ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে গুরুত্বপূর্ণ ৩ ফ্রুট জুস

Img

ডায়াবেটিস আক্রান্তদের জন্য ব্লাড সুগার নিয়ন্ত্রণ করা সবচেয়ে দরকারি। ব্লাড সুগার নিয়ন্ত্রণে ফ্রুট জুস বেশ ভালো ভূমিকা রাখে। ভিটামিন বি, ভিটামিন সি, পটাশিয়াম, ফসফরাস ও ম্যাগনেসিয়ামের উপস্থিতিতে ফলের জুস ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণের একটি চমৎকার মাধ্যম হতে পারে।

আজ জেনে নিন এমন তিনটি ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণকারী ফলের জুস সম্পর্কে।

আঙুরের জুস:

আঙুরে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি, থায়ামাইন ও ম্যাগনেসিয়াম রয়েছে। তাছাড়া আঙুর অনেক বেশি ক্রোমিয়াম সমৃদ্ধ একটি ফল। চিকিৎসা বিজ্ঞানে বলা হয় ক্রোমিয়াম ইনসুলিন এর উপর ইতিবাচক প্রভাব ফেলে। আঙুরের ক্রোমিয়াম শরীরে হরমোনের মাত্রা ঠিক রেখে এবং গ্লুকোজ স্বাভাবিক রাখে। তাই যারা ডায়বেটিস সমস্যায় আক্রান্ত তারা আঙুরের জুস পান করতে পারেন নির্দ্বিধায়।

কমলার জুস:

মলার জুস ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য অত্যন্ত উপকারী খাদ্য উপাদান। একজন ডায়াবেটিস রোগী দিনের শুরু করতে পারেন পুষ্টিকর কমলার জুস দিয়ে। কমলাতে ব্লাড সুগার নিয়ন্ত্রণকারী ভিটামিন সি, ভিটামিন এ, ভিটামিন বি-১, ফলিক অ্যাসিড ও পটাসিয়াম প্রচুর পরিমাণে থাকে।

আপেলের জুস:

ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য আপেল জুস খুবই স্বাস্থ্যকর একটি পানীয়। আপেলে কমলার তুলনায় অল্প মাত্রায় ভিটামিন বি, সি ও পটাসিয়াম রয়েছে থাকলেও এই ফলের ফাইবার কন্টেন্ট রক্তে সুগারের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখে ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। আপেলের জুস পান করার সময় আলাদা চিনি না দিয়ে পান করাটা সবচেয়ে স্বাস্থ্যকর।

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার