দক্ষিণ আফ্রিকায় বাংলাদেশি ব্যবসায়ীর বুকে-পিঠে এলোপাতাড়ি গুলি

Img
নিহত শাহাজাহান সাজু

দক্ষিণ আফ্রিকায় সন্ত্রাসীর গুলিতে শাহাজাহান সাজু (৪৭) নামের বাংলাদেশি এক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার বাংলাদেশ সময় দুপুর ২টার দিকে ফোর্ট এলিজাবেথ এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

সাজু কুমিল্লার নাঙ্গলকোট উপজেলার আদ্রা দক্ষিণ ইউপির আটিয়াবাড়ি গ্রামের রুস্তম আলী ভূঁইয়ার ছেলে। দেশে তার স্ত্রী ও দুই ছেলে রয়েছে।

সাজুর ছেলে মো. মানিক জানান, তার বাবা ১৬ বছর ধরে দক্ষিণ আফ্রিকায় থাকেন। দেশটির ফোর্ট এলিজাবেথ এলাকায় তার খাদ্যসামগ্রীর দু'টি দোকান রয়েছে। মঙ্গলবার বাংলাদেশ সময় দুপুর ২টার দিকে নিজ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের কাজ শেষে বের হওয়ার পর আফ্রিকান এক সন্ত্রাসী তার বুকে ও পিঠে এলোপাতাড়ি গুলি করে পালিয়ে যায়। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে মার্কেন্টাইল হাসপাতালে নেয়। সেখানে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। 

আগামী ২/৩ দিনের মধ্যে তার লাশ দেশে আনার চেষ্টা করা হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

পূর্ববর্তী সংবাদ

অভিযান: ৫ মিনিটে ডজন প্রতি কলায় ৮০ টাকা কম

ফল বিক্রেতা আনোয়ার হোসেন ডজন প্রতি দেশি কলা বিক্রি করছিলেন ২০০ টাকায়। ম্যাজিস্ট্রেটের অভিযান শুরু হলে মাত্র ৫ মিনিটে ডজন প্রতি ৮০ টাকা কমে ১২০ টাকায় কলা বিক্রি করেন তিনি।

বুধবার (০৮ মে) দুপুরে চট্টগ্রাম নগরীর অন্যতম বড় কাঁচা বাজার কাজীর দেউড়ি বাজারে জেলা প্রশাসনের বাজার মনিটরিং টিমের অভিযানে অভিনব এ ঘটনা ঘটে।

অভিযানে নেতৃত্ব দেন জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও কাট্টলী সার্কেলের সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. তৌহিদুল ইসলাম এবং নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আশরাফুল আলম।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তৌহিদুল ইসলাম বলেন, অভিযান চালানোর আগেই মনিটরিং টিমের কয়েকজন ‘সোর্সকে ক্রেতা সাজিয়ে’ ওই বাজারে পাঠানো হয়েছিল। বিক্রেতারা সোর্সদের কাছে বাংলা কলা প্রতি ডজন ১৮০-২০০ টাকা এবং প্রতি কেজি মাল্টা ১৮০ টাকা দাম চায়। বিক্রেতাদের কাছে থাকা ক্রয় রশিদ যাচাই করে দেখা গেছে, অধিকাংশ ক্ষেত্রে বাজার নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে ফলের দাম কাজীর দেউড়িতে বেশি। এসময় তিন জন ফল বিক্রেতাকে মোট ২৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। কাজীর দেউড়ি বাজারে গরুর মাংস প্রতি কেজি ৫৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছিল। হাঁড়সহ প্রতি কেজি গরুর মাংসের নির্ধারিত মূল্য ৫২০ টাকা। এ কারণে এক মাংস বিক্রেতাকে পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা করা হয় এবং অন্য মাংস বিক্রেতাদের সর্তক করা হয়।

তিনি জানান, বাজারে অনেক ব্যবসায়ী আমাদের উপস্থিতি টের পেয়ে মূল্য তালিকা সংশোধন করছিল। বেশি দামে শসা-বেগুন-কাঁচামরিচ বিক্রি করায় চারটি দোকানকে জরিমানা করা হয়েছে। এছাড়া ওই বাজারে একটি মুরগির দোকানে মূল্য তালিকা না থাকায় সেটিকেও জরিমানা করা হয়।

কাজীর দেউড়ি বাজারে বুধবারের এ অভিযানে মোট আটজন বিক্রেতাকে ৪০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার