টানা বৃষ্টিতে চট্টগ্রামে জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। গুমোট আবহাওয়ায় তিন দিন ধরে সূর্যের দেখা মেলেনি। বৃষ্টিতে নগরীর কিছু নিচু এলাকা পানিতে তলিয়ে গেছে।

অব্যাহত ভারী বর্ষণে বাণিজ্যিক রাজধানী চট্টগ্রামে সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন নগরবাসী। বিশেষ করে স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থী, অভিভাবক, চাকরিজীবী ও নিম্নআয়ের মানুষের ভোগান্তির শেষ নেই।

আবহাওয়া অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, সোমবার সকাল নয়টা পর্যন্ত পূর্ববর্তী ২৪ ঘণ্টায় চট্টগ্রামে ৭৮ দশমিক ৪ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে। আজ সকাল ১০টায় নতুন করে ২৪ ঘণ্টার জন্য ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া দপ্তর।

পূর্বাভাসে বলা হয়, মৌসুমি বায়ু সক্রিয় থাকার কারণে রংপুর, ময়মনসিংহ, সিলেট, বরিশাল এবং চট্টগ্রাম বিভাগের কোথাও কোথাও আজ সকাল ১০টা থেকে আগামী ২৪ ঘণ্টায় ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে চট্টগ্রাম বিভাগে পাহাড়ধস হওয়ার আশঙ্কাও প্রকাশ করা হয়।

এদিকে আজ সোমবারও সকাল থেমে থেমে চট্টগ্রামে মাঝারি থেকে ভারী বৃষ্টিপাত হচ্ছে। বৃষ্টিতে রাস্তাঘাটে যানবাহনের সংখ্যা কম দেখা গেছে। টানা বৃষ্টিতে যানবাহন স্বল্পতার জন্য ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে সাধারণ মানুষকে। ঘণ্টার পর ঘণ্টা মোড়ে মোড়ে দাঁড়িয়ে জবুথবু মানুষগুলো গাড়িতে উঠতে পারছে না।

সরেজমিনে দেখা গেছে, নগরীর আগ্রাবাদ সিডিএ আবাসিক, হালিশহর, ছোটপুল, মুরাদপুর, বহদ্দারহাট, চকবাজার, খাতুনগঞ্জ, চাক্তাইসহ বিভিন্ন এলাকা পানিতে তলিয়ে গেছে।

বৃষ্টির কারণে জোয়ারের পানিতে আগ্রাবাদ মা ও শিশু জেনারেল হাসপাতালের নিচতলায় হাঁটু পানি উঠে গেছে। ফলে শিশু বিকাশ কেন্দ্র, জেনারেল ওয়ার্ড, বহির্বিভাগ ও প্রশাসনিক কার্যালয় বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

হাসপাতালের পরিচালক (প্রশাসন) ডা. মো. নূরুল হক বলেন, রোগীদের সুরক্ষায় ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। ‘যেহেতু নিয়মিত এ এলাকায় পানি উঠে, তাই বর্ষা আসলে আমরা বিকল্প ব্যবস্থা করি। পানি উঠার কারণে চলাফেরায় কিছুটা সমস্যা হলেও হাসপাতালের সেবা চালু রয়েছে।’