ডুমুরিয়ায় শহীদ মিনারকে আড়াল করে দোকন ঘর নির্মাণ

Img

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭০ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রাক্কালে ডুমুরিয়া উপজেলার চুকনগর দিব্যপল্লী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে মাঠে স্থাপিত শহীদ মিনারে দাড়িয়ে ভাষণ দিয়েছিলেন। সেই শহীদ মিনারকে আড়াল করে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতার ছত্রছায়ায় দোকান ঘর তৈরি করা হচ্ছে। বঙ্গবন্ধুর স্মৃতিবিজড়িত সেই স্থানটি আড়াল করার প্রতিবাদ করায় রোষানলে পড়েছেন স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান প্রতাপ কুমার রায়।

এ দিকে বুধবার বিকেলে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নির্মান কাজ বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

স্থানীয় এলাকাবাসীর সাথে আলাপকালে জানা যায় খুলনা, যশোর ও সাতক্ষীরা মিলনস্থান চুকনগর। সেখানে রয়েছে প্রাচীন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান দিব্যপল্লী মাধ্যমিক বিদ্যালয়। ওই বিদ্যালয়ের মাঠে ১৯৫৩ সালে ভাষা শহীদদের স্মরণে স্থাপিত হয় একটি শহীদ মিনার। যতদূর জানা যায় এই শহীদ মিনারটিই ডুমুরিয়া উপজেলার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে স্থাপিত সর্ব প্রথম শহীদ মিনার। ১৯৭০ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পূর্বে ওই শহীদ মিনারের উপরে দাড়িয়ে বাংলাদেশের স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ভাষন দিয়েছিলেন। ওই ভাষণে যশোর জেলার কেশবপুর, সাতক্ষীরা জেলার তালা, খুলনার ডুমুরিয়াসহ বিভিন্ন স্থান থেকে হাজার হাজার মানুষ বঙ্গবন্ধুর ভাষণ শোনেন। সেই শহীদ মিনারটির কোন সংরক্ষণ ও সৌন্দর্য বর্ধনে আজও কেউ ব্যবস্থা নেয়নি। করোনার কারণে স্কুল পরিচালনা কমিটির মেয়াদ শেষ হওয়ায় আপদকালিন এডহক কমিটি গঠণ করা হয়।

ওই কমিটির সভাপতি মনোনীত হন আওয়ামী লীগ আটলিয়া ইউনিয়ন শাখার সভাপতি সাবেক ইউপি মেম্বর মোস্তাফিজুর রহমান দুলু। তিনিসহ স্কুলের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক নুরুল ইসলাম শহীদ মিনারকে আড়াল করে দোকান নির্মাণ করে ভাড়া দেয়ার উদ্যোগ নেন। শহীদ মিনারকে আড়াল করায় স্থানীয়রা এর প্রতিবাদ করে। প্রতিবাদকারীদের নানাভাবে হয়রানি করা হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী বুধবার দুপুরে সংঘবদ্ধ হয়ে নির্মানাধীন ভবনের স্থাপনা আংশিক ভেঙে ফেলে।

স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান প্রতাপ কুমার রায় ও শহীদ মিনারকে আড়াল করার প্রতিবাদ করেন। এতে রোষানলে পড়েন তিনি। তাকে নানাভাবে হেনস্থা করার এবং মামলায় জড়ানোর হুমকি দেয়া হচ্ছে বলে জানান চেয়ারম্যান প্রতাপ কুমার রায়।

দিব্যপল্লী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক নুরুল ইসলাম বলেন, স্কুল পরিচালনা কমিটির সিদ্ধান্তে দোকান নির্মাণের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। স্কুলের নিজস্ব অর্থায়নে নির্মিত হচ্ছে বলে জানান তিনি।

স্কুল পরিচালনার এডহক কমিটির সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, স্কুলের আয় বৃদ্ধির জন্য কমিটির সভায় দোকান নির্মানের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। নির্মাণ কাজ শেষ হলে উন্মুক্তভাবে দোকান ভাড়া বা বরাদ্দ দেয়া হবে।

আটলিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন শিক্ষা কমিটির সভাপতি  প্রতাপ কুমার রায় বলেন, জাতির পিতার স্মৃতি বিজড়িত ঐতিহাসিক শহীদ মিনারকে আড়াল করে দোকান ঘর নির্মান করা জাতির জনক শেখ মুজিবুর রহমান ও ভাষা শহীদদের অবমূল্যায়ন করা। এ ঘটনার নিন্দা জানিয়ে এর সাথে যুক্তদের শাস্তির দাবি জানান তিনি।

ডুমুরিয়া উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সঞ্জিব দাশ বলেন, চুকনগর দিব্যপল্লী মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে স্থাপিত ভাষা শহীদদের স্মরণে নির্মিত শহীদ মিনারকে অবমূল্যায়ন করে দোকান নির্মাণ করা হচ্ছে জানতে পেরে ঘটনাস্থল পরিদর্শন, পর্যবেক্ষণ ও স্থাণীয়দের সাথে আলাপ করেছি। প্রাথমিকভাবে ঘটনার সত্যতা পেয়ে নির্মাণ কাজ বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছি। বিষয়টি উর্ব্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি।
 

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার