবার (১৭ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ১০টায় বরিশাল জেলার বানারীপাড়া পৌরসভা এলাকায় অনুষ্ঠিত নারী ধর্ষণ ও নির্যাতন বিরোধী সমাবেশে প্রধান অতিথি ছিলেন ডিআইজি মো. শফিকুল ইসলাম-বিপিএম (বার), পিপিএম।

সমাবেশ তিনি বলেন, নারী ধর্ষণ ও নির্যাতন প্রতিরোধে প্রতিটি পরিবার, গ্রাম-মহল্লা, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, মসজিদ, মন্দিরসহ সকল প্রতিষ্ঠানকে নিজ নিজ অবস্থান থেকে জোরালো ভূমিকা  রাখাতে হবে। প্রতিটি নারী আমাদের মা/বোন অথবা কন্যা। যে কোন মূল্যে সমাজ থেকে নারী নির্যাতন এবং ধর্ষণ নির্মূল করতে হবে। একই সঙ্গে আইনের কঠোর প্রয়োগ নিশ্চিত করতে হবে।

সমাবেশে জেলা পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা, জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গ, শিক্ষক, মসজিদের ইমামসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার উল্লেখযোগ্য সংখ্যক মানুষ অংশগ্রহণ করেন।

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার