জেনে নিন, ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট কী?

বিষয়: করোনাভাইরাস
Img

কোভিডের দ্বিতীয় ঢেউয়ের হানায় গোটা দেশ জর্জরিত। ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশনের সম্প্রতি ঘোষণা অনুসারে, ভারতে যে নতুন শক্তিশালী সংক্রমণের ভ্যারিয়েন্ট ধরা পড়েছে, সেটি হল ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট। তথ্য অনুসারে, এই ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টই হল, ভারতের ধ্বংসাত্মক দ্বিতীয় ঢেউয়ের পেছনের প্রাথমিক কারণ। গবেষকদের মতে, এটি ব্রিটেনের আলফা স্ট্রেনের চেয়েও অনেক বেশি সংক্রামক।

তাহলে আসুন জেনে নেওয়া যাক, ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট সম্পর্কিত সমস্ত খুঁটিনাটি তথ্য।

ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট কী? কেন এই নামকরণ করা হয়েছে?

করোনা ভাইরাসের B.1.617.2 স্ট্রেনকে "ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট" বলা হয়। E484Q এবং L452R নামক দুটি আলাদা আলাদা ভাইরাসের ভ্যারিয়েন্ট থেকে B.1.617 ভ্যারিয়েন্ট রূপান্তর রয়েছে। জিনোম সিকোয়েন্সিং এবং নমুনা পরীক্ষার পর, ভারতের মহারাষ্ট্রে ডবল মিউটেশনের প্রথম ঘটনাটি ধরা পড়ে। পূর্ববর্তী ল্যাব টেস্টের ফলাফল অনুসারে, ডিসেম্বর মাস থেকে E484Q এবং L452R মিউটেশনের তীব্র বৃদ্ধি লক্ষ্য করা গিয়েছে। আগে যাকে 'ডাবল মিউট্যান্ট' ভাইরাস বা 'ইন্ডিয়ান ভ্যারিয়েন্ট' বলা হচ্ছিল, ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশন আনুষ্ঠানিকভাবে তার নাম 'ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট' রেখেছে, যাতে এই বিষয়ে পরবর্তীকালে কোনও বিভ্রান্তির সৃষ্টি না হয়। অন্যদিকে, ব্রিটেনে পাওয়া 'B.1.17' স্ট্রেনের নাম দেওয়া হয় "আলফা ভ্যারিয়েন্ট"। দক্ষিণ আফ্রিকা ও ব্রাজিলে পাওয়া ভিওসি-স্ট্রেনের নাম যথাক্রমে রাখা হয় "বিটা ভ্যারিয়েন্ট" ও "গামা ভ্যারিয়েন্ট"।

দ্বিতীয় ঢেউয়ের উত্থানের জন্য কি এই ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট দায়ী?

যদিও এনিয়ে কোনও দৃঢ় প্রমাণ নেই, কিন্তু বিভিন্ন গবেষকদের মতে, করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের ভয়াবহতা এবং উত্থানের মূল কারণই হল, এই ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট। এর ফলেই সংক্রমণ দ্রুত ছড়িয়ে পড়েছে এবং গুরুতর পর্যায়ে পৌঁছেছে। এই ভ্যারিয়েন্টের জন্যই সংক্রমিত ও মৃত্যুর সংখ্যা অত্যধিক পরিমাণে বেড়েছিল।

ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট উদ্বেগজনক কেন?

ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টে E484Q এবং L452R উভয় মিউটেশনের জেনেটিক কোড বর্তমান, যা মানবদেহে প্রবেশ করে প্রতিরোধ ক্ষমতায় প্রভাব ফেলে এবং অঙ্গ-প্রত্যঙ্গগুলোকে আক্রমণ করে। নতুন রূপগুলি স্পাইক প্রোটিনের কাঠামোর পরিবর্তন করে। মূলত করোনা স্ট্রেনের চেয়ে অনেক বেশি ক্ষতিকর।

কোভিড-১৯ এর ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের নতুন উপসর্গগুলি কী কী?

সাম্প্রতিক রিপোর্ট অনুসারে, করোনার দ্বিতীয় ঢেউ আক্রমণের কারণ এই ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট অনেক বেশি মারাত্মক বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞ ও চিকিৎসকরা। এই ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের ক্ষেত্রে কিছু নতুন উপসর্গ দেখা যাচ্ছে, যেমন - শ্রবণশক্তি হ্রাস পাওয়া, গুরুতর গ্যাস্টিকের সমস্যা দেখা দেওয়া, রক্ত জমাট বেঁধে গ্যাংগ্রিনের মতো সমস্যা হওয়া, প্রভৃতি।

সম্প্রতি নিউ সাউথ ওয়েলস বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি গবেষণা অনুসারে, বিটা এবং গামা ভ্যারিয়েন্ট দ্বারা সংক্রমিত করোনা রোগীদের ক্ষেত্রে, এই ধরনের কোনও উপসর্গ দেখা যাচ্ছে না। এখনও পর্যন্ত ৬০টিরও বেশি দেশে ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের খবর পাওয়া গিয়েছে। ব্রিটেনে, এই ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের সংক্রমণের ফলে, আগের চেয়ে অনেক বেশি কোভিড রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে।

বর্তমান করোনার ভ্যাকসিনগুলি কি নতুন ভ্যারিয়েন্টের বিরুদ্ধে কার্যকর?

ভ্যাকসিনগুলি বিভিন্ন ভ্যারিয়েন্টের বিরুদ্ধে কার্যকর কিনা, এই বিষয়ে কোনও শক্ত প্রমাণ পাওয়া যায়নি। যেহেতু ভাইরাসের নতুন স্ট্রেনগুলির ইমিউন সিস্টেমের উপর প্রভাব ফেলার ক্ষমতা রয়েছে, তাই বর্তমান ভ্যাকসিনগুলি এই স্ট্রেনগুলির বিরুদ্ধে খুব কার্যকর নাও হতে পারে, এমন সম্ভাবনা রয়েছে। যাইহোক, এখন ভ্যাকসিন নেওয়াই হল একমাত্র উপায়, যা আমাদের সকলকে এই মারণ ভাইরাসের হাত থেকে রক্ষা করতে সহায়তা করবে। যদিও ভ্যাকসিনগুলি ভ্যারিয়েন্টগুলির বিরুদ্ধে কার্যকর প্রমাণিত হতেও পারে আবার নাও হতে পারে, তবে এটি অবশ্যই সংক্রমণের তীব্রতা এবং মৃত্যুর হার হ্রাস করতে সক্ষম।

- সূত্র: বোল্ডস্কাই
প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার