টিকা নেওয়ার আগে এই ৪টা বিষয় অবশ্যই জেনে নেবেন

Img

নানা ঘটন-অঘটনের পর যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন রাজ্য সরকার এবং স্থানীয় সরকার ধীরগতিতে করোনা ভাইরাসের টিকা বিতরণ শুরু করেছে। এই টিকার প্রয়োগ শুরু হয়েছে বৃটেন, সৌদি আরব, কানাডা সহ বিভিন্ন দেশে। ভারতেও তৈরি হচ্ছে করোনার টিকা। তার বিতরণ প্রক্রিয়াও শুরু হয়েছে। অনেক স্থানে প্রথমেই স্বাস্থ্যকর্মী এবং নার্সিং হোমে অবস্থানরতদের টিকা দেয়া হচ্ছে। টিকা দেয়া হচ্ছে শিক্ষক এবং মুদি দোকানের কর্মীদের। ফলে অধিক থেকে অধিক পরিমাণে টিকা পাওয়া শুরু করেছে মানুষ। তা সত্ত্বেও কিছু সংশয় থেকে যায়।

যেমন, টিকা নেয়ার কতদিন পরে কোনো ব্যক্তি পুরোপুরি নিরাপদ হবেন? এ বিষয়ে ক্লিনিক্যাল গবেষক লরেল ব্রিস্টো এ প্রক্রিয়া নিয়ে কিছু প্রশ্নের উত্তর দিয়েছেন। এগুলো যুক্তরাষ্ট্রের বহুল প্রচলিত ম্যাগাজিন পিপল-এর অনলাইন সংস্করণে প্রকাশিত হয়েছে।

প্রতিটি টিকা কিভাবে কাজ করে?

যুক্তরাষ্ট্রে ফাইজার ও মডার্নার দুটি টিকা অনুমোদন দেয়া হয়েছে। দুটিই ম্যাসেঞ্জার আরএনএ বা এমআরএনএ টিকা। এগুলো নতুন এক ধরনের টিকা, যা শরীরের কোষগুলোকে শিক্ষা দেয় কিভাবে স্পাইক প্রোটিন তৈরি করতে হবে। ভাইরাস থেকে আসা স্পাইক প্রেটিনের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সাড়া দেবে এই প্রোটিন- এক্ষেত্রে কোভিড-১৯। দুটি টিকাই পূর্ণাঙ্গভাবে কাজ করতে দুটি ডোজ নিতে হয়। ফাইজারের ক্ষেত্রে প্রথম টিকা নেয়ার তিন সপ্তাহ পরে দ্বিতীয় ডোজ নিতে হয়। মডার্নার ক্ষেত্রে এই সময়ের ফারাক চার সপ্তাহ। ব্রিস্টো বলেছেন, সর্বোচ্চ ইমিউনিটি বা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতায় পৌঁছাতে দুটি ডোজ নিতে হবে।

প্রতি ডোজ কতটা প্রোটিন সরবরাহ করে?

ফাইজার বা মডার্নার টিকার প্রথম ডোজটি নেয়ার পর একজন ব্যক্তি করোনা ভাইরাস থেকে শতকরা ৫০ ভাগ নিরাপদ থাকেন। আর দ্বিতীয় ডোজ নেয়ার পর তিনি শতকরা প্রায় ৯৫ ভাগ নিরাপদ হন।

প্রতিটি ডোজ কি তাৎক্ষণিকভাবে কার্যকর?

মোটেও না। কারণ, এই টিকা নেয়ার পর তা সাড়া দিতে কিছুটা সময় নেয়। ব্রিস্টো বলেন, টিকা নেয়ার পর আপনার রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা কাজ করা শুরু করে। তবে শতকরা ৯৫ ভাগ নিরাপদ হতে দ্বিতীয় ডোজ টিকা নেয়ার পরও দু’সপ্তাহ সময় লাগে। এর অর্থ হলো, যদি কেউ ফাইজারের টিকা নেন, তাহলে তাকে শতকরা নিরাপদ হতে প্রক্রিয়ার শুরু থেকে মোট কমপক্ষে ৫ সপ্তাহ সময় প্রয়োজন হবে। অন্যদিকে মডার্নার টিকায় এ জন্য সময় লাগবে ৬ সপ্তাহ।

প্রথম বা দ্বিতীয় ডোজ নেয়ার পরও কি আপনি করোনা আক্রান্ত?

হ্যাঁ। কারণ, আপনি টিকা নেয়ার সঙ্গে সঙ্গে আপনি নিরাপদ হন না। ব্রিস্টো বলেন, আপনি দুটি ডোজ টিকা নেয়ার পর শতকরা ৯৫ ভাগ কার্যক্ষম হতে সময় প্রয়োজন। তাই প্রথম ডোজ টিকা নেয়ার পরই আপনি নিরাপদ থাকেন না। আপনি তখন করোনার লক্ষণ থেকে নিরাপদ থাকতে পারবেন। এ জন্যই প্রথম ডোজ টিকা নেয়ার পর লোকজন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া যায়।

পুরোপুরি টিকা নেয়ার পর কি আমি মাস্ক পরা বন্ধ করবো, বন্ধুবান্ধব ও পরিবারের সবার সঙ্গে সাক্ষাত করতে পারবো?
দুর্ভাগ্যজনক। না তা পারবেন না। ব্রিস্টো বলেন, আমাদের চারপাশে যেসব মানুষ আছেন তাদেরকে নিরাপদ রাখতে আমাদের মাস্ক পরতে হবে। টিকা নেয়া ব্যক্তির মধ্যেও করোনার লক্ষণগুলোর প্রকাশ পায় না। তবে তিনি করোনায় আক্রান্ত থাকতে পারেন। ফলে তার কাছ থেকে অন্যরা সংক্রমিত হতে পারেন। ব্রিস্টো আরো বলেন, করোনা ভাইরাসের টিকা নেয়ার পর শতকরা ৯৫ ভাগ সুরক্ষিত থাকার কথা। কিন্তু অরক্ষিত থাকবেন শতকরা ৫ ভাগ। এই ফাঁকে দ্রুত বিস্তার ঘটানো নতুন ধরনের ভাইরাস আপনাকে আক্রমণ করে বসতে পারে। এমন আশঙ্কাও আছে।

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার