ডায়াবেটিস কমায় পেঁয়াজ

Img

ডায়াবেটিসের চিকিৎসায় মেটফরমিন নামে ওষুধ তৈরি হয়েছে অনেক আগেই। এবার ডায়াবেটিস আক্রান্ত রোগীদের জন্য আরেকটি সুখবর দিচ্ছেন বিজ্ঞানীরা। মেটফরমিনের সঙ্গে পেঁয়াজের নির্যাস ব্যবহার করলে রক্তে শর্করা এবং কোলেস্টেরলের মাত্রাও কমবে বলে এক গবেষণায় দেখা গেছে।

নাইজেরীয় বিজ্ঞানীরা পেঁয়াজের কার্যকারিতা ইঁদুরের ওপর পরীক্ষাও করেছেন। গবেষক দলের প্রধান নাইজেরিয়ার আব্রাকার ডেল্টা স্টেট ইউনিভার্সিটির শিক্ষক অ্যান্থনি ওজিহ বলেন, পেঁয়াজ কীভাবে রক্তের শর্করা কমায় সে বিষয়ে বিস্তারিত এখনও জানা যায়নি। পুরো প্রক্রিয়াটি সম্পর্কে জানতে আরও পরীক্ষা-নিরীক্ষারপ্রয়োজন।

পেঁয়াজে ক্যালরি কম, তবে এটি দেহের শারীরবৃত্তীয় ক্রিয়াকলাপের হার বাড়ায় বলে ক্ষুধা বেশি পায়। হজমও দ্রুত হয়। মেটফরমিনের কার্যকারিতা বাড়াতে পেঁয়াজের রস কীভাবে কাজ করে তা জানতে বিজ্ঞানীরা কৃত্রিম উপায়ে ইঁদুরকে ডায়াবেটিস আক্রান্ত করেন। পরে ইঁদুরগুলোর ওজনভেদে দৈনিক সেগুলোর দেহে প্রতিকেজি হিসাবে ২০০, ৪০০ এবং ৬০০ মিলিগ্রাম করে পেঁয়াজের রস প্রবেশ করান।

দেখা যায়, যেসব ইঁদুরের দেহে ৪০০ থেকে ৬০০ মিলিগ্রাম হিসেবে পেঁয়াজের রস সরবরাহ করা হয়েছে সেগুলোর রক্তে শর্করার পরিমাণ শতকরা ৩৫ থেকে ৫০ ভাগ পর্যন্ত কমেছে।সেই সঙ্গে ডায়াবেটিস আক্রান্ত ইঁদুরগুলোর সামগ্রিক কোলেস্টেরলের মাত্রাও কমেছে। আর পেঁয়াজের নির্যাস যত বেশি ব্যবহার করা হয়েছে, ফলও ততো ভালো পাওয়া গেছে। তবে এ নির্যাস আক্রান্তদের ওজনে কোনো প্রভাব না ফেললেও ডায়াবেটিস আক্রান্ত নয় এমন ইঁদুরের ওজন বাড়িয়েছে।

পূর্ববর্তী সংবাদ

বাজে খাবারকে সুস্বাদু করে তোলার ৭টি ম্যাজিক ট্রিক

অতি পাকা রাঁধুনিরও মাঝে মাঝে রান্না খারাপ হয়। কখনো খাবারে স্বাদ আসে না, কখনো পুড়ে যায়, কখনো গলে যায়, কখনো তেতো হয়ে যায়, কখনো হয়ে যায় মশলা বেশি বা কম, অতিরিক্ত লবণ বা চিনি পড়ে যায় ইত্যাদি আরও কত কী! এছাড়া রেস্তরাঁ থেকে আনা খাবারও যে সবসময় খেতে সুস্বাদু হয়, এমন কিন্তু নয়। তাহলে কী করবেন এই বিষাদ খাবারগুলো, ফেলে দেবেন?

মোটেও না! জেনে নিন ৭টি দারুণ কৌশল, যা কিনা আপনার বিস্বাদ খাবারকেও চোখের পলকে ভীষণ সুস্বাদু করে তুলবে।

১) মাংসের কারি রান্না করেছেন, কিন্তু ঝোল বেশি পাতলা হয়ে গিয়েছে? কিংবা কেন যেন খেতে ঠিক ভালো লাগছে না, ঝাল বেশি হয়েছে, মশলা কষানো হয়নি তাই বাজে গন্ধ আসছে, কিংবা মশলা পুড়ে গেছে বলে তেতো লাগছে স্বাদ? একেবারেই চিন্তার কিছু নেই। বেশ খানিকটা পেঁয়াজ বেরেশ্তা করুন, ভাজার সময়েই মাঝে দিন আস্ত গরম মশলা। এবার এই ভাজা বেরেশ্তা দিয়ে দিয়ে তরকারিতে। ভালো করে নেড়ে, আঁচ কমিয়ে দমে রাখুন ১৫/২০ মিনিট। মাংসের ঝোলের সমস্ত সমস্যা কমে যাবে, তরকারিটা মুখে দেয়ার যোগ্য হয়ে যাবে।

২) মাংসের ঝোলের তরকারিতে খুব বেশি লবণ বা ঝাল দিয়ে ফেলেছেন? এত বেশি যে মুখেই দেয়া যাচ্ছে না? যোগ করুন দুধ। সাথে সামান্য চিনি। তারপর ঢাকনা দিয়ে অল্প আছে দমে রাখুণ। লবণ ও ঝাল দুটোই কমে যাবে।

৩) গ্রিল চিকেন, শিক কাবাব বা অন্য যে কোন কাবাব জাতীয় খাবার খেতে খুব বাজে হয়েছে? কিংবা বেশি পুড়িয়ে ফেলেছেন বা লবণ-মশলা অতিরিক্ত হয়ে গেছে? চিন্তার কিছু নেই, এই সমস্যারও আছে সমাধান। এমন খাবারের সাথে পরিবেশন করুন একটি বিশেষ রায়তা। টক দইকে চিনি, সামান্য লবণ, চাট মশলা, মিহি ধনে পাতা-পুদিনা পাতা কুচি ও সরষে তেল দিয়ে ভালো করে ফেটিয়ে নিন। এই রায়তা কাবাব জাতীয় খাবারের সব ত্রুটি ঢেকে দেবে।

৪)আলুর চপ, পরোটা ইত্যাদি তৈরি করেছেন কিন্তু বিস্বাদ লাগছে খেতে? কিংবা লবণ-মশলা কম হয়েছে? ওপরে ছড়িয়ে দিন আপনার প্রিয় যে কোন স্বাদের চাট মশলা। মুহূর্তেই মাঝেই সুস্বাদু হয়ে উঠবে।

৫) ফ্রাইড রাইস, পোলাও বা বিরিয়ানি বেশি নরম হয়ে গেছে এবং এটাকে আবার ঝরঝরে করে তুলতে চান? ছড়ানো কোন পাত্রে খাবারটি ঢেলে ফ্যানের নিচে শুকাতে দিন। খুব ভালো করে ঠাণ্ডা হয়ে গেলে অনেকটা ঝরঝরে হয়ে আসবে,তখন ছড়ানো কড়াইতে গরম করে নিন।

৬) ভাজাভুজি জাতীয় স্ন্যাক্স তৈরি করেছেন, কিন্তু স্বাদ হয়নি বা রান্না বাজে হয়ে গিয়েছে? সাথে পরিবেশন করিন এই বিশেষ সসটি। সোম পরিমাণ মেয়নেজ ও টমেটো কেচাপ নিন। সাথে যোগ করুন খানিকটা চিলি সস, গোলমরিচ গুঁড়ো, লেবুর রস, পানি। ভালো করে ফেটিয়ে নিন। এই দারুণ সস দিয়ে খেলে সমস্ত বাজের খাবারও সুস্বাদু মনে হবে।

৭) মাছের ঝোল থেকে আঁশটে গন্ধ আসছে? ঝোলের মাঝে টমেটো টুকরো করে দিন। তারপর ভাজা জিরার গুঁড়ো ছড়িয়ে দিয়ে দিন প্রচুর ধনেপাতা। ঢাকনা দিয়ে দমে রাখুন। এবার দেখুন তরকারিতে কি মিষ্টি সুঘ্রাণ।

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার